7.1 C
Toronto
শুক্রবার, মার্চ ১, ২০২৪

কঙ্কাল থেকে লোমহর্ষক হত্যার রহস্য ‍উদঘাটন

কঙ্কাল থেকে লোমহর্ষক হত্যার রহস্য ‍উদঘাটন
ছবি সংগৃহীত

অজ্ঞাত ব্যক্তির কঙ্কাল উদ্ধারের ঘটনার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। একই সঙ্গে ওই ঘটনায় আখি আক্তার (২৪) ও আলাল মোল্লা (৩৫) নামে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে সংস্থাটি। আজ বুধবার (২৯ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর ধানমণ্ডি এলাকায় পিবিআই সদর দপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা জেলা পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মো. কুদরত ই খুদা এসব তথ্য জানান।

জানা গেছে, গত ২১ মে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের সিংহ নদীর খনন কাজের সময় অজ্ঞাত ব্যক্তির কঙ্কাল পাওয়া যায়। ওই সময় পুলিশ গিয়ে কঙ্কালটি উদ্ধার করে। কঙ্কালে জড়ানো কাপড় দেখে স্বজনরা তার পরিচয় নিশ্চিত করেন। তারা জানান, কঙ্কলটি রুমান শিকদারের (৩৯)। এ ঘটনায় কেরানীগঞ্জ দক্ষিণ থানায় মামলা দায়ের করেন এসআই মাইদুল ইসলাম।

- Advertisement -

তিনি জানান, গ্রেপ্তার আখির স্বামী ওমর ফারুক বিদেশে থাকেন। প্রতিবেশী হওয়ার সুবাধে আসা-যাওয়ার একপর্যায়ে রুমান শিকদারের সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন আখি। বিষয়টি জানতে পেরে প্রবাস থেকে চলে আসেন ফারুক। পরকীয়ার জেরে আখির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। পরে দুই পরিবারের মধ্যস্থতায় বিষয়টি মীমাংসা হয়। আবারও সংসারে ফেরেন তারা। কিছুদিন যেতে আবারও রুমানের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়ান আখি। চলতি বছরের মাঝামাঝি সময় তারা পালিয়ে যান। সপ্তাহখানেক এক সঙ্গে থাকার পর তাদের খোঁজ পান ফারুক। এনিয়ে সালিশি বৈঠক হয় দুই পরিবারের মধ্যে। এরপর আখিকে বিয়ে করতে রুমানকে চাপ দেওয়া হলে তিনি অস্বীকার করেন।

পিবিআইয়ের এই কর্মকর্তা আরও জানান, বিষয়টি মীমাংসা হলে আবারও ফারুকের কাছে ক্ষমা চান আখি। পরে তিনি রুমানকে অনুরোধ করেন এক সঙ্গে থাকার বিষয়টি কাউকে না জানাতে। কিন্তু রুমান এলাকার লোকজনের কাছে এক সঙ্গে থাকার বিষয়টি বলে দেন। এতে রুমানকে হত্যার পরিকল্পনা করেন আখি ও ফারুক। ২২ মার্চ রুমানকে ফোন করে বাসায় ডাকেন আখি। কথাবার্তার একপর্যায়ে লোহার রড দিয়ে রুমানের মাথায় আঘাত করেন ফারুক ও আখি। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। পরে প্রতিবেশী আলালের সহযোগিতায় লাশটি বস্তায় ভরে সিংহ নদীতে ফেলে দেন তারা। ঘটনার পর থেকে ফারুক পলাতক থাকলেও আখি ও আলালকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles