13.7 C
Toronto
মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০২৪

ছাত্রীকে অশ্লীল ভিডিও পাঠাতেন শিক্ষক! স্ক্রিনশট ফাঁস

ছাত্রীকে অশ্লীল ভিডিও পাঠাতেন শিক্ষক! স্ক্রিনশট ফাঁস
প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়ে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন ছবি সংগৃহীত

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা বিভাগের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে এক নারী শিক্ষার্থীকে হেনস্থা ও অশোভন আচরণের অভিযোগ উঠেছে। ওই শিক্ষার্থী হেনস্তার প্রমাণ হিসেবে কয়েকটি মেসেঞ্জারে কথোপকথনের স্ক্রিনশট ফাঁস করেছেন।

এ ঘটনার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। স্ত্রিনশটে দেখা গেছে, ওই শিক্ষক তার ছাত্রীকে মধ্যরাতে চা পানের নিমন্ত্রণ, অঙ্ক বোঝাতে চেয়ে ব্যক্তিগত চেম্বারে ডাকাসহ হোয়াটসঅ্যাপে অশ্লীল ভিডিও পাঠিয়েছেন।

- Advertisement -

ফেসবুকে ওই শিক্ষার্থী অভিযোগ করেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর থেকেই অভিযুক্ত শিক্ষক তাকে মেসেজ দিতেন। ধীরে ধীরে তিনি বিভিন্ন অনৈতিক প্রস্তাব দিতে শুরু করেন। এসব প্রস্তার প্রত্যাখান করায় তাকে একাডেমিকভাবে হেনস্তা করেন ওই শিক্ষক।

সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন মাদকবিরোধী বক্তব্য দেওয়ার নির্দেশসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রতিদিন মাদকবিরোধী বক্তব্য দেওয়ার নির্দেশ

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে এবং অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার দাবি সোমবার (৪ মার্চ) মানবন্ধন করেছেন শিক্ষার্থীরা। তারা ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এ ঘটনা বিচার দাবি করেন। সঙ্গে ওই শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করাসহ ছয় দফা দাবি জানান। পরে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেন তারা।

ঘটনাটিকে বিব্রতকর উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, ‘এটি আমাদের জন্য বিব্রতকর। ভুক্তভোগীর থেকে এখনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। তার সাথে আমার কথা হয়েছে। ওই ছাত্রী দেখা করে অভিযোগ দিবেন বলে জানিয়েছেন। এরপর আমরা তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থাগ্রহণ করবো।’

৪ ঘণ্টায়ও নিয়ন্ত্রণে আসেনি আগুন, নেভাতে যোগ দিল নৌ-বাহিনীও৪ ঘণ্টায়ও নিয়ন্ত্রণে আসেনি আগুন, নেভাতে যোগ দিল নৌ-বাহিনীও
এর আগে এ ঘটনায় বিভাগীয় প্রধান রেজুয়ান আহমেদ শুভ্রকে অভিযোগ করা হলে তিনি ব্যবস্থা নেননি বলে দাবি অভিযোগকারী শিক্ষার্থীর। তবে অভিযোগের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন বিভাগীয় প্রধান। তিনি বলেন, ‘অসুস্থ হওয়ায় আমি বিভাগে কয়েকদিন আসতে পারিনি। অপরাধ করলে দোষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

অভিযোগকারী শিক্ষার্থী দেশ রুপান্তরকে বলেন, ‘আমি উপাচার্য, প্রক্টর এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর ইমেইলে অভিযোগ পাঠিয়েছি। এ ঘটনায় প্রশাসন যদি সুষ্ঠু ব্যবস্থা না নেয়, আমি আইনগত পদক্ষেপ নেবো। আমি চাই না ভবিষ্যতে বিশ্ববিদ্যালয়ে আরো কোনো নারী শিক্ষার্থী এরকম হেনস্তার শিকার হোক।’

তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষকের বক্তব্য নিতে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles