20.1 C
Toronto
মঙ্গলবার, অক্টোবর 3, 2023

হঠাৎ বিমানযাত্রীরা দেখলেন সামনে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী

হঠাৎ বিমানযাত্রীরা দেখলেন সামনে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী
সুইজারল্যান্ডের জেনেভা থেকে ফেরার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিমানযাত্রীদের খোঁজ নেন কুশল বিনিময় করেন পিআইডি

সুইজারল্যান্ডের জেনেভা থেকে দেশে ফেরার পথে বিমানের যাত্রীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সরকারপ্রধানের এমন সরলতায় অভিভূত বিমানের যাত্রীরা। শুক্রবার স্থানীয় সময় বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে জেনেভা থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন শেখ হাসিনা। যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার থেকে ছেড়ে আসা বিমানের বাণিজ্যিক এই ফ্লাইটে সাধারণ মানুষের সঙ্গেই যাত্রী ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটটি ঢাকার কাছাকাছি আসার পর যাত্রীরা হঠাৎ খেয়াল করলেন তাদের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যাত্রীদের কাছে তিনি জানতে চান, আপনারা কেমন আছেন?

প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ফ্লাইটে তাদের আসনের পাশে প্রধানমন্ত্রীকে পেয়ে অনেকেই বিস্মিত ও অবাক হয়েছেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় মেয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে ছবি তুলতে চাইলে তিনি অনেক যাত্রীর অনুরোধ রক্ষা করেন। বাচ্চাদের সঙ্গে খুব স্নেহের সঙ্গে কথা বলেন ও মজার গল্প করেন। কোলে তুলে নেন কয়েকজন শিশুকে।

- Advertisement -

প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ পেয়ে একাধিক যাত্রী গত সাড়ে ১৪ বছরে দেশের অপ্রত্যাশিত উন্নয়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে মতামত প্রকাশ করেন। প্রধানমন্ত্রী ১৪ থেকে ১৫ জুন অনুষ্ঠিত ‘ওয়ার্ল্ড অব ওয়ার্ক সামিট : সোশ্যাল জাস্টিস ফর অল’- এ যোগদান শেষে সুইজারল্যান্ডের জেনেভা থেকে দেশে ফেরেন। প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীদের বহনকারী নিয়মিত ফ্লাইটটি শুক্রবার দিবাগত রাত ১টা ৫৫ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিমানের কয়েকজন যাত্রী জানান, বাংলাদেশ স্থানীয় সময় রাত ১টার কিছু আগে হঠাৎ বিমানের ভিতরের পরিবেশ অন্যরকম হয়। নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তারা হঠাৎ খেয়াল করেন প্রধানমন্ত্রী নিজেই আসন ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়েছেন। তিনি কাউকে কিছু না বলে হাঁটতে হাঁটতে সাধারণ যাত্রীদের কাছে চলে যান। তাদের সঙ্গে কথা বলতে থাকেন। পরে কেবিন ক্রুদের সঙ্গেও ছবি তোলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। বিমানের অনেক যাত্রী বলেন, এ জন্যই তিনি বঙ্গবন্ধুকন্যা, সবার থেকে আলাদা। শুধু ঘুরে ঘুরে কুশল বিনিময়ই করেননি, বাচ্চাদের কোলে নিয়ে, মাথায় হাত দিয়ে আদর এবং দোয়া করেন প্রধানমন্ত্রী।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles