22.7 C
Toronto
বুধবার, আগস্ট ১৭, ২০২২

বিশ্বের বিস্ময় ‘পদ্মা সেতু’

- Advertisement -
পদ্মা সেতু

খরচ ৩০,১৯৩.৩৯ কোটি (৩.৮৬ বিলিয়ন ইউএস ডলার)
দৈর্ঘ্য: ৬.১৫ কিমি
প্রস্থ: ১৮.১৮ মিটার
উচ্চতা: ১২০ মিটার
স্প্যান সংখ্যা: ৪১
পিলার সংখ্যা: ৪২
উপরের ডেক: চার লেন রাস্তা
নিচের ডেক: এক লেন রেল লাইন
সর্বোচ্চ গভীর পাইল: ১২৮ মিটার মাটির নিচে
২৮২,০০০ টন স্টিল প্লেট
৯২,২৮৬ টন স্টিল
ডিজাইনার: AECOM
কনস্ট্রাকশন কোম্পানি: China Major Bridge Engineering Co. Ltd.

আকাশচুম্বী খরচ।

এর মূল কারণ বিশ্বের অন্যতম খরস্রোতা নদী শাসন, বিশ্বের গভীরতম পাইলিং এ অসম্ভব জটিলতা, নদীশাসন, উপকরণের উচ্চ মূল্য, আমদানি নির্ভর উপকরণ, ডিজাইনের পরিবর্তন। বালি, পাথর, রড, সিমেন্ট (বেশিরভাগ) ছাড়া বাকি প্রায় সবকিছু বাইরে থেকে আমদানি করতে হয়েছে। বিশ্বের অন্যান্য সেতুর সাথে কম্পেয়ার করে খরচ সম্পর্কে আন্দাজ করাটা যুক্তিযুক্ত হবে না। আমাদের নিজস্ব টেকনোলজির অভাবে এ ধরণের মেগা প্রজেক্ট অবকাঠামো তৈরিতে উন্নত দেশের তুলনায় কয়েকগুন বেশি খরচ করতে হয় দুৰ্ভাগ্যজনকভাবে।
এ সেতু তৈরী করে দেখিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ- আমরা পারি।

প্রতিটা রাষ্ট্র প্রধানকে সফলতা, ব্যর্থতা মাথায় নিয়েই কাজ করতে হয়। পদ্মা সেতু তৈরিতে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়চিত্ত, অঙ্গীকার, সফলতা সত্যি একটা মাইলফলক হয়ে থাকবে। প্রাণ ঢালা অভিনন্দন, ধন্যবাদ উনার প্রাপ্য। ধন্যবাদ দেশের সবাইকে। সবার আগে মহান সৃষ্টিকর্তাকে।
আর সৈনিকগণ, এবার দয়া করে নদীর নামের সেতুর মর্যাদাটা ধরে রাখার চেষ্টা কইরো? তোমরা তো একেকটা ভালো জিনিস ধরবা, কান্ডজ্ঞান হারিয়ে অতি প্রশংসা করে সেটার বারোটা বাজিয়ে ছাড়বা।

বাংলাদেশের আরও সমৃদ্ধি আসুক। আমাদের গর্বের সেতু উদ্বোধনের সময় এক দিকে আনন্দ, অন্য দিকে বন্যায় বানভাসি মানুষের আর্তনাদ। আমরা যেন অসহায় মানুষদের ভুলে না যাই, তাদের পাশে রেখেই কাজ করে যাই।

বাংলাদেশের মানুষ আরো উপকৃত হোক এ সেতু ব্যবহার করে।
আমরা কি সত্যি সেতুটা দেখিয়ে বলতে পারবো যে, “দ্যাখো দুর্নীতি ছাড়াই আমরা বানাতে পেরেছি!” তাহলে সেটা হবে দেশের জন্য আরো এক মাইলফলক।
দেশ নিয়ে আমাদের আশাবাদ চিরদিনের।

অটোয়া, কানাডা

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles