20 C
Toronto
সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০২২

এ বছর বাজেট ঘাটতি দাঁড়াবে ১৪৪.৫ বিলিয়ন ডলার

- Advertisement -
অর্থমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড

এ বছর কানাডার বাজেট ১৪৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার হওয়ার পথে রয়েছে। সরকারের আগের পূর্বাভাসের চেয়ে এ ঘাটতি অনেকটাই কম। এর আগে ১৫৪ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার ঘাটতির পূর্বাভাস করেছিল ফেডারেল সরকার।

অর্থমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ড মঙ্গলবার আর্থিক অবস্থার হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানান। কোভিড-১৯ নিয়ে উদ্বেগের কারণে ভার্চুয়ালি তিনি হালনাগাদ তথ্য তুলে ধরেন।

বাজেট ঘাটতি কমানোর ক্ষেত্রে প্রত্যাশার চেয়ে ভালো করার কারণ নতুন ট্যাক্স রাজস্ব থেকে বড় অংকের অর্থ প্রাপ্তি এবং জ¦ালানি তেলের উচ্চ মূল্য। এর ফলে সরকারের সামনে ৩৮ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার অতিরিক্ত ব্যয়ের সুযোগ তৈরি হয়েছে। এর মধ্যে ২৮ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার চলে যাবে নতুন ব্যয় ও আগে প্রতিশ্রুত ব্যয় বাবদ।

নতুন পদক্ষেপ হিসেবে ৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হবে ব্যাপক বন্যার কবলে পড়া ব্রিটিশ কলাম্বিয়া পুনর্গঠনে। আরও ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট মোকাবেলায়। সীমান্তে গৃহীত পদক্ষেপ এবং লকডাউনের কারণে কাজ হারানো কর্মীদের পেছনে ব্যয় এর মধ্যে অন্যতম। এর বাইরেও কয়েক মিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হবে স্কুল, লাইব্রেরি, হাসপাতাল ও কমিউনিটি সেন্টারগুলোর ভেন্টিলেশন ব্যবস্থার উন্নয়নে। এছাড়া কোম্পানিগুলোর আধুনিকায়নে ট্যাক্স ক্রেডিটও দেওয়া হবে।

গত বছর জরুরি সহায়তা নেওয়ার কারণে আর্থিক মূল্যে নি¤œ আয়ের যে ২ লাখ জ্যেষ্ঠ নাগরিকের আয় হ্রাস পেয়েছে তাদের জন্যও ৭৪২ দশমিক ৪ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ রাখা হয়েছে। তবে আগামী বছরের মে মাসের আগে এ অর্থ পরিশোধ করা হবে না।

হালনাগাদ তথ্য প্রকাশেল আগে অর্থমন্ত্রী ফ্রিল্যান্ড সাংবাদিকদের বলেন, এ হালনাগাদ কানাডার অর্থনীতিকে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার কোনো মহাপরিকল্পনা নয়। সেটা থাকবে আগামী বছরের বাজেটে।

লিবারেল পার্টির নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আগামী বাজেটে কয়েকশ বিলিয়ন ডলারের পরিকল্পনা থাকতে পারে ফেডারেল সরকারের। বিজনেস কাউন্সিল অব কানাডার নীতি বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট রবার্ট আসেলিন বলেন, বড় কিছু ব্যয়ের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে, যা আগামী বছর সরকারের আয়-ব্যায়ের খাতাকে চাপে ফেলবে। তবে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ভালো হলে এমনটা নাও হতে পারে।

এসব ব্যয়ের মধ্যে আছে নির্বাচনী প্রচারণার সময় দেওয়া প্রতিশ্রুত ব্যয়, সবুজ অর্থনীতিতে উত্তরণের ব্যয়, প্রদেশগুলোতে স্বাস্থ্যসেবা বাবদ উচ্চ ব্যয় ও কোভিড-১৯ মহামারির নতুন কোনো পরিস্থিতির জন্য বয়। ট্রুডো সরকারের সাবেক বাজেট প্রধান আসেলিন বলেন, ব্যবসা ও আয়-সহায়তার জন্য যে ধরনের সহায়তার দরকার ছিল তা দেওয়া হয়েছে। এর বাইরেও সরকার অনেক অর্থ ব্যয় করেছে, যা কোভিড সংশ্লিষ্ট নয়। উচ্চ প্রবৃদ্ধি ছাড়া এটাকে টেকসই রূপ দেওয়া কঠিন।

কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে বিপদের মধ্যে রয়েছে অর্থনীতি। গত অর্থবছরই রেকর্ড ৩২৭ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার বাজেট ঘাটতিতে পড়ে ফেডারেল সরকার। সেটাও ছিল ধারণার চেয়ে কম। এতে ভূমিকা রেখেছিল উচ্চ কর রাজস্ব প্রাপ্তির সুবাদে। এ বছর অর্থনীতি ৪ দশমিক ৬ শতাংশ প্রসারিত হবে বলে আশা করছে সরকার।

আগামী দুই বছর যেহেতু অর্থনীতি দ্রুত গতিতে বাড়বে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে, তাই সংকট কেটে গেলেই অর্থনীতি মহামারি-পূর্ব অবস্থায় ফিরবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে সেটাও লিবারেলদের প্রতিশ্রুত ৭৮ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ের জন্য যথেষ্ট হবে না বলে মনে করছেন আসেলিন।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles