ক্রিকেটে জুয়াড়িরা কীভাবে কাজ করে, জানাল আইসিসি

- Advertisement -

ক্রিকেট যত আধুনিক হচ্ছে, তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ক্রিকেট জুয়ার সংজ্ঞা। আর আধুনিক জুয়াকে ঠেকাতে ক্রমশ চিন্তা বাড়ছে আইসিসির।

- Advertisement -

বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিয়ে যতটা না চিন্তিত, তার থেকে ঢের বেশি চিন্তিত সারাবিশ্বের বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগগুলো নিয়ে। কারণ, সেখানে নজরদারির পরিমাণ কম।

আইসিসির দুর্নীতি দমন শাখার প্রধান অ্যালেক্স মার্শাল বলেন, ‘‘এখন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আর ম্যাচের ফল নিয়ে জুয়া হয় না। টস, বা নো বল নিয়েও জুয়া হয় না। এখন জুয়া হয় দু’ ওভার, খুব বেশি হলে চার ওভার নিয়ে। ম্যাচের ছোট ছোট অংশ নিয়ে জুয়া হয়।’’

- Advertisement -

তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিয়ে খুব একটা চিন্তিত নন। তার চিন্তা আইপিএলের মতো ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগগুলো নিয়ে। মার্শাল বলেন, ‘‘আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিয়ে আমাদের আর খুব একটা চিন্তা নেই। ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়ার মতো দেশে আমাদের দুর্নীতি দমন শাখা খুব ভালো কাজ করছে। আসল সমস্যা ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট নিয়ে। গত দুই বছরে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট নিয়ে আমাদের যা অভিজ্ঞতা, তাতে দেখেছি জুয়াড়িরা দলের মধ্যে ঢুকে পড়ে পেছন থেকে কাজ করে। কিছু হলে মালিকের নাম সামনে চলে আসে।’’

- Advertisement -

মার্শালের বড় চিন্তা ইউরোপ নিয়ে। তার মতে, ‘‘এখন আন্তর্জাতিক জুয়াড়িরা ইউরোপের লিগে টাকা ঢালছে। মূলত যারা শরণার্থী, রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী, তাদের ধরার চেষ্টা করছে জুয়াড়িরা। তাদের ৩ হাজার ইউরো করে ধরিয়ে দিয়ে বলা হচ্ছে খারাপ খেলতে।’’

টোপ দেওয়ার ক্ষেত্রে জুয়াড়িদের কাকে পছন্দ, এই নিয়ে মার্শাল বলেন, ‘‘এমনিতে জুয়াড়িরা অধিনায়ককে টোপ দেওয়ার চেষ্টা করে। এরপর তাদের নজরে থাকে ওপেনিং ব্যাটসম্যান, ওপেনিং বোলাররা। এর সহজ কারণ, তারাই খেলাকে নিয়ন্ত্রণ করেন। কিন্তু জুয়াড়িরা বুঝে হেছে, এ ধরনের ক্রিকেটাররা কিছু হলেই আইসিসিকে জানাবে। তাই এখন জুয়া হয় টিম ম্যানেজার বা প্রাক্তন ক্রিকেটারের মাধ্যমে। গত শ্রীলঙ্কা প্রিমিয়ার লিগে আমরা দেখেছি, একজন প্রাক্তন ক্রিকেটার জড়িয়ে পড়েছিলেন। গোটা ব্যাপারটাই হয়েছিল তার মাধ্যমে।’’

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা, হিন্দুস্তান টাইমস

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles