23.3 C
Toronto
বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪

কানাডিয়ান বই এবং আমাদের লেখক

কানাডিয়ান বই এবং আমাদের লেখক

জানিনা এই লেখা আসলে বাংলাদেশী কোনো প্রকাশকের চোখে পড়বে কি না, তারপরেও লিখছি। আমি যখন প্রথম প্রথম কানাডাতে আসি তখন অল্প কিছু বাংলাদেশী কানাডিয়ান বই লিখতেন এবং ছাপাতেন, কিন্তু সম্প্রতি সেই সংখ্যা আলহমদুলিল্লাহ অনেক বেড়ে গেছে। খুবই ভালো লক্ষন, অন্তন্ত কিছু লোক তাদের এই প্রবাসে হাজারো ব্যস্ততার মাঝে লেখালেখি করছেন এবং আমাদেরকে তাদের creative কাজ উপহার দিচ্ছেন। এই সব লেখকদের আমি খুব Appreciate করি। আমরা অনেকেই যেখানে বাক-বিতন্ডা, কাঁদা ছুড়া-ছুড়ি বা অগঠনমূলক তর্কাতর্কি/সমালোচনা নিয়ে ব্যস্ত তখন উনারা Creative কিছু করছেন।

- Advertisement -

কিন্তু খুব দুঃখের বিষয় হলো ইদানিং অনেক বইয়ে অনেক অনেক ভুল দেখা যায়, যেগুলির প্রায় সবই Proof Reading ঠিকমতো না হওয়ার মতো কারণ বলে আমি মনে করি।

আমাদের এখানকার লেখকরা কম্পিউটারে বাংলা ফন্ট ব্যবহার করে লেখেন, সে জন্য কিছু Typo জাতীয় বানান বা শব্দের ভুল হতে পারে। যেমন ধরুন আমি যখন লিখতে চাই “ফিরে” তখন কম্পিউটার ফন্টের প্রথম শব্দ থাকে “ফায়ার” তাই ভালো করে না খেয়াল করলে ফিরের জায়গায় ফায়ার হয়ে যাবে এবং বাকের অর্থ ঠিক থাকবে না। তেমনি আবার এখান থেকে পাণ্ডুলিপির ফাইল ইমেইলে পাঠালে হয়তো কিছু উলটপালট হতে পারে, কিন্তু প্রকাশকের বা তাদের সম্পাদকের কি এগুলি দেখার দায়িত্ব না !!! নাকি উনারা একেবারে “মাগনা” কাজ করে দেন।
আরে ভাই মাগনা করলেও করার মতো করেন তা না হলে করবেন না, কিন্তু এইভাবে ভুলভাল রেখে বইগুলি পাঠকের হাতে দেওয়া কি ঠিক ? নাকি আমাদের প্রবাসী লেখকের কোনো দাম নেই!
সব প্রকাশনার বই যে এরকম তা বলবো না, তবে সাম্প্রতিককালে প্রকাশিত বেশ কয়েকটা বইয়ে আমি এরকম অনেক ভুল দেখেছি।

আমি বাংলা অথবা ইংরেজি কোনো ভাষাতেই লেখার জন্য খুব দক্ষ নোই কিন্তু, আমি একজন Avid পাঠক, তারপরেও ওই ভুল গুলির কারণে বই পড়তে গিয়ে অনেক সময় “খেই” হারিয়ে ফেলি।

আমাদের এখানকার লেখকেরা এই প্রবাসের হাজারো ব্যস্ততার মাঝে কিছু creative কাজ করার চেষ্টা করছেন অথচ ওই সমস্ত প্রকাশক সেটির ভালো মূল্যায়ণ করছেন না।
শুধু যে বানানের ভুল তা নয়, যেখানে যুক্তাক্ষর দরকার সেখানে দুই শব্দ আলাদা করে ফেলেছে, আবার যে শব্দ দুটি আলাদা থাকার কথা সেটি এক সঙ্গে করে দিয়েছেন।

আবার অনেক সময় তাদের ভুল প্রুফের কারণে পুরা শব্দটাই পরিবর্তিত হয়ে যায়।
যেমন লেখক লিখেছেন, “সিস্টেমিক” উনারা বসিয়েছেন “সিস্টেম্যাটিক”. এই দুটি শব্দের অর্থ আলাদা।

এখন এটা যে উনাদেরই অবহেলা সেটা কিভাবে বুঝলাম। আমি যে সমস্ত লেখকের কথা বলছি, আমি তাদের লেখা মাঝে মধ্যে বাংলা মেইল পত্রিকা, বিভিন্ন FB গ্রূপ বা কোনো ব্লগে পড়ে থাকি, সেখানে ওই জাতীয় ভুল খুব কম দেখি। অথচ তাদের সেই লেখাই যখন বইয়ের মধ্যে দেখি তখন ভুল।

আর লেখক ভাই-বোনেরা যদি প্রকাশক এ কথা অস্বীকার করে তাহলে আমার কন্টাক্ট ইনফরমেশন দিবেন আমি তাদেরকে দেখিয়ে দিবো তারা কি ধরণের Silly Mistake করে।
আরে ভাই এটাতো FB বা ব্লগ না যে লেখাটি ডিলিট করা যাবে, এগুলি প্রকাশিত বই, বছরের পর বছর মানুষের হাতে, ঘরে, লাইব্রেরিতে থাকবে, আরে সেখানে যদি ভুলে ভরা কিছু থাকে তাহলে কেমন হবে !

আর লেখক ভাইবোনদের বলবো, একটু সময় নিয়ে ডাবল চেক করে তারপর গ্রিন সিগন্যাল দিবেন, প্রয়োজন হয় ছাপাতে একটু দেরি হোক কিন্তু অন্যের কারণে আপনার জিনিসের আজীবনের জন্য ভুল থেকে বিরত থাকা মনে হয় ভালো।

যাহোক, আমি কিন্তু Generalize করি নাই, জাস্ট আমার চোখে পড়া কিছু বই নিয়ে বললাম।
আপনারা চাইলে আমার নাম উল্লেখ করে আপনাদের প্রকাশকের কাছে আমার এই লেখা দিতে পারেন, আমার কোনো অসুবিধা নেই।

আল্লাহ সবার মঙ্গল করুন, আর আপনারা আরো বেশি বেশি লিখুন যাতে করে আমরা আরো বেশি বেশি পড়তে পারি এবং জানতে পারি।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles