16.1 C
Toronto
বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০২৪

বাড়ি কিনেও গাড়িতে রাত্রিযাপন অন্টারিওর এক পরিবারের

বাড়ি কিনেও গাড়িতে রাত্রিযাপন অন্টারিওর এক পরিবারের
অজয় সুদ এবং তার পরিবার গত জুনে ওকভিলে তাদের স্বপ্নের বাড়িটি কেনেন কিন্তু আগাম অর্থ পরিশোধের পরও কাজ শেষ করতে অস্বীকৃতি জানানোর পর ঠিকাদার তাদের বাড়িটি ধ্বংস করে দেয়

অজয় সুদ এবং তার পরিবার গত জুনে ওকভিলে তাদের স্বপ্নের বাড়িটি কেনেন। কিন্তু আগাম অর্থ পরিশোধের পরও কাজ শেষ করতে অস্বীকৃতি জানানোর পর ঠিকাদার তাদের বাড়িটি ধ্বংস করে দেয়।

সিটিভি নিউজ টরন্টোকে সুদ বলেন, আমি দুঃস্বপ্নের মধ্যে বসবাস করছি। মনে হচ্ছে এর কোনো সমাপ্তি নেই। বাড়িটি কেনার পর তারা কিচেন ও বাথরুমগুলো আধুনিক করতে চেয়েছিলেন। ২৭ হাজার ডলারের বিনিময়ে একটি কোম্পানিও তারা খুঁজে পান। কাজ শুরু করার পর ঠিকাদার আরও বেশি অর্থ দাবি করতে থাকেন এবং বাজেটের বাইরে বিল যোগ করেন। আমার অজান্তেই এটা হয়েছে এবং আমি এসে দেখি আমার কিচেনটি আর নেই। তখন আমি জানতে চাই, আমার কিচেন কোথায়? আপনি কী করছেন?

- Advertisement -

সুদ বলেন, ঠিকাদারকে একটি বাথরুম মেরামত করতে বলা হলেও তারা বাড়ির সবগুলো বাথরুমে হাত দেয়। এর ফলে বাড়িটিতে ব্যবহারযোগ্য একটি বাথরুমও আর অবশিষ্ট নেই। বাড়িটি যখন তিনি ঠিকাদারকে বুঝিয়ে দেন তখন বাড়িতে ওয়াশরুম ছিল। কিন্তু এখন বাড়িতে কোনো ওয়াশরুমই নেই। পাকা ড্রাইভওয়েটিও ঠিকাদার নষ্ট করে ফেলেছেন। আমি যে ঠিকাদারকে নিয়োগ করেছিলাম তিনি কোনো কাজই করেননি। তিনি কিছুই করেননি। তিনি কেবল জিনিসপত্র নষ্ট করেছেন।

কেন তিনি দেওয়াল ও মেঝে ভেঙে ফেলেছেন? সুদ জানতে চাইলে ঠিকাদারের উত্তর, এর কারণ হচ্ছে বাড়িটি সঠিকবব কোড মেনে নির্মিত হয়নি। এ কারণেই সবকিছু পরিবর্তন করতে হবে। পুরো কাজটি শেষ করতে তাকে যৌক্তিক অর্থ প্রদান করতে হবে।

সুদের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ঠিকাদার তাদের ডোর লকের কোড বদলে ফেলেছেন। বাড়িটি তালাবদ্ধ থাকায় এখন তাদের গাড়িতে রাত কাটাতে হচ্ছে।

সুদ বলেন, আমি সামনের আসনে ঘুমাই। আমার স্ত্রী ও সন্তান ঘুমায় পিছনের আসনে। সংস্কার সম্পন্ন করতে কোম্পানি আরও অর্থ দাবি করেছিল। কোম্পানিকে ৫৮ হাজার ডলার দেওয়া হলেও তারা তা ফেরত দেয়নি।
সংস্কারের জন্য সুদ রজত বাঙ্গা ও ইশান বাঙ্গা পরিচালিত বাঙ্গা হাউস ইম্প্রুভমেন্টকে নিয়োগ করেছিলেন। সংস্কার কার্যক্রম সম্পর্কে সিটিভি নিউজ টরন্টো পিকারিংয়ে ওই বাড়িতে গিয়েছিল। কিন্তু তারা দরজা বন্ধ করে দেয় এবং কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে অস্বীকৃতি জানায়।

অজয় সুদের স্ত্রী সুরুচি সুদ বলেন, আমাদের সঙ্গে বিশেষ করে ছোট শিশু নিয়ে যা হয়েছে তা খুবই নির্মম। এটা মেনে নেওয়া যায় না।

অজয় সুদ বলেন, আমি আমার অর্থ ফেরত চাই। আমি আমার জীবন ফেরত চাই।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles