26.4 C
Toronto
মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪

অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনা টিকার নতুন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর দিলেন গবেষকরা

অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনা টিকার নতুন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর দিলেন গবেষকরা

অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনে আরেকটি বড় পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা।

- Advertisement -

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) গবেষকরা জানিয়েছেন, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে তৈরি করা অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই ভ্যাকসিনটির কারণে ‘ভ্যাকসিন-ইনডিউসড ইমিউন থ্রোমবোকায়টোপেনিয়া অ্যান্ড থ্রোমবোসিসের’ (ভিআইটিটি) ঝুঁকি বেড়ে যায়।

‘ভিআইটিটি’ রক্ত জমাট বাধার একটি অতি বিরল তবে খুবই মারাত্মক রোগ। এই রোগটি পৃথিবীতে নতুন না হলেও অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন প্রয়োগের পর নতুন করে এটির উদ্ভব হয়েছে। ২০২১ সালে করোনার সর্বোচ্চ প্রাদুর্ভাবের সময় অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই ভ্যাকসিনটি এশিয়ার দেশগুলোতে কোভিশিল্ড এবং ইউরোপে ভ্যাক্সজেভরিয়া নামে বিক্রি হয়েছে।

গবেষকরা বলেছেন, একটি অস্বাভাবিক বিপজ্জনক রক্ত অটোঅ্যান্টিবডি প্লাটিলেট ফেক্টর ৪ নামের একটি প্রোটিনের বিরুদ্ধে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছিল। যেটি ভিআইটিটির কারণ হিসেবে পাওয়া গেছে।

সম্প্রতি ব্রিটেনের আদালতে ১০ কোটি পাউন্ড ক্ষতিপূরণের মামলা হয়েছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিরুদ্ধে। মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিড টিকা গ্রহণের কারণে গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় ভুগে বিশ্বজুড়ে অনেক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এই মামলার কার্যক্রম চলার মধ্যে বাজার থেকে নিজেদের করোনা টিকা প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঘোষণা দেয় অ্যাস্ট্রাজেনেকা।

গত ফেব্রুয়ারিতে এক নথিতে অ্যাস্ট্রাজেনেকার কর্তৃপক্ষ স্বীকার করেছিল যে, টিকা গ্রহণের পর টিটিএস বা থ্রম্বসিস উইথ থ্রম্বোসিটোপেনিয়া সিনড্রোম নামের এক প্রকার শারীরিক জটিলতা দেখা দিতে পারে, তবে তা খুবই বিরল।

টিটিএস হলো এমন একটি শারীরিক জটিলতা, যার কারণে শরীরের বিভিন্ন অংশে রক্ত জমাট বেঁধে যায় এবং প্ল্যাটিলেট কমে যায়। যুক্তরাজ্যে এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার শিকার হয়ে ২০২০ সালের টিকাদান কর্মসূচির শুরু থেকে এ পর্যন্ত অন্তত ৮১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বাজার থেকে করোনা টিকা প্রত্যাহার করে নেয়ার ব্যাপারে অ্যাস্ট্রাজেনেকা এক বিবৃতিতে বলেছিল, ‘নিরপেক্ষ পরিসংখ্যান বলছে, ২০২০ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ছাড়পত্র পাওয়ার পর এক বছরে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩০০ কোটি করোনা টিকার ডোজ ব্যবহার করা হয়েছে পৃথিবীজুড়ে। এসব টিকার ডোজ প্রাণ বাঁচিয়েছে বিশ্বের ৬৫ লাখেরও বেশি মানুষের। বিভিন্ন দেশের সরকার আমাদের প্রচেষ্টার প্রশংসা করেছে এবং করোনা মহামারি দূর করতে যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে— তা বৈশ্বিকভাবে স্বীকৃত।

‘কিন্তু বর্তমানে মূল করোনা ভাইরাসটি প্রায় নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ায় এবং এটি থেকে উদ্ভূত অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টগুলোও দুর্বল হয়ে যাওয়ায় এসব টিকা এখন অতিরিক্ত। তাই সব টিকা বাজার থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানি। ইতোমধ্যে অংশীদারদের এ ব্যাপারে অবহিত করা হয়েছে।’

সূত্র: এনডিটিভি

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles