15.9 C
Toronto
শুক্রবার, মে ২৪, ২০২৪

কিছু দ্বিপাক্ষিক বিষয় থাকা সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ কেন তাদের সামরিক সম্পর্ক জোরদার করছে?

কিছু দ্বিপাক্ষিক বিষয় থাকা সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ কেন তাদের সামরিক সম্পর্ক জোরদার করছে?

জাতিসংঘ মিশন পরিচালনা এবং সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশকে সহায়তা করতে যুক্তরাষ্ট্র আগামী বছরের মধ্যে বাংলাদেশকে মনুষ্যবিহীন বিমান, টহল নৌকা ও হাল বোট সরবরাহ করবে।

- Advertisement -

বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস গত ৩০ জুলাই ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি ও বাংলাদেশের ওপর এর প্রভাব নিয়ে কথা বলেন।

“আগামী বছরের মধ্যে আমরা অত্যন্ত সক্ষম ব্ল্যাকজ্যাক ইউএএস [ড্রোন], ৩৫ ফুট সেফ প্যাট্রোল বোট এবং অতিরিক্ত জোডিয়াক রিজিড হাল বোট সরবরাহ করার আশা করছি,” হাস বলেন।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র মূলত বৈদেশিক সামরিক অর্থায়ন এবং গ্লোবাল পিসকিপিং অপারেশনস ইনিশিয়েটিভের মতো অনুদান কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

শান্তিপূর্ণ ও স্থিতিশীল বাংলাদেশকে সমর্থন করা, গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের প্রসার, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বৃদ্ধি, মানবিক সুরক্ষা প্রদান এবং সামাজিক ও পরিবেশগতভাবে স্থিতিশীল বাংলাদেশ গড়ে তোলাসহ পাঁচটি সাধারণ লক্ষ্যের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন হাস।

মার্কিন কূটনীতিক বলেন, ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল যাতে মুক্ত, উন্মুক্ত, শান্তিপূর্ণ ও সুরক্ষিত থাকে তা নিশ্চিত করতে তারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

এ লক্ষ্যে প্রতিরক্ষা প্রস্তুতি জোরদার করতে এবং প্রতিটি পর্যায়ে আমাদের সামরিক বাহিনীর মধ্যে অংশীদারিত্ব জোরদার করতে মার্কিন সামরিক বাহিনী নিয়মিতভাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে।

সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমান বাহিনী এবং স্পেশাল অপারেশনইউনিটকে সহায়তা করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে অসংখ্য নতুন সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে। যুক্তরাষ্ট্র মাইন রেজিস্ট্যান্ট অ্যাম্বুশ প্রটেক্টেড (এমআরএপি) সাঁজোয়া যান ও বোমা রোবট, সমুদ্র জয় ও সমুদ্র অভিযানের মতো ফ্রিগেট এবং চারটি সি-১৩০বি বিমান সরবরাহ করেছে।

পিটার হাস বলেন, সঠিক সময় এলে ফরেন মিলিটারি সেলের মাধ্যমে বাংলাদেশকে আরও উন্নত সক্ষমতা দিতে প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্র।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুক সবার অভিন্ন সমৃদ্ধির জন্য একটি অবাধ, উন্মুক্ত, শান্তিপূর্ণ, সুরক্ষিত এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ইন্দো-প্যাসিফিকের জন্য বাংলাদেশের দৃষ্টিভঙ্গি ঘোষণা করায় তারা উৎসাহিত। আউটলুকে এমন অনেক কিছু রয়েছে যা ইন্দো-প্যাসিফিকের জন্য আমাদের নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গির সাথে ওভারল্যাপ করে, “হাস বলেন।

তবে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান মিত্র। সম্প্রতি বাংলাদেশ তাদের ১৫ দফা ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশল ঘোষণা করেছে। আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক নিরাপত্তা, সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো ইস্যুতে দুই দেশ যথেষ্ট সহযোগিতা উপভোগ করে। ওবামা প্রশাসনের খাদ্য নিরাপত্তা, স্বাস্থ্যসেবা ও পরিবেশের মতো বড় বড় আন্তর্জাতিক উন্নয়ন প্রকল্পে বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। ২০১২ সালে দুই দেশের মধ্যে একটি কৌশলগত কথোপকথন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ২০১৫ সালে বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট এই সম্পর্ককে ‘প্রাণবন্ত, বহুমুখী ও গুরুত্বপূর্ণ’ বলে প্রশংসা করেন।

বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কৌশলগত সামরিক অংশীদার হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে প্রতিরক্ষা সহযোগিতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে বঙ্গোপসাগরে নিয়মিত যৌথ মহড়া করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের প্যাসিফিক কমান্ড বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকে নিয়মিতভাবে সম্পৃক্ত করে থাকে। যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ নৌবাহিনীর এলিট এসডব্লিউএডিএস মেরিন ইউনিট গঠনে সহায়তা করেছে, যা আমেরিকান এবং দক্ষিণ কোরিয়ার বিশেষ বাহিনীর নামে তৈরি করা হয়েছে।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশ বিশ্বের বৃহত্তম দাতা দেশ। যুক্তরাষ্ট্রের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশের শান্তিরক্ষা মিশনগুলো ব্যাপকভাবে উপকৃত হয়েছে।

দুই দেশের মধ্যে শক্তিশালী ও সম্প্রসারিত অর্থনৈতিক সম্পর্ক যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কের ভিত্তি। বিগত পাঁচ দশকে বাংলাদেশ হঠাৎ করে বিশ্বের অন্যতম দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতিতে পরিণত হয়েছে। ২০২২ সালে ৭ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনকরে বাংলাদেশ আগামী ১০ বছরের মধ্যে বিশ্বের ২৪তম বৃহত্তম অর্থনীতিতে পরিণত হওয়ার পথে রয়েছে। বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ও স্থিতিশীলতা উন্নয়ন এবং প্রত্যক্ষ বৈদেশিক বিনিয়োগের উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে এবং যুক্তরাষ্ট্র একটি নিবেদিত অংশীদার।

বাংলাদেশ ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত, একটি অঞ্চল যা বাইডেন-হ্যারিস প্রশাসন অর্থনৈতিক সংযোগের জন্য অগ্রাধিকার দিয়েছে, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কও অভিন্ন গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, মুক্ত উদ্যোগ, স্থিতিস্থাপক সরবরাহ শৃঙ্খল এবং উভয় দেশের জনগণের সমৃদ্ধি ও স্বাস্থ্যের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা সহযোগিতা জোরদার করার জন্য আমরা গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রগুলো দেখতে পাচ্ছি।

কোভিড-১৯ এর প্রথম বিপর্যয়কর ঢেউয়ের সময় বাংলাদেশ যখন যুক্তরাষ্ট্রে ৬০ লাখেরও বেশি ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম সরবরাহ করেছিল, তখন এটি উল্লেখযোগ্যভাবে সত্য ছিল।

তবে সাম্প্রতিক বছরগুলো যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যকার সম্পর্কের জন্য একটি চ্যালেঞ্জিং বছর হয়ে দাঁড়িয়েছে। ওয়াশিংটন ২০২১ সালের ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এবং বেশ কয়েকজন বর্তমান ও সাবেক কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। বাংলাদেশের জন্য নতুন ভিসা নীতি ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে কিছু উত্তেজনাপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে।

এর মধ্যে পিটার হ্যাসের মন্তব্য এখানে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ। তবে ওয়াশিংটন ঢাকাকে এ অঞ্চলের নিরাপত্তা অংশীদার হিসেবে বিবেচনা অব্যাহত রাখতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র এখন বাংলাদেশের সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক গড়ে তুলতে চায়। এটি দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা সম্পর্ক জোরদার করতে সহায়তা করতে পারে। দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা সম্পর্ক দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে জোরদার করতে পারে। এ অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রয়োজন বাংলাদেশ এবং এর বিপরীতে। এর মাধ্যমে এই বার্তা দেওয়া হয় যে, কিছু দ্বিপাক্ষিক সমস্যা থাকা সত্ত্বেও, উভয় দেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও জোরদার করতে আগ্রহী। এটি দ্বিপাক্ষিক সমস্যা সমাধানে সহায়তা করতে পারে। কিছু অভিন্ন সমস্যা মোকাবেলায় বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই বিশ্বস্ত অংশীদার হিসেবে সম্পৃক্ত হতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এর আগেও বিশ্বাস প্রকাশ করেছিলেন যে, ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্ক আগামী ৫০ বছর এবং তারও পরেও বিকশিত হবে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লেখা এক চিঠিতে তিনি উল্লেখ করেন, ‘আমাদের প্রতিরক্ষা সহযোগিতা আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী’, উল্লেখ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, বাংলাদেশ কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী একটি অবাধ ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল নিশ্চিত করার পাশাপাশি মানব ও অবৈধ মাদক পাচার প্রতিরোধে আঞ্চলিক লড়াইয়ে অবদান রাখার ক্ষেত্রে অপরিহার্য মিত্র।

মার্কিন সরকারের ওয়েবসাইটঅনুযায়ী, ২০১৫ সাল থেকে বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে বৈদেশিক সামরিক অর্থায়ন (এফএমএফ) ৬৬.৯ মিলিয়ন ডলার এবং আন্তর্জাতিক সামরিক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ (আইএমইটি) সহায়তা হিসাবে ৭.২৯ মিলিয়ন ডলার পেয়েছে। এফএমএফ তহবিলের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক কর্মসূচিতে ১০ মিলিয়ন ডলার এবং বে অফ বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভের জন্য আঞ্চলিক এফএমএফে ৫৬.৯ মিলিয়ন ডলার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এফএমএফ সহায়তার মাধ্যমে, পররাষ্ট্র দফতরের বে অফ বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভের লক্ষ্য বেসামরিক ও সামরিক কর্মীদের তাদের সীমানার মধ্যে এবং এই অঞ্চলে অবৈধ ক্রিয়াকলাপ সনাক্ত করার ক্ষমতা উন্নত করা, দেশগুলিকে তথ্য ভাগ করে নেওয়ার অনুমতি দেওয়ার জন্য নেটওয়ার্ক এবং সহযোগিতার অভ্যাস তৈরি করা, অবৈধ ক্রিয়াকলাপের দ্রুত প্রতিক্রিয়া জানানোর ক্ষমতা বিকাশ করা এবং ভারত মহাসাগর অঞ্চলে নিয়ম-ভিত্তিক শৃঙ্খলা সক্ষম করতে আমাদের অংশীদারদের সহায়তা করা।

ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজির সমর্থনে মার্কিন নিরাপত্তা সহায়তা বাংলাদেশকে সামুদ্রিক নিরাপত্তা, নৌচলাচলের স্বাধীনতা এবং মানবিক সহায়তা/দুর্যোগ মোকাবেলার সক্ষমতা উন্নত করেছে। এই অর্থ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর জন্য টহল নৌকা ক্রয়, নৌবাহিনীর জন্য অতিরিক্ত টহল জাহাজ, আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষা ও সীমান্ত নিরাপত্তা মিশনে ব্যবহার করা হয়েছে; বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ফাস্ট টহল নৌকা এবং সাবেক মার্কিন কোস্ট গার্ড কাটারদের ইলেকট্রনিক ও মেকানিক্যাল আপগ্রেড; বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও কোস্টগার্ড সদস্যদের জন্য কারিগরি ও পেশাগত প্রশিক্ষণ; যৌথ সামরিক মহড়া। এই সহায়তা বাংলাদেশের সামুদ্রিক ডোমেইন জ্ঞান ও নিয়ন্ত্রণের উন্নতিতে উল্লেখযোগ্যভাবে সহায়তা করেছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান সম্প্রতি দু’বার যুক্তরাষ্ট্র সফর করেছেন। বৈঠকে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন এবং দুর্যোগ পরবর্তী মানবিক সহায়তাসহ দুই বাহিনীর অভিন্ন স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

বাংলাদেশ শান্তিরক্ষী বাহিনীকে আরো সক্রিয় ও শক্তিশালী করতে বিশ্ব শান্তি ও বৈশ্বিক স্থিতিশীলতায় বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ভাবমূর্তি, গৌরব ও মর্যাদা সমুন্নত রাখতে বাংলাদেশ সরকার, বিশ্বশক্তি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ও জাতিসংঘকে আরো সহযোগিতামূলক ভূমিকা পালন করতে হবে, বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের চমৎকার প্রশিক্ষণ সুবিধা ব্যবহারের সুযোগ প্রদান করতে হবে এবং উন্নত অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত করতে হবে। নিষেধাজ্ঞা রক্ষণাবেক্ষণের চিন্তাধারার পরিবর্তে যুক্তরাষ্ট্রের উচিত সফল শান্তি রক্ষা মিশন অব্যাহত রাখতে বাংলাদেশের সঙ্গে সহযোগিতা করা।

ফলে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা বিষয়ক প্রধান ল্যাক্রুইক্স জাতিসংঘে আরও বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী পাঠানোর আগ্রহ প্রকাশ করেন। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনীর বাংলাদেশী কন্টিনজেন্টগুলোকে তাদের পুরাতন অস্ত্র ও সরঞ্জামের পরিবর্তে বাংলাদেশ থেকে আনা নতুন অস্ত্র শস্ত্র ও সরঞ্জামাদি ব্যবহারের অনুরোধ জানান তিনি।

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম ও প্রশিক্ষণ সরবরাহের মাধ্যমে বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়ন ও প্রাতিষ্ঠানিককরণে সহায়তা করতে চায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দুটি প্রতিরক্ষা চুক্তি স্বাক্ষরের উপর জোর দিয়েছে – জিএসওএমআইএ এবং এসিএসএ – যা প্রতিরক্ষা বাণিজ্য এবং সহযোগিতার ভিত্তি হিসাবে কাজ করে।

তবে বাংলাদেশকে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক সহায়তার বেশির ভাগই প্রতিরক্ষা পেশাজীবীদের প্রশিক্ষণ এবং দুই বাহিনীর যৌথ মহড়ার আকারে। যুক্তরাষ্ট্রের প্যাসিফিক কমান্ড বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকে নিয়মিতভাবে সম্পৃক্ত করে থাকে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এসপার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন এবং দু’দেশের মধ্যে সামরিক সহযোগিতাসহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন। ২০২২ সালের এপ্রিলে ঢাকায় ‘সিকিউরিটি পার্টনারশিপ ডায়ালগ’ সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর চলতি মাসেই যুক্তরাষ্ট্র সফর করেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান। এই অঞ্চলে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জন্য এই সফর অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। এই সফরের মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ তাদের প্রতিরক্ষা সম্পর্ক আরও জোরদার করেছে।

মেহজাবিন বানু, বাংলাদেশের একজন লেখিকা, কলামিস্ট, নিরাপত্তা ও কৌশলগত বিষয়ক বিশ্লেষক।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles