14.1 C
Toronto
রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২

বিষণ্ণতার চিকিৎসায় ম্যাজিক মাশরুম

- Advertisement -
ফাইল ছবি

ম্যাজিক মাশরুমে বিষণ্ণতার চিকিৎসার উপাদান থাকতে পারে কী? সেটাই খুঁজে দেখছেন টরন্টোর সেন্টার ফর অ্যাডিকশন অ্যান্ড মেন্টাল হেলথের গবেষকরা।

চিকিৎসা প্রতিরোধী বিষণœতায় ভোগা ব্যক্তির ওপর সাইলোসিবিনের সম্ভাব্য প্রবাব কী হতে পারে তা গবেষণায় প্রথমবারের মতো ফেডারেল তহবিল পাওয়ার কথা ঘোষণা করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ইন-হাউজ সাইকিয়াট্রিস্ট ড. ইশরাত হুসেইন গবেষণাটির নেতৃত্ব দেবেন।

সিএএমএইচের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালস ইউনিটের প্রধান ইশরাত হুসেন বলেন, মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা ও মাদকাসক্তির চিকিৎসায় সাইকেডেলিক ড্রাগসের ব্যবহার নিয়ে আগ্রহ বাড়ছে। আগের পরীক্ষায় সাইলোসিবিনে বড় পরিসরে অ্যান্টিডিপ্রেসেন্টের প্রভাব চিহ্নিত হয়েছে। এই গবেষণাতেও যদি বিষণœতার চিকিৎসায় সাইলোসিবিনের কার্যকারিতার প্রমাণ পাওয়া যায়, তাহলে চিকিৎসাকালীন মানসিক সহায়তার জন্য সময়-সংবেদি ও ব্যয়বহুল প্রয়োজনের আর দরকার পড়বে। এর ফলে চিকিৎসা আরও সহজ হবে।

তিন বছরব্যাপী নতুন এই পরীক্ষায় চিকিৎসা প্রতিরোধী বিষণœতায় ভোগা প্রাপ্ত বয়স্ক ৬০ জন অংশ নেবেন। তাদেরকে তিনটি কোহর্টে ভাগ করা হবে এবং দৈবচয়নভিত্তিতে তৃতীয় কোহর্টকে পূর্ণ মাত্রায় সাইলোসিবিন ও ৫-এইচটি২এ সেরোটোনিন ব্লকার দেওয়া হবে, যা ড্রাগের সাইকোডেলিক প্রভাব প্রতিরোধ করবে। একটি গ্রুপকে সাইলোসিবিনসহ প্লাসেবো দেওয়া হবে। আরেকটি গ্রুপকে দেওয়া হবে প্লাসেবো ও সেরোটোনিন ব্লকার। সাইকোডেলিক গবেষণার প্রচলিত প্রথা অনুযায়ী সব অংশগ্রহণকারীকেই ১২ ঘণ্টার সাইকোথেরাপি দেওয়া হবে।

এই গবেষণায় অংশগ্রহণে আগ্রহী যে কেউ তাদের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সঙ্গে কথা বলতে পারবেন এবং তারা যোগ্য কিনা তা সিএএমএইচের কাছে পাঠানো হবে।
This article was written by Sohely Ahmed Sweety as part of the LJI.

Related Articles

Latest Articles