26.6 C
Toronto
মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪

রাজস্বের নতুন খাত নিয়ে টরন্টো সিটি কাউন্সিলে বিতর্ক

রাজস্বের নতুন খাত নিয়ে টরন্টো সিটি কাউন্সিলে বিতর্ক
শত কোটি ডলারের বাজেট ঘাটতি পুষিয়ে নিতে রাজস্বের আর কী খাত যুক্ত করা যেতে পারে তা নিয়ে টরন্টো সিটি কাউন্সিলে বিতর্ক হয়েছে

শত কোটি ডলারের বাজেট ঘাটতি পুষিয়ে নিতে রাজস্বের আর কী খাত যুক্ত করা যেতে পারে তা নিয়ে টরন্টো সিটি কাউন্সিলে বিতর্ক হয়েছে। কর্মকর্তাদের নতুন এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আশ্রয়ণ ব্যবস্থা এবং আশ্রয়প্রার্থীদের ঢল টরন্টোর আর্থিক চাপ বাড়িয়ে দিচ্ছে।

কাউন্সিলররা রাজস্ব বৃদ্ধির দুটি উদ্যোগের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন। এর মধ্যে একটি হলো ৩০ লাখ ডলার বা তার বেশি মূল্যের বিলাসবহুল বাড়ির ক্ষেত্রে মিউনিসিপাল ল্যান্ড ট্রান্সফার ট্যাক্স বৃদ্ধি। দ্বিতীয়টি হলো রাস্তায় গাড়ি পার্ক করলে ঘণ্টায় পাঁচ ডলারের ফির উর্ধ্বসীমা তুলে দেওয়া।

- Advertisement -

বাণিজ্যিক পার্কিং লেভি এবং ৯১১ নাম্বারে মাসিক মোবাইল ফোন লেভি নিয়ে অধিকতর গবেষণার প্রস্তাবের প্রতিও সমর্থন দিয়েছেন কাউন্সিলররা। সেই সঙ্গে খালি রাখা বাড়ির ওপর কর বাড়ানোর প্রস্তাবের প্রতিও নিজেদের সমর্থন ব্যক্ত করেছেন কাউন্সিলররা। এ ছাড়া কাউন্সিলররা টরন্টোতে বিক্রি হওয়া পণ্য ও সেবার ওপর মিউনিসিপাল ট্যাক্স চালুর ব্যাপারে প্রদেশের কাছে অনুমতি চাওয়ার এক প্রস্তাব অনুমোদন করেছেন।

নতুন ল্যান্ড ট্রান্সফার ট্যাক্স উচ্চ মূল্যের আবাসিক ভবনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। বাড়ির দাম ৩০ থেকে ৪০ লাখ ডলারের মধ্যে হলে সেক্ষেত্রে ট্যাক্স হবে সাড়ে ৩ শতাংশ, বাড়ির দাম ৪০ থেকে ৫০ লাখ ডলার হলে এর হার হবে সাড়ে ৪ শতাংশ। আর কোনো বাড়ির মূল্য যদি ৫০ লাখ থেকে এক কোটি ডলারের মধ্যে হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে করের হার হবে সাড়ে ৫ শতাংশ এবং এক কোটি থেকে ২ কোটি ডলার মূল্যের বাড়ির ক্ষেত্রে এ হার হবে সাড়ে ৬ শতাংশ। এ ছাড়া কোনো বাড়ির মূল্য ২ কোটি ডলার ছাড়িয়ে গেলে করের হার দাঁড়াবে সাড়ে ৭ শতাংশ।

সিটি অব টরন্টো বর্তমানে আর্থিক চাপে থাকলেও ভবিষ্যতে আরও বড় চাপ আসতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন টরন্টোর সিটি ব্যবস্থাপক। আগামী দশ বছরে টরন্টোর বাজেট ঘাটতি ৫ হাজার কোটি ডলারের কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারে মন্তব্য করেছেন তিনি।

নগরীর দীর্ঘমেয়াদী আর্থিক কৌশলের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে টরন্টোর মেয়র অলিভিয়া চাউ বলেন, এই পরিকল্পনার দুটি দিক আছে। একটি দিক হলো সিটি কী করতে পারে। যারা বিলাসবহুল বাড়ি কিনছেন তাদেরকে কর বাবদ কিছু পরিমাণ বেশি কর দেওয়ার জন্য আমরা বলছি। দ্বিতীয় যে দিকটি নিয়ে আমরা কথা বলছি তা হলো ফেডারেল এবং প্রাদেশিক সরকারের প্রতি এগিয়ে আসার আহ্বান।

This article was written by Sohely Ahmed Sweety as part of the LJI.

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles