18.5 C
Toronto
সোমবার, জুলাই ২২, ২০২৪

তৃতীয় বিয়ে করতে ৩৩ লাখ টাকা নিয়ে পালান সাঈদ

তৃতীয় বিয়ে করতে ৩৩ লাখ টাকা নিয়ে পালান সাঈদ
প্রতীকী ছবি

তৃতীয় বিয়ে করতে ইসলামপুরের এক কাপড়ের দোকানের বিশ্বস্ত কর্মচারী ৩৩ লাখ টাকা নিয়ে লাপাত্তা হয়ে যান। পরে প্রেমিকাসহ ভারতে পালানোর চেষ্টা করেন। ব্যর্থ হয়ে ফরিদপুরে প্রেমিকার বাড়িতে অবস্থান নেন। আর সেখান থেকেই ধরা পড়েন গোয়েন্দা জালে। উদ্ধার করা হয় ৩১ লাখ ৮৭ হাজার টাকা।

পুরান ঢাকার ইসলামপুরে একটি কাপড়ের দোকানের কর্মচারী ছিলেন সাঈদ আহমেদ। তিনি একজন নওমুসলিম। তার পূর্বের নাম প্রদীপ কুমার বিশ্বাস। বাড়ি গাইবান্ধা সদর থানায়। ২০২২ সালে ইসলামপুরে একটি কাপড়ের দোকানে চাকরি নেন সাঈদ আহমেদ। তিনি ইতোপূর্বে চাকরি করেছেন রংপুরের বিভিন্ন কাপড়ের দোকানে। তার সততায় মুদ্ধ হন ইসলামপুরের ওই কাপড়ের দোকানের মালিক। তিনি বিশ্বস্ত কর্মচারী মনে করে প্রায়ই সাঈদকে টাকা জমা দিতে ব্যাংকে পাঠাতেন।

- Advertisement -

এদিকে সাঈদের দুই স্ত্রী রয়েছে। তাদের রেখেও তিনি রীতা নামে এক নারীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। প্রেমিকার পরামর্শে ২৪ মার্চ দোকান মালিকের ৩৩ লাখ টাকা নিয়ে পালিয়ে যান।

ডিবি জানায়, বেচাবিক্রির ৩৩ লাখ টাকা রাখা ছিল দোকানের লকারে। ২৪ মার্চ সাঈদ আরেক কর্মচারীকে নিয়ে ইসলামপুরে ঢাকা ব্যাংকে যান টাকা জমা দিতে। একপর্যায়ে একাই প্রবেশ করেন ব্যাংকে। কিছু সময় ঘোরাঘুরির পর ৩৩ লাখ টাকা নিয়ে সোজা গাজীপুরে প্রেমিকার কাছে চলে যান। সেখান থেকে প্রেমিকাকে নিয়ে প্রথমে নরসিংদী, এরপর বগুড়ায় যান। বগুড়ায় কেনাকাটা করে পঞ্চগড়ের বাংলাবান্দার তেঁতুলিয়ায় যান। সেখান থেকে প্রেমিকার বাড়ি ফরিদপুরের সদরপুরে যান।

গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান জানান, এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়। গোয়েন্দা কোতোয়ালি জোনাল টিম ১ এপ্রিল ফরিদপুর থেকে গ্রেফতার করে সাঈদ ও প্রেমিকা রীতাকে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles