18.2 C
Toronto
মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪

বিশ্বকাপের আগে স্ত্রী নির্যাতনের মামলায় জামিন পেলেন শামি

বিশ্বকাপের আগে স্ত্রী নির্যাতনের মামলায় জামিন পেলেন শামি
ছবি সংগৃহীত

আগামী ৫ অক্টোবর ভারতে শুরু হবে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। আইসিসির এই গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টের আগে স্ত্রী হাসিন জাহানের করা নির্যাতনের মামলা থেকে জামিন পেলেন ভারতীয় তারকা পেস বোলার মোহাম্মদ শামি।

মঙ্গলবার দাদা হাসিব আহমেদকে সঙ্গে নিয়ে কলকাতার আলিপুর আদালতে বিচারপতির এজলাসে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন শামি। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তা মঞ্জুর করেন।

- Advertisement -

শামির আইনজীবী সেলিম রহমান বলেন, ‘শামি ও তার দাদা হাসিব আদালতে হাজিরা দিয়েছিলেন। ওরা জামিনের আবেদন করেন। আদালত সেই আবেদন মঞ্জুর করেছে।’

শামির বিরুদ্ধে চার বছর আগে নির্যাতনের মামলা করেন স্ত্রী হাসিন জাহান। সেই মামলায় মঙ্গলবার তার জামিনের আবেদনের শুনানি ছিল। আলিপুর কোর্টে ভারতীয় তারকা ক্রিকেটারকে এক নজর দেখার জন্য উপচেপড়া ভিড় ছিল।

আলিপুর আদালতের বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট শামির জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেন। মামলাটি দীর্ঘদিন ঝুলে রয়েছে শামি জাতীয় দলের হয়ে ক্রিকেট নিয়ে ব্যস্ত থাকায়।

মঙ্গলবার আবেদন জানিয়ে শামি বলেন, যেহেতু তিনি বিশ্বকাপ নিয়ে ব্যস্ত থাকবেন তাই যেন তার জামিনের আবেদন মঞ্জুর করা হয়।

কলকাতায় ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার সময় উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা মোহাম্মদ শামির সঙ্গে পরিচয় হয় বিউটিশিয়ান হাসিন জাহানের। তাদের একটি কন্যাসন্তানও হয়।

এরপরই হাসিন জাহান শামির বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ এনে ডিভোর্স চান। তিনি অভিযোগ করেন যে, উত্তরপ্রদেশে শ্বশুরবাড়ি গেলে শামি ও তার দাদা হাসিব আহমেদ তার ওপর মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার চালান। এমনকি শামির বিরুদ্ধে বহু তরুণীর সঙ্গে মেলামেশা, বিদেশে খেলতে গেলে তার হোটেলে বাইরের মেয়েদের আসা নিয়েও তিনি অভিযোগ জানান।

শামি স্ত্রীর চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। হাসিন জাহানের অভিযোগে মোহাম্মদ শামি ও তার দাদার বিরুদ্ধে জামিনযোগ্য ওয়ারেন্ট ইস্যু করে কলকাতা পুলিশ। সেই মামলাতেই শামি আজ আদালতে সশরীরে উপস্থিত হয়ে জামিনের আবেদন করেন এবং তা মঞ্জুরও হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৮ মার্চ স্বামীর বিরুদ্ধে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক, স্ত্রী নির্যাতনসহ একাধিক অভিযোগ করেছিলেন হাসিন জাহান। এমনকি সামির ভাইয়ের বিরুদ্ধেও ধর্ষণের অভিযোগ এনেছিলেন তিনি। ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৮-এ ধারায় সামি ও তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন হাসিন।

২০১৯ সালের ২৯ অগস্ট শামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আলিপুরের এসিজেএম কোর্ট। ওই বছর ৯ সেপ্টেম্বর আলিপুর জেলা দায়রা আদালত ওই নির্দেশে স্থগিতাদেশ দেয়। এই অবস্থায় চার বছর ধরে মামলাটি বিচারাধীন ছিল।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles