7.9 C
Toronto
বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২৮, ২০২১

জেঅ্যান্ডজের ভ্যাকসিন শুধুমাত্র যারা অপেক্ষা করতে চান না তাদের জন্যে

- Advertisement -
ছবি/জনসন এন্ড জনসন

৩০ বছরের বেশি বয়সী যেসব কানাডিয়ান ফাইজার-বায়োএনটেক অথবা মডার্নার ভ্যাকসিনের জন্য অপেক্ষা করতে চান না জনসন অ্যান্ড জনসনের ভ্যাকসিন পাবেন কেবল তারাই। ন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটি অন ইমিউনাইজেশন সোমবার এই সুপারিশ করেছে।

বিশেষজ্ঞ প্যানেল গত মাসে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের বিষয়ে যে সুপারিশ করেছিল এটাও ঠিক একই ধরনের। দুটি ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রেই সামান্য কিছু ক্ষেত্রে রক্ত জমাট বাধার ঝুঁকি রয়েছে।

- Advertisement -

ন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটি অন ইমিউনাইজেশনের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. শেলি ডিকস এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ভাইরাল-ভেক্টর ভ্যাকসিন খুবই কার্যকর ভ্যাকসিন। তবে কিছুটা নিরাপত্তা ঝুঁকি আছে। তাই জনগণকে এটা অবহিত করতে হবে যে তারা কি এমআরএনএ ভ্যাকসিনের জন্য অপেক্ষা করবেন নাকি যেটা পর্যাপ্ত পরিমাণে আছে সেটা নেবেন।

তবে ন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটি অন ইমিউনাইজেশনের এ সুপারিশ মাসের পর মাস ধরে দিয়ে আসা হেলথ কানাডার পরামর্শের ঠিক বিপরীত। হেলথ কানাডার প্রধান উপদেষ্টা ডা. সুপ্রিয়া শর্মা গত ১৪ এপ্রিলও কানাডিয়ানদের উদ্দেশে বলেন, সামনে যেটা আছে সেটাই নিন। ভ্যাকসিনের জন্য যত বেশি অপেক্ষা করবেন তত বেশি অরক্ষিত থাকবেন।

- Advertisement -

অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের নিরাপদতা নিয়ে হেলথ কানাডার পর্যবেক্ষণও এদিন তুলে ধরেন ডা. সুপ্রিয়া শর্মা। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, রক্ত জমাট বাধার সম্ভাবনা থাকলেও এটি নিরাপদ ও কার্যকর।

- Advertisement -

ডা. শেলি ডিকস বলেন, কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে সুরক্ষায় কোন ভ্যাকসিনটি বেশি কার্যকর প্রশ্ন সেটা নয়। মূল বিষয় হলো ভাইরাল-ভেক্টর ভ্যাকসিনের রক্ত জমাট বাধার ঝুঁকি আছে। এমআরএনএ ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে যে ঝুঁকিটা নেই। এখন ভাইরাল-ভেক্টর ভ্যাকসিনের এ ঝুঁকি কে কতটা নিতে পারবেন সেটা তাদের ব্যাপার। দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন পাওয়া যাদের জন্য কষ্টসাধ্য তাদের ক্ষেত্রে জনসন অ্যান্ড জনসনের ভ্যাকসিনকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছে অন্টারিও সরকার। কারণ, জেঅ্যান্ডজে হেলথ কানাডা অনুমোদিত এক ডোজের একমাত্র ভ্যাকসিন। তবে প্রসূতি মায়েদের এই ভ্যাকসিন না নেওয়াই ভালো।

সেপ্টেম্বরের শেষ নাগাদ ফাইজার ও মডার্নার কাছ থেকে পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন পেতে যাচ্ছে কানাডা। তবে ভ্যাকসিনে গতি বাড়াতে অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও জেঅ্যান্ডজের ভ্যাকসিনও ব্যবহার করা হবে।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles