14.1 C
Toronto
বুধবার, মে ২৯, ২০২৪

ঈদে সেমাই না পেয়ে ঘর ছেড়েছিলেন, ৩৪ বছর পর ফিরে সেমাই খেলেন

ঈদে সেমাই না পেয়ে ঘর ছেড়েছিলেন, ৩৪ বছর পর ফিরে সেমাই খেলেন
ঈদের দিন মায়ের হাতে সেমাই খেলেন রফিকুল ইসলাম ছবি সংগৃহীত

৩৪ বছর আগে রোজার ঈদে সেমাই না পেয়ে অভিমানে ঘর ছেড়েছিলেন সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার বুধহাটা ইউনিয়নের নৈকাটি গ্রামের রফিকুল ইসলাম (৫৭)। গত সোমবার তিনি ঘরে ফেরেন। এবার ঈদে তিনি মায়ের হাতে সেমাই খেয়েছেন।

রফিকুলের ছোট ভাই মফিজুল ইসলাম বলেন, ১৯৯০ সালে অভাবের কারণে বাবা তখন সেমাই কিনতে পারেননি। এ নিয়ে মা–বাবার সঙ্গে রাগ করে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান বড় ভাই। সবাই মিলে খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। গত সোমবার সন্ধ্যার দিকে এক ব্যক্তি তাদের গ্রামের মসজিদে এসে মাগরিবের নামাজ আদায় করেন। পরে তার বড় ভাই রফিকুল সম্পর্কে খোঁজখবর নেন। স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে জেনে ওই ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি নিজেকে তাদের বড় ভাই রফিকুলের বড় ছেলে আবদুর রশিদ বলে পরিচয় দেন। একপর্যায়ে তাকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। তার কাছ থেকে জানা যায়, তাদের বড় ভাই বর্তমানে কুমিল্লার মুরাদপুর উপজেলার চুলুরিয়া গ্রামে থাকেন।

- Advertisement -

আবদুর রশিদ বলেন, বাবার কাছে বারবার দাদার বাড়ির ঠিকানা জানতে চাইলেও তিনি কখনো তা প্রকাশ করেননি। পরের বছর বাবার কেনা জমির একটি দলিলে দাদার নাম-ঠিকানা পান। ঠিকানা পেয়ে দাদার বাড়িতে যাওয়ার কথা বললে বাবা বলেন, তার মৃত্যুর পর সেখানে নিয়ে যেতে। অনেক অনুরোধ করার পর তিনি দাদার ঠিকানায় খোঁজ করার অনুমতি দেন। সে অনুযায়ী তিনি কুমিল্লা থেকে সাতক্ষীরায় আসেন এবং দাদার বাড়ির ঠিকানা খুঁজে পান। পরে তিনি চাচাদের কুমিল্লায় নিয়ে যান এবং তাদেরসহ বাবাকে নিয়ে আশাশুনিতে আসেন।

রফিকুলের মা শুকজান বিবি বলেন, বড় ছেলে রফিকুল বাড়ি থেকে চলে যাওয়ার পর তিনি সেমাই খাননি ৩৪ বছর। এই ঈদে গতকাল বৃহস্পতিবার ছেলেকে নিজের হাতে সেমাই খাওয়াতে পেরে খুশি তিনি। ছেলের অনুরোধে নিজেও সেমাই খেয়েছেন। বললেন, ‘আজ আমার মহাখুশির দিন। আমার বুকের ধন ফিরে আসায় আমি যারপরনাই খুশি।’

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles