15.1 C
Toronto
বুধবার, মে ২৯, ২০২৪

বার্ধক্য কমানোর ওষুধ আবিষ্কারের দাবি হার্ভার্ডের গবেষকদের

বার্ধক্য কমানোর ওষুধ আবিষ্কারের দাবি হার্ভার্ডের গবেষকদের

যৌবন ধরে রাখার সাধ কার মনেই বা না জাগে। সবাই চায় চির তরুণ চেহারার অধিকারি হতে। সেই স্বপ্ন এবার যেন সত্যি হবার পালা। শরিরে বার্ধক্যের ছাপ কমিয়ে আনার ওষুধ আবিষ্কারের দাবি করেছেন হার্ভার্ডের একদল গবেষক।

- Advertisement -

নিউইয়র্ক পোস্টের খবরে বলা হয়, হার্ভার্ডের বিজ্ঞানীরা ওষুধের একটি ককটেল আবিষ্কার করেছেন যা বড়ির সঙ্গে মিলিত হয়ে বার্ধক্যকে বিপরীত করতে পারে অর্থাৎ বয়সের ছাপ চেহারা থেকে দূর করতে পারে।

‘কেমিক্যালি ইনডিউসড রিপ্রোগ্রামিং টু রিভার্স সেলুলার এজিং’ নামের একটি সমীক্ষা ১২ই জুলাই এজিং জার্নালে গবেষকদের মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল৷

দলটি ছয়টি রাসায়নিক ককটেল আবিষ্কার করেছে যা ‘কয়েক বছর ধরে’ মানুষের এবং ইঁদুর উভয়ের ত্বকের কোষে বার্ধক্য প্রক্রিয়াকে হ্রাস করেছে।

হার্ভার্ড গবেষক ডেভিড সিনক্লেয়ারও টুইটারে এমনটা ব্যাখ্যা করেছেন এবং লিখেছেন, ‘’আমাদের সাম্প্রতিক প্রকাশনা শেয়ার করার জন্য কৃতজ্ঞতা। আমরা আগে দেখিয়েছি যে ভ্রূণের জিন চালু করতে জিন থেরাপি ব্যবহার করে বয়সের পরিবর্তন সম্ভব। এখন আমরা দেখাই যে এটি রাসায়নিক ককটেল দিয়ে সম্ভব। সাশ্রয়ী মূল্যের পুরো শরীরে বার্ধক্য কমানোর একটি পদক্ষেপ৷’

উল্লেখযোগ্যভাবে, প্রতিটি রাসায়নিক ককটেল পাঁচ থেকে সাতটি এজেন্ট রয়েছে, যার মধ্যে অনেকগুলি অন্যান্য শারীরিক এবং মানসিক ব্যাধিগুলির চিকিত্সার জন্য পরিচিত। তিনি এবং হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলে তার দল তিন বছরের বেশি সময় ধরে অণুগুলি খুঁজে বের করার জন্য কাজ করেছেন যা সেলুলার বার্ধক্যকে হ্রাস করতে এবং মানব কোষগুলিকে পুনরুজ্জীবিত করতে পারে।

গবেষক টুইটারে আরও বলেছেন, ‘অপটিক স্নায়ু, মস্তিষ্কের টিস্যু, কিডনি এবং পেশীর ওপর অধ্যয়নগুলি ইঁদুরের উন্নত দৃষ্টি এবং বর্ধিত আয়ুসহ আশাব্যঞ্জক ফলাফল দেখিয়েছে এবং সম্প্রতি, এই বছরের এপ্রিলে বানরদের দৃষ্টিশক্তি উন্নত করার পরীক্ষায় সফল হয়েছে।’

সিনক্লেয়ার জানান, ‘আমাদের প্রথম বয়সের রিভার্সাল জিন থেরাপির মানুষের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য প্রস্তুতি চলছে।’ প্রথম মানব ক্লিনিকাল ট্রায়ালগুলি বর্তমানে আগামী বছরের শেষের দিকে শুরু হবে বলে অনুমান করে তিনি জানিয়েছেন, সব ঠিকঠাক চলছে।

তবে হার্ভার্ডের একজন অধ্যাপকসহ অন্যান্য বিজ্ঞানীরা সতর্ক করেছেন, গবেষণাটি ‘বেশিরভাগ তথ্যই বাড়তি প্রচারণা এবং প্রাথমিক পর্যায়ের।’

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles