-2.3 C
Toronto
সোমবার, জানুয়ারী ৩০, ২০২৩

সবচেয়ে লম্বা ভ্রমণ করতে হয় টরন্টোবাসীকে

সবচেয়ে লম্বা ভ্রমণ করতে হয় টরন্টোবাসীকে
ফাইল ছবি

টরন্টোবাসীকে উপমহাদেশের মধ্যে সবচেয়ে লম্বা ভ্রমণই যে কেবল করতে হয় তা নয়। প্রতিদিন তাদেরকে সবচেয়ে দূরেও যেতে হয়। নতুন একটি পাবলিক ট্রানজিট প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আরবান মোবিলিটি অ্যাপ মুভিট তাদের ২০২২ সালের গ্লোবাল পাবলিক ট্রান্সপোর্ট রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে ২৪টি দেশের প্রায় ১০০টি শহরের কোটিখানেক ট্রিপ রিকোয়েস্ট খতিয়ে দেখা হয়েছে। এর মাধ্যমে কোন শহরের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা সবচেয়ে ভালো এবং কোনো শহরের খারাপ তা উঠে এসেছে। ভ্রমণের সময়, অপেক্ষমাণ সময় এবং স্থানান্তরের সংখ্যাও উঠে এসেছে প্রতিবেদনে।

- Advertisement -

কানাডার ক্ষেত্রে টরন্টো, মন্ট্রিয়ল ও ভ্যানকুভারের তথ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, উত্তর আমেরিকার শহরগুলোর মধ্যে টরন্টোর বাসিন্দাদের সবচেয়ে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হয় এবং প্রতি ট্রিপে তা গড়ে ১২ দশমিক ২৯ কিলোমিটার। এছাড়া টরন্টোবাসীরা সাধারণ গড়ের চেয়ে টরন্টোবাসীরা কমপক্ষে ৫৬ মিনিট বেশি ভ্রমণ করে থাকে, যা এই উপমাহাদেশে তৃতীয় সর্বোচ্চ। শিকাগো ও ওয়াশিংটন ডি.সিতে এটা ৫৭ মিনিট এবং নিউ ইয়র্ক সিটিতে ৫৮ মিনিট।

ভ্রমণ সশয় দীর্ঘ হওয়ার অর্থ হলো কানাডিয়ানদের আমেরিকানদের তুলনায় কম অপেক্ষমাণ সময়ের মুখে পড়তে হয়। টরন্টোতে অপেক্ষমাণ সশয় গড়ে ১২ মিনিট, যা মায়ামির চেয়ে ৯ মিনিট কম। যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি অপেক্ষায় থাকতে হয় মায়ামির যাত্রীদের।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাশ্রয়ী ভাড়া কানাডিয়ানদের বেশি হারে গণপরিবহন ব্যবহারে উৎসাহিত করে থাকে। কানাডিয়ান যাত্রীদের ২৫ শতাংশ বলেছেন, কোভিড-১৯ মহামারির কারণে কানাডিয়ানদের গণপরিবহন ব্যবহার কমিয়ে দিয়েছিল।

গত সপ্তাহে হাই পার্ক স্টেশনে ছুরিকাঘাতের ঘটনার পর সম্প্রতি টিটিসির নিরাপত্তা জোরদারের দাবি উঠেছে। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে টিটিসিতে সহিংস ঘটনার এটা সর্বশেষ উদাহরণ। টরন্টোর মেয়র জন টরি ৯ ডিসেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে টিটিসিকে খুবই নিরাপদ ট্রানজিট ব্যবস্থা থাকবে বলে ব্যবহারকারীদের আশ^স্ত করেন।

তিনি বলেন, এটা ভয়ঙ্কর ব্যাপার এবং দুঃখজনক। ব্যবস্থাটিতে বিভিন্ন ধরনের লোকের বিশেষ করে পুলিশ কনস্টেবল, আউটরিচ ওয়ার্কার ও পুলিশ অফিসারদের অন্তর্ভুক্তির উদ্যোগ গ্রহণ করেছি এবং এখনো নেওয়া হচ্ছে। আগামীতেও তা অব্যাহত থাকবে।
এর মধ্যে আর কি করা যায় সেজন্য আলোচনার উদ্দেশে শিগগিরই টরন্টো পুলিশের প্রধান ও টিটিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে বসবেন বলে জানিয়েছেন টরন্টোর মেয়র।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles