15.2 C
Toronto
মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০২৪

৫ অভ্যাস বদলান, নইলে বিপদে পড়বে কিডনি

৫ অভ্যাস বদলান, নইলে বিপদে পড়বে কিডনি
ছবি সংগৃহীত

শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হলো কিডনি। সুস্থ থাকতে কিডনিকে অবহেলা করলে কিন্তু চলবে না। কিডনি বিকল হলে শরীরে নানা জটিলতা বাসা বাঁধবে। বড় কোনো শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হওয়ার আগে তাই সতর্ক থাকা জরুরি। কোনো ক্রনিক অসুখ না থাকলে সাধারণত কিডনির যত্ন নেওয়া খুব কঠিন কাজ নয়। ছোটখাটো কিছু যত্নেই সুস্থ রাখা যায় কিডনিকে। তবে অজান্তেই এমন কিছু প্রাত্যহিক অভ্যাসে আমরা অভ্যস্ত, যেগুলি বাড়িয়ে ফেললে কিডনি বিকল হওয়ার সম্ভাবনা।

জেনে নিন, কোন কোন অভ্যাসে রাশ টানলে কিডনির রোগ ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব।

- Advertisement -

১. পর্যাপ্ত পানি খান। কোনো ক্রনিক অসুখ না থাকলে যেকোনো সুস্থ মানুষের প্রতি দিন ৩-৪ লিটার পানির প্রয়োজন। কোনো মতেই শরীরে পানির ঘাটতি হতে দেবেন না। শরীরের যাবতীয় টক্সিন বাইরে বের করে দিতে পানিই প্রধানত সাহায্য করে। তাই পানির জোগান কিডনি যত পাবে, তার শারীরবৃত্তীয় কাজে তত সুবিধা হবে। অতিরিক্ত মদপানও কিডনির সমস্যার কারণ হতে পারে।

২. কিডনিতে সংক্রমণের অন্যতম কারণ হলো প্রস্রাব চেপে রাখা। সাধারণত রাস্তাঘাটে বা অনেক সময় কাজের চাপে বাড়িতে থাকলেও অনেকেই প্রস্রাবের বেগ চেপে রাখেন। এই অভ্যাস দিনের পর দিন ঘটালে কিন্তু বিপদ। এর ফলে মূত্রনালিতে চাপ পড়ে, তাতেই ক্ষতিগ্রস্ত হয় কিডনি।

৩. উচ্চমাত্রার ডায়াবেটিস সরাসরি কিডনির ক্ষতি করে। তাই ডায়াবেটিসকে নিয়ন্ত্রণে রাখা ভীষণ জরুরি। রক্তে শর্করার পরিমাণ কোনো ভাবেই বাড়তে দেওয়া যাবে না। কিডনি ভালো রাখতে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ প্রয়োজন।

৪. সামান্য ব্যথায় ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়াও মোটেও ভালো অভ্যাস নয়। অতিরিক্ত মাত্রায় এধরনের ওষুধ কিন্তু কিডনির নানা সমস্যা তৈরি করে। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনো ভাবেই কোনো অ্যান্টিবায়োটিক বা ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়া একেবারেই উচিত নয়।

৫. অনেকেই একটু বেশি লবণ খান। রান্নায় লবণ কম হোক বা না হোক, খাওয়ার পাতে একটু কাঁচা লবণ না নিলেই নয়। এই অভ্যাস কিন্তু কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য মোটেই ভালো নয়। কিডনিকে ভালো রাখতে চাইলে সবার আগে এই অভ্যাসে বদলাতে হবে। খুব বেশি চিনি খেলেও কিন্তু কিডনির ক্ষতি হয়। এ ছাড়া প্রক্রিয়াজাত খাবার কিংবা প্যাকেটবন্দি খাবারেও লবণ ও চিনি বেশি মাত্রায় থাকে, তাই এসব বেশি না খাওয়াই ভালো।

৫ অভ্যাস বদলান, নইলে বিপদে পড়বে কিডনি

শরীরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হলো কিডনি। সুস্থ থাকতে কিডনিকে অবহেলা করলে কিন্তু চলবে না। কিডনি বিকল হলে শরীরে নানা জটিলতা বাসা বাঁধবে। বড় কোনো শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হওয়ার আগে তাই সতর্ক থাকা জরুরি। কোনো ক্রনিক অসুখ না থাকলে সাধারণত কিডনির যত্ন নেওয়া খুব কঠিন কাজ নয়। ছোটখাটো কিছু যত্নেই সুস্থ রাখা যায় কিডনিকে। তবে অজান্তেই এমন কিছু প্রাত্যহিক অভ্যাসে আমরা অভ্যস্ত, যেগুলি বাড়িয়ে ফেললে কিডনি বিকল হওয়ার সম্ভাবনা।

জেনে নিন, কোন কোন অভ্যাসে রাশ টানলে কিডনির রোগ ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব।

১. পর্যাপ্ত পানি খান। কোনো ক্রনিক অসুখ না থাকলে যেকোনো সুস্থ মানুষের প্রতি দিন ৩-৪ লিটার পানির প্রয়োজন। কোনো মতেই শরীরে পানির ঘাটতি হতে দেবেন না। শরীরের যাবতীয় টক্সিন বাইরে বের করে দিতে পানিই প্রধানত সাহায্য করে। তাই পানির জোগান কিডনি যত পাবে, তার শারীরবৃত্তীয় কাজে তত সুবিধা হবে। অতিরিক্ত মদপানও কিডনির সমস্যার কারণ হতে পারে।

২. কিডনিতে সংক্রমণের অন্যতম কারণ হলো প্রস্রাব চেপে রাখা। সাধারণত রাস্তাঘাটে বা অনেক সময় কাজের চাপে বাড়িতে থাকলেও অনেকেই প্রস্রাবের বেগ চেপে রাখেন। এই অভ্যাস দিনের পর দিন ঘটালে কিন্তু বিপদ। এর ফলে মূত্রনালিতে চাপ পড়ে, তাতেই ক্ষতিগ্রস্ত হয় কিডনি।

৩. উচ্চমাত্রার ডায়াবেটিস সরাসরি কিডনির ক্ষতি করে। তাই ডায়াবেটিসকে নিয়ন্ত্রণে রাখা ভীষণ জরুরি। রক্তে শর্করার পরিমাণ কোনো ভাবেই বাড়তে দেওয়া যাবে না। কিডনি ভালো রাখতে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ প্রয়োজন।

৪. সামান্য ব্যথায় ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়াও মোটেও ভালো অভ্যাস নয়। অতিরিক্ত মাত্রায় এধরনের ওষুধ কিন্তু কিডনির নানা সমস্যা তৈরি করে। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনো ভাবেই কোনো অ্যান্টিবায়োটিক বা ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়া একেবারেই উচিত নয়।

৫. অনেকেই একটু বেশি লবণ খান। রান্নায় লবণ কম হোক বা না হোক, খাওয়ার পাতে একটু কাঁচা লবণ না নিলেই নয়। এই অভ্যাস কিন্তু কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য মোটেই ভালো নয়। কিডনিকে ভালো রাখতে চাইলে সবার আগে এই অভ্যাসে বদলাতে হবে। খুব বেশি চিনি খেলেও কিন্তু কিডনির ক্ষতি হয়। এ ছাড়া প্রক্রিয়াজাত খাবার কিংবা প্যাকেটবন্দি খাবারেও লবণ ও চিনি বেশি মাত্রায় থাকে, তাই এসব বেশি না খাওয়াই ভালো।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles