অকাস জোট নিয়ে কানাডার কোনো আগ্রহ নেই

- Advertisement -

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেছেন, এটা অস্ট্রেলিয়ায় নিউক্লিয়ার সাবমেরিন বিক্রির জোট। এতে কানাডার কোনো আগ্রহ নেই

যত দ্রুত সম্ভব ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁর সঙ্গে আবারও বসার অপেক্ষায় আছেন প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে শিগগিরই মুখোমুখি বসে বৈঠক করতে চান ইমানুয়েল মাখোঁ। বিষয়টি জানিয়ে কানাডায় নিযুক্ত ফরাসী রাষ্ট্রদূত কারিন রিসপাল বলেন, কোভিড-১৯ মহামারির আগে উভয় দেশের শুরু করা অসম্পন্ন কাজগুলো নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি গত মাসে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও অস্ট্রেলিয়া গঠিত জোট নিয়ে জাস্টিন ট্রুডোর পর্যবেক্ষণও জানতে চান তিনি।

নতুন অকাস জোট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মাখোঁ। একে বিশ্বস্ত মিত্রদের পিঠে ছুরি মারা বলেও মন্তব্য করা হয়েছে। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেছেন, এটা অস্ট্রেলিয়ায় নিউক্লিয়ার সাবমেরিন বিক্রির জোট। এতে কানাডার কোনো আগ্রহ নেই।

- Advertisement -

ফরাসী দূতাবাসে সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে রিসপাল বলেন, এটা খুবই অস্পষ্ট। অস্ট্রেলিয়ায় সাবমেরিন সরবরাহের সম্ভাবনার ঘোষণাটিই এসেছে কেবল। সুতরাং আমাদের মতে, এটা দুর্বল জোট।

ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে চীনের বর্ধিত প্রভাব মোকামেবালয় অস্ট্রেলিয়াকে সাহায্য করতেই অকাস জোট গঠন করা হয়েছে। এর মূল্য উদ্দেশ্য নিউক্লিয়ার সাবমেরিন ক্রয়ে অস্ট্রেলিয়াকে সাহায্য করা। পাশাপাশি তিন দেশের প্রতিরক্ষা শিল্পের মধ্যে বৃহত্তর সহযোগিতা প্রতিষ্ঠাও এর আরেকটি উদ্দেশ্য।

- Advertisement -

দ্য কানাডিয়ান প্রেস জানায়, এসবই ফ্রান্সকে ক্ষুব্ধ করেছে। কারণ, ফ্রান্সের প্রতিরক্ষা শিল্পগুলোও নিউক্লিয়ার সাবমেরিন নির্মাণ করে থাকে। মাখোঁ জাস্টিন ট্রুডোর সঙ্গে সামনাসামনি বসে আলোচনা করতে চান বলে জানান রিসপাল। তিনি বলেন, পরস্পর মিলিত হওয়া ও প্যারিস বা অটোয়ার কোথাও শিগগিরই বৈঠক করা এবং কৌশলগত বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের মধ্যকার ট্রান্সআটলান্টিক সংযোগ শক্তিশালী করতে আমরা উদগ্রিব হয়ে আছি। কানাডার সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক বিশ্বাস, আস্থা ও বন্ধুত্বের।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles