15.3 C
Toronto
রবিবার, মে ২২, ২০২২

নির্লজ্জ মানবজাতি

- Advertisement -
নির্লজ্জ মানবজাতি - The Bengali Times
তসলিমা নাসরিন

মুম্বইয়ের থানে এলাকায় নিকেশ ঘাগ নামের এক ব্যাংকের কেরানি তার স্ত্রী নির্মলাকে মেরে ফেলেছে এক সকালে। সকালে নির্মলা সাবুদানা খিচুড়ি রেঁধেছিল। নাশতায় খিচুড়ি খেতে দিয়েছিল নিকেশকে। নিকেশ খাওয়ার সময় টের পায় খিচুড়িতে লবণের পরিমাণ বেশি। তার তখন এমন রাগ হয় যে খাওয়া ছেড়ে উঠে নিকেশ নির্মলাকে পেটাতে শুরু করলো। পেটাতে পেটাতে শোবার ঘরে নিয়ে নির্মলার গলায় দড়ি বেঁধে টেনে ধরেছে। যেন শ্বাসরোধ হয়ে নির্মলা মরে যায়। নির্মলা মরে গেছে বলে নিকেশের কোনও অনুতাপ নেই। সে পুলিশকে বলেছে যে সে হাই ব্লাড প্রেশারের রোগী। নিকেশ বলতে চাইছে তার উচ্চরক্তচাপ আছে, সে কারণ তাকে লবণ কম খেতে হবে, এ কথা নির্মলাও জানে। নির্মলা তাহলে কেন খেয়াল করলো না যে খিচুড়িতে লবণ কম হয়নি, বরং বেশি হয়েছে? স্বামীর স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে যে স্ত্রী জানে না, তার বেঁচে থাকার চেয়ে মরে যাওয়াই ভালো। নিকেশকে নির্মলার ওপর নির্যাতন করতে দেখে তাদের বারো বছরের পুত্র তার নানিকে আর মামাকে খবর দেয়। তারা বাড়ি এসে নির্মলাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু হাসপাতালের ডাক্তার জানিয়ে দেয় নির্মলার মৃত্যু হয়েছে হাসপাতালে পৌঁছোনোর আগেই।

খাদ্য সংক্রান্ত কারণে বহু পুরুষই তাদের স্ত্রীকে খুন করেছে। জানুয়ারি মাসে নয়ডা এলাকায় এক লোক তার স্ত্রীকে খুন করেছে, কারণ স্ত্রী তাকে রাতের খাবার দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল। গত বছরের জুন মাসে উত্তর প্রদেশে এক লোক তার স্ত্রীকে খুন করেছে কারণ স্ত্রী তার খাবারের সঙ্গে সালাদ দেয়নি। গত বছরের অক্টোবরে ব্যাঙ্গালরে এক লোক তার স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা করেছে কারণ স্ত্রীর বানানো ফ্রায়েড চিকেন অত ভালো হয়নি যতটা ভালো লোকটি আশা করেছিল। বছর পাঁচ আগে অশোক কুমার নামের এক লোক গুলি করে মেরেছে তার স্ত্রী সুনয়নাকে, কেন, ডিনার দিতে দেরি হলো কেন।

- Advertisement -

এসবের কারণ নারীর প্রতি ঘৃণা। ঘরে ঘরে এই ঘৃণা এত চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে যে স্ত্রীদের শুধু মানসিক নির্যাতন নয়, পিটিয়ে, চড় কিল মেরে, চুলের মুঠি ধরে টেনে হিঁচড়ে, লাথি মেরে, অকথ্য সব শারীরিক নির্যাতন করেও শান্ত হচ্ছে না পুরুষেরা, স্ত্রীদের শ্বাসরোধ করে মারছে, গুলি করে মারছে।
এদিকে পশ্চিমবঙ্গের বহরমপুরেও সুশান্ত চৌধুরী দেখিয়ে দিল নারীর প্রতি ঘৃণা কী ভয়ঙ্কর হতে পারে। সুতপা চৌধুরী সুশান্ত চৌধুরীর বিয়ে করা বউ নয়। দুজনই কলেজে পড়ে। অথচ সুশান্ত সুতপাকে কামনা করে বলে সুতপাকে সে তার ব্যক্তিগত সম্পত্তি বলে মনে করেছে। সুতপার অন্য কারও সঙ্গে বন্ধুত্ব হবে, অন্য কারও সঙ্গে সে সিনেমায় যাবে, তা সহ্য করতে পারেনি। তাই দিনে দুপুরে একশো লোকের সামনে কুপিয়ে মেরে ফেলতে দ্বিধা করেনি। থানায় গিয়ে পুলিশকে বারবারই সুশান্ত জিজ্ঞেস করেছিল, মরেছে তো মেয়েটি, মরেছে তো? মরেছে এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে স্বস্তি পেয়েছে। নদীয়ার হাঁসখালিতেও ঘটে গেল নৃশংস ঘটনা। এক কিশোরীকে তার প্রেমিক জন্মদিনের নেমন্তন্ন করেছিল, নেমন্তন্নবাড়িতে যাওয়ার পর প্রেমিক তার বন্ধুদের নিয়ে কিশোরীটিকে ধর্ষণ করে, এমনই ধর্ষণ করে যে মেয়েটির মৃত্যু হয়। পুরুষেরা শুধু তাদের স্ত্রীদের নয়, তাদের প্রেমিকাদেরও নিজস্ব সম্পত্তি বলে মনে করে। তারা বিশ্বাস করে তাদের সম্পত্তির ওপর তাদের পূর্ণ অধিকার। এই সম্পত্তিকে দুমড়ে মুচড়ে নষ্ট করার, এই সম্পত্তিকে রক্তাক্ত করার, পিষে ফেলার, নিশ্চিহ্ন করার অধিকার তাদেরই আছে।

পুরুষেরা স্ত্রীদের নির্যাতন করতে করতে এমন অবস্থা তৈরি করে যে অনেক সময় তাদের আর স্ত্রীদের হত্যা করতে হয় না, স্ত্রীরাই স্ত্রীদের হত্যা করে তাদের বাঁচিয়ে দেয়। তাদের আর জেলে যেতে হয় না। মনে পড়ছে আইআইটি’র পিএইচডি স্কলার ২৮ বছর বয়সী প্রখর মেধাবী মঞ্জুলা দেভাকের কথা। কিছুকাল আগে তিনি নিজের গলায় দড়ি দিয়েছেন। আইআইটি’র নালন্দা অ্যাপার্টমেন্টেই ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। ঘরের দরজা ভেঙে ঢুকে পুলিশ দেখেছে মঞ্জুলার শরীর ঝুলছে সিলিং ফ্যানে। আত্মহত্যা করেছে মেয়ে। হাসিখুশি মেয়েটির হঠাৎ কী হলো যে আত্মহত্যা করবে? করেছে কারণ রিতেশ চরম অশান্তি করছিল। রিতেশ মঞ্জুলার স্বামী। পণ দাবি করছিল। তাকে ২৫ লাখ টাকা দিতে হবে, সে ব্যবসা করবে। ব্যবসা করার টাকা সে নিজে জোগাড় করবে না, তার বাবা কাকা মামা জ্যাঠা বা মা মাসির কাছ থেকে নেবে না, নেবে স্ত্রীর কাছ থেকে, স্ত্রীর বাবা মা’র কাছ থেকে। পণের টাকায় আরাম আয়েশ করার স্বপ্ন প্রায় প্রতিটি পুরুষের। বাড়ি ঘর ছেড়ে মঞ্জুলার হোস্টেলে এসে উঠেছিল রিতেশ। মঞ্জুলাকে সে আইআইটি’র পড়াশোনা কিছুতেই করতে দেবে না। তাকে নিজের পায়ে দাঁড়াতে দেবে না। বিশাল বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল সে মঞ্জুলার জীবনে। রিতেশ চায় মঞ্জুলার সাফল্য বলতে কিছুই না থাকুক। পণ এবং প্রাণ ঢেলে মঞ্জুলা তাকে একটি ব্যবসা দাঁড় করিয়ে দিক। দিনের পর দিন রিতেশের অত্যাচার সইতে না পেরে মঞ্জুলা শেষ পর্যন্ত আত্মহত্যা করেছে। মঞ্জুলার জন্য আমার দুঃখ হয়, দুঃখ হয় প্রতিভাময়ী আরও অনেক মেয়ের জন্য, যারা বিসর্জন দেয় নিজের অর্থপূর্ণ অমূল্য জীবন। পুরুষের হাতে নির্যাতিত হতে হতে যাদের আত্মবিশ্বাস বলতে প্রায় কিছুই অবশিষ্ট থাকে না।

আত্মহত্যা করার পর মঞ্জুলার বাবা বলেছিলেন, ‘ভুল করেছি মেয়েকে আইআইটি-তে পাঠিয়ে, তার চেয়ে টাকাগুলো যদি পণের জন্য জমাতাম, ভালো হতো, মেয়েটা বাঁচতো।’ রিতেশের মতো এরকম লোভী লোককে কেন বিয়ে করেছিল মঞ্জুলা! মঞ্জুলার বাবা বলেছেন, ‘ওদের রাশিফল চমৎকার মিলেছিল।’ এই মুশকিল, শিক্ষিত মানুষ হয়েও রাশিতে বিশ্বাস করেন। যুক্তি জেনেও অযৌক্তিক কীর্তিকলাপ মেনে নেন। বিজ্ঞানের সুযোগসুবিধে সব গ্রহণ করেও অবিজ্ঞানে বিশ্বাস করেন।

পণপ্রথা আজকের নয়। প্রথাটি কয়েক হাজার বছরের পুরনো। পৃথিবীর বহু দেশেই এই প্রথা ছিল, অনেক দেশে এখনও আছে। অবৈধভাবে হলেও আছে। গোটা উপমহাদেশেই এই প্রথা চলছে। আইন করেও, শাস্তি দিয়েও এই প্রথা বন্ধ করা যাচ্ছে না। এই পণের কারণে হাজারো বধূকে হত্যা করা হচ্ছে, হাজারো বধূ অসম্মানিত আর অপমানিত হয়ে আত্মহত্যা করছে।

যতদূর জানি প্রাচীনকাল থেকেই এই অঞ্চলে পণপ্রথার চর্চা চলছে। কিন্তু পুরনোকালের কিছু পর্যটক তাঁদের বইয়ে লিখে গেছেন, ভারতবর্ষে বিয়েতে তাঁরা কাউকে পণ দিতে দেখেননি। জানি না, তখন হয়তো পণপ্রথা এখনকার মতো এত ভয়ঙ্কর ছিল না, অথবা পর্যটকের চোখে পড়েনি পণের আদান প্রদান। প্রাচীন গ্রিসের রাজা আলেক্সান্ডার দ্য গ্রেট ভারতের বিয়েতে পণ দিতে দেখেননি। পারস্য দেশের বুদ্ধিজীবী আল বিরুনি ভারতবর্ষে ১০১৭ সালে এসেছিলেন, ছিলেন ষোলো বছর। তার আত্মজীবনীতেও আছে ভারতের বিয়ের বর্ণনা, যেখানে পণের কোনও চিহ্ন নেই।

প্রাচীনকালের যৌতুক একতরফা ছিল না। বধূর তরফ থেকে বরকে দেওয়া হতো, বরের তরফ থেকেও বধূকে দেওয়া হতো। বরের তরফ থেকে বধূর পরিবারে পণ দেওয়ার কারণ ছিল, ওই পরিবারে একজন শ্রমিক কম পড়ে যাওয়ার ক্ষতিপূরণ। আর বধূর পরিবার থেকে বরের পরিবারে যে পণ দেওয়া হতো, সেটি মূলত পিতার সম্পত্তি থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে বধূটির যা পাওয়ার কথা ছিল, তা। তখনকার আইন কন্যাদের উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করতো। এখন এই আধুনিককালের উত্তরাধিকার আইন কন্যাদের বঞ্চিত করে না। পুত্রদের মতোই কন্যারাও বাবা-মায়ের সম্পত্তির ভাগ পায়। উপমহাদেশের প্রতিটি দেশেই আজ পণ বা যৌতুক নিষিদ্ধ। কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞা পণের চর্চাকে ঠেকাতে পারছে না। মেয়েরা যত নিচে নামে, পণ তত ওপরে ওঠে। আসলে বলা উচিত, সমাজে মেয়েদের অবস্থানকে যত নিচে নামানো হয়, পণের টাকাকে তত বাড়ানো হয়। এই নামানো বাড়ানোর দড়িটা থাকে পুরুষতন্ত্রের হাতে। পণের কারণে বধূনির্যাতন আর বধূ হত্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। পণ না দিলে বধূকে পুড়িয়ে মারা হয়, কুপিয়ে মারা হয়, নয়তো বিষ খাইয়ে মারা হয়। বেশির ভাগ বধূ হত্যাকে বধূর আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়া হয়। বেশির ভাগ বধূনির্যাতনকে পরকীয়া সম্পর্কের কারণে বর -বধূর মধ্যে ঝগড়া লড়াই হচ্ছে বলে প্রচার করা হয়।

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক হওয়া উচিত ভালোবাসার, বিশ্বাসের। কিন্তু পণ এই সম্পর্ককে নষ্ট করে দিয়েছে। এখন সম্পর্কটা পুরুষের জন্য টাকা পয়সার, স্বার্থপরতার, আর নারীর জন্য বিসর্জনের, বেগার খাটার।

পণের লোভ যে লোকের, সেই নিকৃষ্ট, স্বার্থপর, ক্ষুদ্র লোককে বিয়ে করা বন্ধ করুক মেয়েরা। ওদের সঙ্গে সংসার করার চেয়ে একা থাকা অনেক ভালো। কেউ কেউ মনে করে পণ বেশি দিলে স্বামীর নির্যাতন কমে। এ ভুল প্রমাণিত হয়েছে। যত বেশি পণ দেবে, লোভী লোকের লোভ তত বাড়বে। লোভ বাড়লে অত্যাচার বাড়ে। পণের লোভ সব শ্রেণির পুরুষের। কপর্দকহীন থেকে কোটিপতির। মেয়েদের এখনও সমকক্ষ বলে ভাবছে না পুরুষেরা। এখনও ভাবছে মেয়েরা ঠিক মানুষ নয়, মানুষ হলেও কিছুটা ‘কম মানুষ’। এই দুষ্টচিন্তাটা যতদিন না দূর হবে, ততদিন এই পৃথিবীতে ভুগতে হবে মেয়েদের। মানুষ ছাড়া অন্য কোনও প্রজাতির মধ্যে নারী পুরুষে এরকম বৈষম্য নেই। মানুষ জাতটার লজ্জা কবে কবে বা আদৌ হবে কি না আমি জানি না। লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।

সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles