7.1 C
Toronto
শুক্রবার, মার্চ ১, ২০২৪

৪১ তলার ভবনে এলিভেটর মাত্র একটি

৪১ তলার ভবনে এলিভেটর মাত্র একটি
ড্উানটাউন টরন্টোর একটি অ্যাপার্টমেন্টে থাকেন শার্লিন হেনরি তিনি বলেন ভবনটিতে থাকা চারটি এলিভেটরের মধ্যে দুটি কয়েক সপ্তাহ ধরে অকেজো অবস্থায় রয়েছে

টরন্টোর কিছু গগনচুম্বি অট্টালিকায় এলিভেটরের স্বল্পতা বাসিন্দাদের হতাশ করছে। সেই সঙ্গে তাদের নিরাপত্তা নিয়েও উদ্বেগ বাড়াচ্ছে।

অন্টারিওর ইটোবিকোকের একটি ৪১ তলা বিশিষ্ট ভবনের বাসিন্দা প্যাট্রিক কোট। কিন্তু কোনো কোনো সময় ভনটিতে থাকা তিনটি এলিভেটরের একটি বা দুটি চালানো হয়। একটি একমাস ধরে অকেজো রয়েছে। অর্থাৎ, সচল আছে মাত্র দুটি এলিভেটর। তার মধ্যেও একটি সব সময় সংরক্ষিত রাখা হয়। অনেক সময় ব্যাপারটা এরকম দাঁড়ায়Ñ৪১ তলার জন্য একটিমাত্র এলিভেটর।

- Advertisement -

ড্উানটাউন টরন্টোর একটি অ্যাপার্টমেন্টে থাকেন শার্লিন হেনরি। তিনি বলেন, ভবনটিতে থাকা চারটি এলিভেটরের মধ্যে দুটি কয়েক সপ্তাহ ধরে অকেজো অবস্থায় রয়েছে। আরেকটি প্রায় সময়ই বুকড থাকে। বিষয়টি প্রথামকিভাবে নিরাপত্তার উদ্বেগ তৈরি করছে।

২৭ তলায় থাকা হেনরি বলেন, সিঁড়ি ভাঙতে আমার কোনো সমস্যা নেই। আমি ভাবছি তাদের কথা যাদের চলাফেরায় সমস্যা রয়েছে। সেই সঙ্গে শিশুদের কথা। আমার একজন প্রতিবেশী আছেন যিনি ক্যান্সারের সঙ্গে বসবাস করছেন। তাকেও সিঁড়ি ভাঙতে হয়।

অন্টারিওতে এলিভেটরের বিষয়টি দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে টেকনিক্যাল স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড সেফটি অথরিটি (টিএসএসএ)। সুউচ্চ আবাসিক ভবনে অগ্নি নির্বাপন সংক্রান্ত কিছু ন্যূনতম শর্ত থাকলেও তলাপ্রতি কতটি এলিভেটর থাকতে হবে সে-সংক্রান্ত কোনো শর্ত প্রদেশে নেই বলে নিশ্চিত করেছে টিএসএসএ। কত দ্রুত আবাসিক লিফট প্রস্তুত করতে হবে সে-সম্পর্কিতও কোনো নীতিমালা নেই।

টিএসএসএর একজন মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বলেন, অন্টারিওর এলিভেটিং ডিভাইসের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে টিএসএসএর মনোযোগ স্থাপিত এলিভেটরের নিরাপত্তার ওপর। কোনো ভবনে কতটি এলিভেটর স্থাপন করতে হবে সে সংক্রান্ত কোনো কোটার ব্যাপারে সুপারিশ করার কোনো এখতিয়ার টিএসএসএর নেই।

মন্তব্য জানতে চাইলে সিটি অব টরন্টোর পক্ষ থেকে বলা হয়, মিউনিসিপাল বাইল অনুযায়ী এলিভেটরকে কার্যকর এবং পরিচ্ছন্ন রাখার বিধান রয়েছে। মিউনিসিপালিটির দায়িত্ব এ পর্যন্তই। একটি আবাসিক ভবনে কত সংখ্যক এলিভেটর থাকতে হবে অথবা কত সময়ের মধ্যে বিকল এলিভেটর মেরামত করতে হবে সে সংক্রান্ত কোনো বাইল মিউনিসিপালিটির নেই বলে নিশ্চিত করেন একজন মুখপাত্র।

কয়েক সপ্তাহ ধরে বিকল এলিভেটরটির ব্যাপারে কথা বলতে বাড়ির মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন বলে জানান কোট। জবাবে তাকে বলা হয়, এ ব্যাপারে তাদের কিছু করার নেই এবং তাকে কন্ডো বোর্ডের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে কন্ডো বোর্ডের পরিবর্তন আনার কোনো ক্ষমতা নেই।

আর্চ ডিজঅ্যাবিলিটি ল সেন্টারের স্টাফ আইনজীবী হান্নাহ লি বলেন, আমি মাসে ৩ হাজার ৬০০ ডলার ভাড়া গুনি। কিন্তু ভাড়া করা কন্ডোতে আমি যেতে পারি না। আবাসিক প্রবেশগামিতা মানবাধিকার সংক্রান্ত বিষয়। এ জন্য একটা কোনো আইন দরকার। তাতে নির্দিষ্ট সংখ্যক এলিভেটর এবং সেগুলো কত বেশি সেবা দেবে সে বিষয়গুলো বিবেচনায় নেওয়া দরকার। বিষয়টি বিশেষ করে চলাফেরায় অক্ষম এবং বয়স্ক লোকদের ক্ষেত্রে খুব বেশি প্রাসঙ্গিক।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles