14.4 C
Toronto
শনিবার, জুন ১৫, ২০২৪

কানাডার কাছে শিখ নেতা হত্যার তথ্য চেয়েছে ভারত

কানাডার কাছে শিখ নেতা হত্যার তথ্য চেয়েছে ভারত

শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতার মৃত্যু নিয়ে কানাডা কোনো ‘সুনির্দিষ্ট’ তথ্য জানা থাকলে নয়াদিল্লিকে দিতে বলেছে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলেও জানান তিনি। মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেয়ার আগে নিউ ইয়র্কে এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

- Advertisement -

জুনে হরদীপকে খুনের ঘটনার সঙ্গে ভারত সরকারের এজেন্টদের যুক্ত থাকার বিষয়ে ‘বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগ’ করেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। এরপর থেকেই দুই দেশের সম্পর্কে টানাপোড়েন চলছে। এ নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর বলেন, আমরা কানাডাকে জানিয়েছে এমন বিচারবহির্ভূত হত্যা ভারতের নীতিতে নেই। আমরা তাদের এও বলেছিলাম দেখুন, যদি আপনাদের কাছে নির্দিষ্ট তথ্য বা প্রাসঙ্গিক কিছু থাকে তবে আমাদের জানান। ঘটনাটি আমরা খোলামেলাভাবে খতিয়ে দেখবো।

নিউ ইয়র্কে ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, গত কয়েক বছরে কানাডায় অনেক সংগঠিত অপরাধ দেখা গেছে, যা বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তি ও উগ্রপন্থার সঙ্গে জড়িত।

জয়শঙ্কর বলেন, কানাডায় জঙ্গি নেতারা সংগঠিত অপরাধ করছে, গণতন্ত্রের দোহাই দিয়ে কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না। আপনারা যদি কোনও নির্দিষ্ট তথ্যের বিষয়ে কথা বলেন, আমরা বহু তথ্য দিয়েছি।

কানাডার নাগরিক ও ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন কেটিএফ প্রধান নিজ্জারকে গত ১৮ জুন গুলি করে হত্যা করা হয়। ব্রিটিশ কলাম্বিয়া প্রদেশের পাঞ্জাবি অধ্যুষিত শিখদের ধর্মীয় উপাসনালয়ের পার্কিংয়ে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় তাকে। দীর্ঘদিন ধরে তাকে খুঁজছিল ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী। তার মাথার দাম ১০ লাখ রুপি ঘোষণা করেছিল নয়াদিল্লি। এই হত্যাকাণ্ডে সম্প্রতি ভারতকে কাঠগড়ায় তোলেন কানাডীয় প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। তিনি বলেছিলেন, কানাডার নাগরিক নিজ্জার হত্যাকাণ্ডে ভারত সরকারের গুপ্তচরদের হাত থাকতে পারে। যদিও ট্রুডোর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, এই অভিযোগ অযৌক্তিক ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

এ নিয়ে দুই দেশ পাল্টাপাল্টি কূটনীতিকদের বহিষ্কারের পাশাপাশি নাগরিকদের উদ্দেশে ভ্রমণ সতর্কতা জারি করে। এতে পরিস্থিতি আরও জটিল হয়। সূত্র: বিবিসি

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles