15.5 C
Toronto
রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪

বার্ড ফ্লুর কারণে ব্র্যাম্পটনে পাখির মৃত্যু

বার্ড ফ্লুর কারণে ব্র্যাম্পটনে পাখির মৃত্যু
বার্ড ফ্লু নামে পরিচিত এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জায় আক্রান্ত হয়ে ব্র্যাম্পটন ও ক্যালেডনে সম্প্রতি বেশ কিছু পাখি মারা গেছে বলে পিল রিজিয়ন জানিয়েছে

বার্ড ফ্লু নামে পরিচিত এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জায় আক্রান্ত হয়ে ব্র্যাম্পটন ও ক্যালেডনে সম্প্রতি বেশ কিছু পাখি মারা গেছে বলে পিল রিজিয়ন জানিয়েছে। মৃত পাখিগুলো ব্র্যাম্পটনের প্রফেসর’স লেক ও কোলেরেইনের পাশে একটি পুকুরে এবং ক্যালেডনের হারভেস্ট মুন ড্রাইভে পাওয়া যায়।

পিল রিজিয়ন বলছে, পাখিগুলোর মৃত্যুর কারণ জানতে কানাডিয়ান ওয়াইল্ডলাইফ হেলথ কোঅপারেটিভ তদন্ত করছে। তবে কত সংখ্যক পাখি মারা গেছে তা এখনো জানা যায়নি।

- Advertisement -

পিল রিজিয়নের ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নিকোলাস ব্র্যান্ডন এক বিবৃতিতে বলেছেন, এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা পাখির জন্য হুমকি হলেও তা মানুষের মধ্যে ছড়ানোর সম্ভাবনা খুবই কম। মানুষের মধ্যে এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জার যেসব ঘটনা ঘটেছে সেগুলোর কারণ মূলত আক্রান্ত পাখির সংস্পর্শে যাওয়া। এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জার বিস্তার রোধে এবং বাসিন্দা ও পোষ্যদের স্বাস্থ্য রক্ষার্থে সুপারিশকৃত নীতিমালা মেনে চলতে বাসিন্দাদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

নায়াগ্রার একটি বাণিজ্যিক মুরগির খামারে ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর টরন্টো জু এ সপ্তাহের গোড়ার দিকে এর পাখিশালা বন্ধ করে দিয়েছে। চ্যাথাম-কেন্টেও আরেকটি সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

বার্ড ফ্লু থেকে বাসিন্দারা কীভাবে নিজেদের ও পোষ্যদের সুরক্ষিত রাখবেন সে ব্যাপারে বেশ কিছু পদক্ষেপ মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছে পিল রিজিয়ন। তার মধ্যে আছে, সম্ভব হলে মৃত বা অসুস্থ্য পাখি না ধরা। ধরতে যদি হয়ই তাহলে গ্লাভস পরে নিয়ে মৃত পাখি বা প্রাণী ডাবল প্লাস্টিক ব্যাগে রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ব্যাগের মুখটি শক্ত করে বেঁধে ভালো করে হাত ধুয়ে ফেলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কোথাও মৃত পাখি বা প্রাণী দেখঅ গেলে স্থানীয় মিউনিসিপালিটি বা কানাডিয়ান ওয়াইল্ডলাইফ হেলথ কোঅপারেটিভকে খবর দিতে হবে। এ ছাড়া ব্যাকইয়ার্ডে থাকা পাখিকে খাওয়ানোর বা গোসল করার পাত্র সরিয়ে ফেলতে হবে। তা যদি সম্ভব না হয় তাহলে পারিবারিক পোষ্য থেকে সেগুলোকে দূরে রাখতে হবে এবং প্রতি দুই সপ্তাহে ১০ শতাংশ ব্লিচ দিয়ে পরিস্কার করতে হবে।

পাখিদের কাছ থেকে পোষা প্রাণীদের দূরে রাখতে হবে। পোষা প্রাণীদের মুরগির কাচা মাংস খাওয়ানো যাবে না। যারা ব্যাকইয়ার্ডে মুরগি পালন করে থাকেন তাদেরকে নিয়মিত বার্ড ফ্লুর লক্ষণ সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে এবং প্রদেশ ও কানাডা সরকারের সুপারিশ পরিপালন করতে হবে। অসুস্থ্য পাখি ধরার ১০ দিনের মধ্যে যদি কারো শরীরে ইনফ্লুয়েঞ্জার লক্ষণ দেখা দেয় সেক্ষেত্রে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। আপনি যে বণ্যপ্রাণির সংস্পর্শে এসেছিলেন স্বাস্থ্যসেবা কর্মীকে তা অবহিত করতে হবে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles