5.6 C
Toronto
মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০২৪

ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামে কিছু কানাডিয়ানের জন্য খবর বন্ধ করছে মেটা

ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামে কিছু কানাডিয়ানের জন্য খবর বন্ধ করছে মেটা
বিল সি ১৮ নামে পরিচিত বিলটি এখন সেনেট পরীক্ষা করে দেখছে এই বিলের আওতায় টেক জায়ান্টটি কোনো প্রকাশকের খবরের লিঙ্ক মেয়ার করলে বা তাদের কনটেন্ট অনলাইনে অন্য কোনো উদ্দেশে ব্যবহার করলে তার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রকাশককে অর্থ পরিশোধে বাধ্য থাকবে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো

সাময়িক পরীক্ষা হিসেবে ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে কিছু কানাডিয়ানের জন্য খবর বন্ধ করতে যাচ্ছে মেটা। মাসের বেশিরভাগ সময়জুড়ে এই পরীক্ষা চলবে বলে জানা গেছে।

এর মধ্য দিয়ে গুগলের পদাঙ্ক অনুসরণ করছে সিলিকন ভ্যালির এই টেক জায়ান্ট। গুগল এর আগে এ বছরের গোড়ার দিকে কিছু কানাডিয়ান ব্যবহারকারীর জন্য খবরের লিঙ্ক বন্ধ রেখেছিল। লিবারেল সরকারের বিতর্কিত বিলের পরিপ্রেক্ষিতে এই পদক্ষেপ নিয়েছিল তারা।

- Advertisement -

বিল সি-১৮ নামে পরিচিত বিলটি এখন সেনেট পরীক্ষা করে দেখছে। এই বিলের আওতায় টেক জায়ান্টটি কোনো প্রকাশকের খবরের লিঙ্ক মেয়ার করলে বা তাদের কনটেন্ট অনলাইনে অন্য কোনো উদ্দেশে ব্যবহার করলে তার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রকাশককে অর্থ পরিশোধে বাধ্য থাকবে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো।
মেটা বলেছে, বিলটি পাস হলে ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে খবর স্থায়ীভাবে বন্ধ করবে তারা। এ মাসেই বিলটি পাস হতে পারে বলে সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে।

মেটা কানাডার পাবলিক পলিসির প্রধান রাচেল কারেন বলেন, সাময়িক এই উদ্যোগের প্রভাব পড়বে কানাডায় আমাদের যে ২ কোটি ৪০ লাখ ব্যবহারকারী আছে তার ১ থেকে ৫ শতাংশের ওপর। পুরো পরীক্ষার সময় এই সংখ্যা কমবেশি হতে পারে।

মেটার এই পদক্ষেপের কারণে দৈবচয়নের ভিত্তিতে কানাডায় কিছু কানাডিয়ান ব্যবহারকারী ইনস্টাগ্রাম বা ফেসবুকে খবর শেয়ার করতে বা দেখতে পারবেন না। কারেন বলেন, এটা হতে পারে খবরের লিঙ্ক, নিবন্ধ অথবা রিল। তবে পরীক্ষার আওতায় থাকা প্রত্যেকের অভিজ্ঞতকা একই রকম হবে না।

কানাডিয়ান প্রেসকে কারেন বলেন, এটা একইরকম অভিজ্ঞতা হবে না। কিছু খবরের লিঙ্ক ফেসবুকে শেয়ার করা যাবে না। তবে ইনস্টাগ্রামের জন্যও একই ঘটনা ঘটবে তেমনটা নয়। একেক সারফেসে একেক ধরনের অভিজ্ঞতা হবে।

কানাডার হেরিটেজ মন্ত্রী পাবলো রড্রিগেজ বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ফেসবুক এখনো কানাডিয়ানদের সঙ্গে কাজ করতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছে, যা কোম্পানির গভীর দায়িত্বহীনতার পরিচায়ক। যখন বড় কোম্পানি প্রযুক্তি কোম্পানি আমাদের এই কথা বলে যে, তুমি যদি এটা না করো তাহলে আমরা থাকবো না. তখন সেটা হুমকি এবং কোনোমতেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে। তা সে কোম্পানির আকার যা-ই হোক বা তাদের যতই অর্থ ও শক্তিশালী আইনজীবী থাকুক না কেন। আমি কখনোই কোনো কিছু করিনি। কারণ হুমকির ব্যাপারে আমার ভয় ছিল এবং আমি কখনোই তা করবো না।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles