24.8 C
Toronto
শুক্রবার, জুলাই ১, ২০২২

গত এক বছরে ধর্ষণের শিকার ৮১৮ শিশু

- Advertisement -

গত এক বছরে ধর্ষণের শিকার ৮১৮ শিশু

২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে ৮১৮ জন শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণ চেষ্টা করা হয়েছে ৯৪ জন শিশুকে। এর মধ্যে ১৪ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১১০ জন শিশু। ২০২০ সালে শিশু ধর্ষণের এ সংখ্যা ছিল ৬২৬। সেই হিসেবে এক বছরে প্রায় দুই শতাধিক শিশু ধর্ষণ বেড়েছে।

মঙ্গলবার (২২ ফেব্রুয়ারি) এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে ‘বাংলাদেশ শিশু পরিস্থিতি ২০২১’ শিরোনামের এক পর্যালোচনায় এ তথ্য উপস্থাপন করে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের (এমজেএফ)।

পাঁচটি বাংলা ও ইংরেজি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত শিশু অধিকার বিষয়ক সংবাদ পর্যালোচনা করে এ তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করা হয়েছে।

সংবাদ পর্যালোচনায় দেখা যায়, বিভিন্ন কারণে রিপোর্টকালীন আত্মহত্যা করেছে ৭৮টি শিশু। এরই মধ্যে ৫৭ ছেলে ও ২১ মেয়ে। ২০২০ সালে আত্মহত্যাকারী শিশুর সংখ্যা ছিল ৩৪ ও আত্মহত্যার চেষ্টা করতে গিয়ে আহত হয়েছে ২৩ জন। মূলত পরীক্ষায় ফল বিপর্যয়, পরিবারের ওপর রাগ, প্রেম, উত্ত্যক্ত হয়ে, ধর্ষণের শিকার বা ধর্ষণ চেষ্টা, ধর্ষণের বা শ্লীলতাহানির বিচার না পাওয়া ও সাইবার ক্রাইম বা ব্ল্যাকমেইলের শিকার হয়েও আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে।

বিভিন্ন কারণে হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে ১৮৩ জন শিশু ও হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে ১৩৫টি শিশুকে। ২০২০ সালে হত্যার শিকার হয়েছিল ১৪৫ জন শিশু। ৬৯ জন শিশু সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে। ২০২০ সালে এ সংখ্যা ছিল ১৫৮ জন। ২০২১ সালে সড়ক দুর্ঘটনা ও অন্যান্য দুর্ঘটনায় নিহত এবং আহত হওয়ার সংখ্যা ২০২০ সালের তুলনায় কমেছে।

প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলো বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, পরিবারের পরিচিতদের মাধ্যমে ধর্ষণের শিকার হওয়া ছাড়াও প্রতিবেশীদের হাতে শিশুদের একটি বড় অংশ ধর্ষণের শিকার হচ্ছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে শিশুর সর্বনিম্ন বয়স দুই বছর। কিশোরীরা ধর্ষণের শিকার হচ্ছে প্রেম করতে গিয়ে। স্কুল ও মাদরাসাছাত্রীরা ধর্ষণের শিকার হচ্ছে শিক্ষক ও মাদরাসা শিক্ষকদের হাতে।

শিশু নির্যাতনের ৫৬টি ঘটনার মাধ্যমে ২৫৪ জন শিশু নির্যাতনের ঘটনা প্রকাশিত হয়েছে। ২০২০ সালে শিশু নির্যাতনের ১৬টি ঘটনা ঘটেছে। নির্যাতনকারী হিসেবে গৃহকর্তা, বাবা-মা, শিক্ষক, উত্ত্যক্তকারী, স্থানীয় চেয়ারম্যান, চাকরিদাতা, প্রতিবেশী ও সৎমা।

এমজেএফের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম বলেন, এমজেএফের বিশ্লেষণ অনুযায়ী শিশুরা নিজের বাসায় নিরাপদ নয়। শিশু ধর্ষণ ও শিশুকে যৌন হয়রানি বন্ধের জন্য সবাইকে এখনই জোটবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। নতুবা এর হার আরও বাড়তে থাকবে। শিশু সুরক্ষায় নিয়োজিত সরকারি প্রতিষ্ঠানের সবাইকে আরও বেশি সহৃদয়বান হওয়ার পাশাপাশি শিশু অধিকার রক্ষায় সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানান শাহীন আনাম।

সূত্র : নতুন সময়

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles