5.1 C
Toronto
মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২

বিদেশি ভাষা জানেন গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্সের মাত্র ১৮% নির্বাহী

বিদেশি ভাষা জানেন গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্সের মাত্র ১৮% নির্বাহী
গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডার প্রতি পাঁচজন নির্বাহীর মধ্যে একজনেরও কম বিদেশি ভাষা জানেন

গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডার প্রতি পাঁচজন নির্বাহীর মধ্যে একজনেরও কম বিদেশি ভাষা জানেন। একে দুর্ভাগ্যজনক বলে উল্লেখ করা হয়েছে কানাডিয়ান রাষ্ট্রদূত উলরিক শ্যাননের নতুন এক গবেষণায়।

মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক গবেষক শ্যানন আরবিতে অনর্গল কথা বলতে পারেন এবং তাঁর সর্বশেষ পদায়ন ছিল ২০২১ সাল পর্যন্ত ইরাকে কানাডার রাষ্ট্রদূত হিসেবে। শ্যানন তাঁর গবেষণায় যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডার কর্মকর্তাদের বিশেষায়িত দক্ষতার তুলনা করেছেন। তিনি বলেছেন, অন্য দেশগুলো তাদের কর্মীদের মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতি অথবা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য বিষয়ে গভীর দক্ষতা অর্জনে উৎসাহিত করছে। কানাডা সেক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে এবং বৈশি^ক মঞ্চে অসুবিধার সম্মুখীন হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে।

- Advertisement -

গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডার কর্মীদের ক্ষেত্রে বিদেশি ভাষার যে শর্ত আছে তা পূরণ করেছেন মাত্র ২৩ শতাংশ। তবে নির্বাহী পর্যায়ে এ হার আরও কম মাত্র ১৮ শতাংশ। বিদেশি ভাষায় অনর্গল কথা বলতে পারেন এমন কর্মকর্তাদের দিয়ে নির্ধারিত পদগুলো পূরণে অন্যান্য দেশের চেয়ে অনেকটাই পিছিয়ে আছে কানাডা। বিদেশি ভাষায় সাবলীলভাবে কথা বলতে পারঙ্গম কূটনীতিক তৈরিতে কানাডার অপরিপক্ক যে রেকর্ড অন্যদের তুলনায় তা দুর্ভাগ্যজনকভাবে পিছিয়ে আছে।

বিস্তারিত প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে বর্তমান ও সাবেক ৬০ জনের বেশি কূটনীতিক, সরকারি কর্মকর্তা ও শিক্ষাবিদের সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে। তাদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে কারোই নাম প্রকাশ করা হয়নি প্রতিবেদনে। এর আগে অপ্রকাশিত অসংখ্য সরকারি প্রতিবেদনের সহায়তা নিয়েছেন তিনি।

এটা দীর্ঘদিনের ইস্যু। ২০০৭ মহাহিসাব নিরীক্ষকের এক প্রতিবেদনে গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডাকে ভর্ৎসনা করা হয়েছিল। কারণ, বিদেশি ভাষা জানার যে শর্ত তা পূরণ করেছিলেন মাত্র ১৬ শতাংশ কূটনীতিক। সেই সঙ্গে কর্মীবাহিনী ব্যবস্থাপনার জন্য মৌলিক তথ্যও বিভাগটির কাছে ছিল না। বিদেশি ভাষায় প্রশিক্ষণের জন্য তহবিলের পরিমাণ বাড়ানোর ফলে পরবর্তী বছরগুলোতে বিদেশি ভাষায় দক্ষতা বৃদ্ধি পায়। কিন্তু এর ১৫ বছর পর এসে ভাষা বিষয়ক সার্বিক কমপ্লায়েন্স আবার ২০০৭ সালের অবস্থায় নেমে গেছে।

This article was written by Sohely Ahmed Sweety as part of the LJI.

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles