22.1 C
Toronto
বুধবার, জুন ১২, ২০২৪

গ্রিনবেল্ট কেলেঙ্কারির তদন্তে আরসিএমপি

গ্রিনবেল্ট কেলেঙ্কারির তদন্তে আরসিএমপি
উন্নয়নের জন্য গ্রিনবেল্টের অংশবিশেষ উন্মুক্ত করে দেওয়ার ব্যাপারে সরকারের সিদ্ধান্ত তদন্ত করে দেখছে রয়্যাল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশ আরসিএমপি

উন্নয়নের জন্য গ্রিনবেল্টের অংশবিশেষ উন্মুক্ত করে দেওয়ার ব্যাপারে সরকারের সিদ্ধান্ত তদন্ত করে দেখছে রয়্যাল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশ (আরসিএমপি)। আরসিএমপির একজন মুখপাত্র ১০ অক্টোবর এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আরসিএমপি এক বিবৃতিতে বলেছে, এই সিদ্ধান্ত সংশ্লিষ্ট যে অভিযোগ তার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। আরসিএমপি অন্টারিও ডিভিশনের সেন্সিটিভ অ্যান্ড ইন্টপারন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন্স ইউনিট এই তদন্ত পরিচালনা করবে।
আরসিএমপির ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, ইউনিটটি কানাডার রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক সততার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হুমকি হতে পারে উচ্চ ঝুঁকির এমন বিষয়গুলো তদন্ত করে থাকে। শুধু কানাডার অভ্যন্তরে নয়, আন্তর্জাতিকভাবে এমন ঘটনাও তদন্ত করে থাকে এই ইউনিট। নির্বাচিত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে জালিয়াতি, আর্থিক অপরাধ, দুর্নীতি ও বিশ^াসভঙ্গের তদন্ত করে থাকে।

- Advertisement -

স্বার্থের দ্বন্দ্ব এড়াতে অন্টারিও প্রভিন্সিয়াল পুলিশ বিষয়টি আরসিএমপির কাছে পাঠায়। মধ্য ডিসেম্বর থেকে প্রাদেশিক পুলিশের অ্যান্টি-র‌্যাকেট শাখা অভিযোগ পর্যালোচনা করে দেখছে।

সংরক্ষিত গ্রিনবেল্টের ১৫টি এলাকা উন্নয়নের সিদ্ধান্ত ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়। প্রক্রিয়াটিতে ডেরেভলপাররা বাড়তি সুবিধা পেরেয়ছেন বলে প্রদেশের অডিটর জেনারেল এবং ইন্টিগ্রিটি কমিশনার উভয়েই জানিয়েছেন। ব্যাপক সমালোচনার মুখে অন্টারিওর প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড মধ্য সেপ্টেম্বরে এই সিদ্ধান্ত বাতিল করার ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, গ্রিনবেল্ট উন্মুক্ত করার সিদ্ধান্ত ছিল ভুল। এত দ্রুততার সঙ্গে প্রক্রিয়া শুরু করাটাও সঠিক ছিল না।

অন্টারিও সরকার ২০২২ সালের নভেম্বরে আবাসনের জন্য সংরক্ষিত গ্রিনবেল্টের ৭ হাজার ৪০০ একর জমি উন্মুক্ত করার ঘোষণা দেয়। যদিও প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড এর আগে গ্রিনবেল্ট স্পর্শ না করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। স্বাভাবিকভাবেই গ্রিনবেল্ট উন্মুক্ত করার এই সিদ্ধান্তে আহত হন অনেকেই।

তবে আরসিএমপির সিদ্ধান্ত গ্রিনবেল্টের ওপর ভবিষ্যতে কী প্রভাব ফেলবে তা এখনো স্পষ্ট নয়। প্রিমিয়ারের কার্যালয় থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তদন্তে তারা পূর্ণ সহযোগিতা করবে। যেকোনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমাদের নীতি হচ্ছে জিরো টলারেন্স। গ্রিনবেল্টের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে কারো বিরুদ্ধে প্রভাবিত করার প্রমাণ পাওয়া গেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পুলিশ ও প্রক্রিয়াটির ওপর সম্মান রেখে এই মুহূর্তে এ নিয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে চাই না।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles