7.1 C
Toronto
শুক্রবার, মার্চ ১, ২০২৪

গ্রিনবেল্ট কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার ফোর্ডের

গ্রিনবেল্ট কেলেঙ্কারিতে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার ফোর্ডের
গত আগস্টে ফোর্ড বিতর্কিত গ্রিসবেল্ট উন্নয়ন পরিকল্পনা থেকে সরে আসেন এরপর আরসিএমপি এই ঘোষণা দেয় যে উন্নয়নের জন্য গ্রিনবেল্টের অংশবিশেষ উন্মুক্ত করার ব্যাপারে সরকারের সিদ্ধান্ত তারা তদন্ত করছে তবে ফোর্ডের সঙ্গে আরসিএমপি যোগাযোগ করেনি বলে তিনি দাবি করেছেন

গ্রিনবেল্ট কেলেঙ্কারিতে তার করার কিছু ছিল না বলে দাবি করেছেন অন্টারিওর প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড। তিনি বলেন, রয়্যাল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশ (আরসিএমপি) তার সঙ্গে কোনো যোগাযোগও করেনি। আরসিএমপি বর্তমানে বিষয়টি তদন্ত করছে।

৩১ অক্টোবর এক সংবাদ সম্মেলনে ফোর্ড জোর দিয়ে বলেন, প্রথম কথা হলো গ্রিনবেল্টের পরিবর্তন নিয়ে তার করার কিছু ছিল না। দ্বিতীয়ত, অডিটর জেনারেল আমাদেরকে, আমার কার্যালয়কে এই অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন। অব্যাহতি দিয়েছেন ইন্টিগ্রিটি কমিশনারও।
এনভায়রনমেন্টাল ডিফেন্স গ্রিনবেল্ট উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং শহুরে সীমানা সম্প্রসারণ সংক্রান্ত নথি তথ্য অধিকার আইনে হাতে পাওয়ার পর তা প্রকাশ করে। এরপরই ফোর্ড এই মন্তব্য করলেন। অ্যাডভোকেসি গ্রুপটির দাবি, অন্টারিওর রাজনৈতিক কর্মীরা এমনভাবে পরিবর্তনের নির্দেশ দেন যাতে করে নির্দিষ্ট কিছু ডেভেলপার সুবিধাভোগী হয়।

- Advertisement -

গত আগস্টে ভ্যালু ফঢর মানি তদন্তের পর অন্টারিওর অডিটর জেনারেল বনি লিসিকও একই ধরনের সিদ্ধান্তে পৌঁছান। ৫০ হাজার বাড়ি নির্মাণের জন্য গ্রিনবেল্টের ১৫টি স্থান থেকে জমি অবমুক্তকরণে সরকারের পরিকল্পনা তদন্ত করে দেখেন অডিটর জেনারেল।

লিসিক তদন্তে এই প্রমাণ পান যে, উন্নয়নের জন্য যে ১৫টি স্থান বেছে নেওয়া হয় তার মালিকরা তাদের সম্পদের দাম বাড়ত ৮৩০ কোটি ডলারের বেশি।

গত আগস্টে ফোর্ড বিতর্কিত গ্রিসবেল্ট উন্নয়ন পরিকল্পনা থেকে সরে আসেন। এরপর আরসিএমপি এই ঘোষণা দেয় যে, উন্নয়নের জন্য গ্রিনবেল্টের অংশবিশেষ উন্মুক্ত করার ব্যাপারে সরকারের সিদ্ধান্ত তারা তদন্ত করছে। তবে ফোর্ডের সঙ্গে আরসিএমপি যোগাযোগ করেনি বলে তিনি দাবি করেছেন।

তাকে সাক্ষাৎকারের জন্য ডাকা হয়েছে কিনা জানতে চাওয়া হলে ফোর্ড বলেন, না। তারা আমার কাছে আসেনি।

আরসিএমপির অন্টারিওভিত্তিক সেনসিটিভ অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন ইউনিট এই তদন্তের দায়িত্ব নিয়েছে। ইউনিটটি উচ্চ ঝুঁকির যেসব ঘটনা কানাডার ও আন্তর্জাতিক রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক অখ-তার জন্য হুমিক সেগুলো তদন্ত করে থাকে। আরসিএমপির ওয়েবসাইটে এমনটাই বলা হয়েছে।

অন্টারিও প্রভিন্সিয়াল পুলিশ গ্রিনবেল্ট সংক্রান্ত ফাইল গত আগস্টে আরসিএমপিতে পাঠায়। কোনো ধরনের স্বার্থের সংঘাত যাতে না হয় সেজন্যই এই সিদ্ধান্ত নেয় তারা।

 

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles