আকাশে ভাসছে বিমান, ককপিটে ঘুমিয়ে পাইলট! তারপর…
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
ঘুম বড় বালাই। তাকে কি আর সহজে আটকানো যায়? চোখের পাতায় সে নেমে আসার জন্য কোনও অনুমতিও নেয় না। তবে ঘুমের চেহারা নিশ্চিন্ত হয় যখন কোনও পিছুটান থাকে না। কিন্তু এই ঘুম যখন বাকিদের ঘুম ওড়ানোর জোগাড় করে, সমস্যা হয় তখনই। ঠিক তেমনই একটি কাণ্ড ঘটল এক পাইলটের ঘুমে। বিমানের ককপিটেই ঘুমিয়ে পড়লেন তিনি। আর সেই অবস্থাতেই গন্তব্য অতিক্রম করে প্রায় ৫০ কিলোমিটার উড়ে গেল বিমানটি।

ভাবুন একবার দৃশ্যটা। বুকের ভিতরটা ছ্যাঁৎ করে ওঠার জোগাড় হবে। না, কোনও ছবির চিত্রনাট্য নয়, এক্কেবারে বাস্তবের মাটিতেই এ ঘটনা ঘটেছে। গত ৮ নভেম্বর তাসমানিয়ার কিং আইল্যান্ড থেকে উড়ে যায় পাইপার পিএ-৩১ এয়ারক্রাফ্টটি। ছোট্ট বিমানে সে সময় একাই ছিলেন পাইলট। কিন্তু তিনি ছিলেন ঘুমন্ত অবস্থায়। বিমানটি আকাশে ভাসমান অবস্থায় কখন যে তাঁর চোখ লেগে গিয়েছে, বুঝতেই পারেননি। তবে সৌভাগ্যবশত অবতরণের আগেই ঘুম ভাঙে পাইলটের। ধরমরিয়ে ওঠেন তিনি। তারপর নিরাপদেই বিমানটি অবতরণ করান। ভাগ্যিস কুম্ভকর্ণের দশা হয়নি তাঁর। নাহলে যে কী কেলেঙ্কারি হত, তা ভাবলেও গায়ে কাঁটা দেয়।

তবে এমন ঘটনায় ক্ষুব্ধ অস্ট্রেলিয়ান ট্রান্সপোর্ট সেফটি ব্যুরো (এটিএসবি)। গোটা ঘটনা খতিয়ে দেখছে তারা। কীভাবে এমন দায়িত্বজ্ঞানহীনের মতো কাজ করতে পারেন পাইলট, সে নিয়েই প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। এটিএসবি-র তরফে জানানো হয়েছে, পাইলট যখন ঘুমাচ্ছিলেন, তখন ৪৬ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে যায় ছোট্ট বিমানটি। ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে পাইলটকে। আগামী বছর এ নিয়ে রিপোর্ট পেশ করবে তারা।

উল্লেখ্য, এর আগে মেলবোর্ন থেকে রওনা হওয়া একটি যাত্রীবাহী বিমান কিং আইল্যান্ডের কাছেই দুর্ঘটনায় পড়েছিল। যাতে মৃত্যু হয়েছিল পাঁচজন যাত্রীর। তবে এবার কোনও অঘটন ঘটেনি। সৌভাগ্যক্রমে রক্ষা পেলেন পাইলট।

 

২৭ নভেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪২:৪৬