15 C
Toronto
শনিবার, মে ১৮, ২০২৪

শুভ জন্মদিন শেখ হাসিনা

শুভ জন্মদিন শেখ হাসিনা
প্রিয় শেখ হাসিনা আপনি যে কাজটি ইতিপূর্বে সম্পন্ন করেছেন জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিচার করে সোনার বাংলাদেশ এতে করেই দুই শত বছর এগিয়ে গিয়েছে

এখনো আশায় বুক বেঁধে যে দিকে-
তাকাই,
দেখি, তোমার মত আর কেউ নাই…
জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের মর্মান্তিক মৃত্যুর পর বাংলাদেশের কিছু কিছু দেয়ালে কালো কালিতে লেখা কয়েকটি পঙক্তি জ্বল জ্বল করত; কিন্তু মানুষের হৃদয়ে জাগিয়ে দিত ক্ষোভের দাবানল। ‘জাতি বঙ্ঘবন্ধু হত্যার বিচার চায়’ ‘জাতি শিশু রাসেল হত্যার বিচার চায়’ এবং ‘যতদিন রবে পদ্মা যমুনা, গৌরী মেঘনা বহমান/ ততদিন রবে কীর্তি তোমার, শেখ মুজিবুর রহমান’ এই তিন ধরনের দেয়াল লিখনের মাধ্যমেই মূলত সাধারণ মানুষের মনে জাতির পিতার হত্যার বিচারের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করানো হয়।

১৯৭৫ সালের পর পৃথিবীর সবচেয়ে ভারী এবং কষ্ট দায়ক পাথরটি ছিল বাংলাদেশের দেশপ্রেমিক জনগণের কাঁধে। কি সেই পাথর? জাতির পিতার হত্যা এবং সেই হন্তারকদের বিচার করতে না পারা। চিরলোভী জিয়া এদেরকে বিচার না করে উল্টো পুরস্কৃত করেছে।
১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় কিছু কিছু কুলাঙ্গার মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করে হত্যা ধর্ষণ এবং সীমাহীন নির্মম তাণ্ডব করেছে। এসব কুলাঙ্গাররা জিয়া এবং তার দোসরদের ছত্রছায়ায় নির্মমতার শিকার মানুষদের সামনেই দম্ভভরে ঘুরে বেড়াতে লাগল। এমনকি রাষ্ট্রের শাসনেও ভাগ বসাতে লাগল। দেশপ্রেমিক জনগণ ক্ষোভে দুঃখে অপমানে ফেটে পড়ল। জনগণ চাইল এদের বিচার হোক। ফাঁসিতে ঝুলিয়ে এদের বিচার সম্পন্ন হোক।
জনগণের কাঁধের সেই পর্বত প্রমাণ পাথরটি আপনিই নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিলেন।

- Advertisement -

নিজ কাঁধে, নিজ দায়িত্বে বিচারের ভার বহন করে আমাদের কাঁধের সবচেয়ে ভারী পাথরটি আপনি আস্তে আস্তে সত্যি সত্যি নামিয়ে দিলেন। বিশ্ব মোড়লরা আপনার সাহস আর কঠিন দৃঢ়তা দেখে চোখ রাঙাতে লাগলো। বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবার হত্যার বিচার, যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া সহ আপনার সকল মহৎ কাজকে নস্যাৎ করতে দেশে এবং বিদেশে ষড়যন্ত্র শুরু করলো বিরুদ্ধবাদীরা। আপনি আরো বেশী সতর্কতা অবলম্বন করে, আরো বেশী দৃঢ়তা নিয়ে এদের সকলের মুখে ছাই দিয়ে আপনার প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে লাগলেন; বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার সহ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া তরান্বিত করে।

প্রিয় শেখ হাসিনা, আপনি যে কাজটি ইতিপূর্বে সম্পন্ন করেছেন, জাতির পিতার হত্যাকারীদের বিচার করে; সোনার বাংলাদেশ এতে করেই দুই শত বছর এগিয়ে গিয়েছে।
আপনি যে কাজে এখন নিমগ্ন তা সম্পন্ন করতে শেষ নিঃশ্বাস থাকা পর্যন্ত আমরা আপনার পাশে থাকব।

সারা বংলাদেশের মাটি এবং মানুষের সাথে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মিশে আছেন; বাংলার বাতাস নিশ্চয়ই আপনার কানে কানে তা বলে।

আজ কায়মনোবাক্যে প্রার্থনা করি, আপনি নিরাপদে থাকুন। আমার জন্মভূমির জননী এবং ভগিনী হিসেবে আপনি আবির্ভূত হয়েছেন। সত্যিকার অর্থেই আপনি জননেত্রী ।
আপনার দীর্ঘ জীবন কামনা করে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাই।
শুভ জন্মদিন শেখ হাসিনা।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles