15.3 C
Toronto
বুধবার, মে ২৫, ২০২২

ভয়াবহ যৌন হেনস্তার অভিযোগ ‘সেক্স অ্যান্ড দ্য সিটি’ অভিনেতা ক্রিস নথ-এর বিরুদ্ধে

- Advertisement -
ভয়াবহ যৌন হেনস্তার অভিযোগ ‘সেক্স অ্যান্ড দ্য সিটি’ অভিনেতা ক্রিস নথ-এর বিরুদ্ধে - The Bengali Times
অভিনেতা ক্রিস নথ

তৃতীয় আরো এক নারী টিভি শো ‘সেক্স অ্যান্ড দ্য সিটি’র ৬৭ বছর বয়সী অভিনেতা ক্রিস নথ-এর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ আনলেন। সপ্তাহের শুরুতে তাঁর বিরুদ্ধে একই রকম অভিযোগ আনেন আরো দুই নারী । যদিও তিনি গুরুতর এমন অভিযোগ অস্বীকার করেন এবং এসবকে ‘সম্পূর্ণ বানোয়াট’ আখ্যা দেন।

৩০ বছর বয়সী ওই কানাডিয়ান নারী, যিনি নিজেকে আভা ছদ্মনামে পরিচিত করতে চান, অভিযোগ করে বলেন, তাঁর বয়স যখন ১৮ তখন তিনি একটি রেস্তোরাঁয় কাজ করতেন। ওই সময় ক্রিস সেখানে যান এবং এক পর্যায়ে তাঁর গায়ে হাত দিয়ে তাঁকে যৌন নিগ্রহ করেন। তিনি বলেন, তিনি ভয় পেয়েছিলেন যে ক্রিস তাঁকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করতে পারেন, তাই তিনি ওখান থেকে দ্রুত চলে যান।

- Advertisement -

তিনি বলেন, আমি তাঁকে থামানোর চেষ্টা করি; কিন্তু তিনি আমার কথা শোনেননি। এ সময় আমি যৌন নিগ্রহের শিকার হই। এ ঘটনাটি ২০১০ সালের। বর্তমানের প্রযুক্তি নির্বাহী আভা সে সময় নিউ ইয়র্কের দ্য মারিনো নামে একটি রেস্তোরাঁয় কাজ করতেন।

আভা বলেন, ‘একদিন রাতে তিনি আমাকে ভীষণ রকম নিগ্রহ করেন। তিনি আমার মুখ চেপে জোর করে ধরে টেবিলের ওপর শুইয়ে দেন…। আমি ভয়াবহ লাঞ্ছনার শিকার হই। এ সময় ওখানে উপস্থিত সবাই হাসছিল।’

তিনি অভিযোগ করেন, “আমি শিফট শেষে মজুরি নিতে অফিসে গিয়ে ক্রিসকে সেখানে উপস্থিত দেখি। তিনি আমার মুখে চুম্বন করেন এবং আমার সঙ্গে কিছু করার চেষ্টা করেন। আমি খুব স্পষ্ট করে তাঁকে ‘না’ বলি। কিন্তু তিনি এত শক্তিশালী ও মাতাল ছিলেন যে আমি আটকে পড়ি। তিনি আমাকে একটি ডেস্কের দিকে ঠেলে দেন।”

আভা যোগ করেন, পরদিন সকালে তাঁর হাত ব্যথা হয়েছিল। সেদিন তিনি ‘তাঁরা অন্য কোথাও সেক্স করবেন’ এমন আশ্বাস দিয়ে ওই রেস্তোরাঁ থেকে পালিয়ে যান। তিনি দাবি করেন, তিনি রেস্তোরাঁর মালিকদের পরদিন কী হয়েছিল তা জানান এবং তাঁরা তাঁকে নিয়ে খুব মজা করেছিলেন। তিনি ওই রেস্তোরাঁয় আর কাজ করতে ফিরে যাননি।

ক্রিস তৃতীয় মহিলার অভিযোগ অস্বীকার করেন। অভিনেতার একজন প্রতিনিধি বলেন, গল্পটি সম্পূর্ণ বানোয়াট এবং খারাপ কথাসাহিত্যের মতো।

অন্য দুই নারী, যাঁরা নিজেদের জো এবং লিলি ছদ্মনামে পরিচিত করেছিলেন, অভিনেতার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ আনার কয়েক দিন পরে এটি এলো। একজন দাবি করেন, তাঁকে ২০০৪ সালে লাঞ্ছিত করা হয়েছিল। আরেকজনকে ২০১৫-তে।

দুই নারীর অভিযোগ দ্য হলিউড রিপোর্টারে প্রকাশিত হয়। যেখানে তাঁরা ক্রিসের সঙ্গে তাঁদের মুখোমুখি হওয়ার বিস্তারিত বর্ণনা দেন। উইসকনসিনে জন্মগ্রহণকারী ক্রিস সব অভিযোগ অস্বীকার করেন এবং এসব ‘স্পষ্ট মিথ্যা’ বলে দাবি করেন।

ক্রিস বলেন, “আমার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন। এই গল্পগুলো ৩০ বছর আগে বা ৩০ দিন আগে হতে পারে। এ ব্যাপারে আমি সব সময়ই ‘না’ বলব। আমি নিশ্চিতভাবে জানি না কেন তারা এখন সামনে আসছে। তবে এটি জানি, আমি তাদের নিগ্রহ করিনি।”

যৌন নিপীড়নের অভিযোগের পর ক্রিসের স্ত্রী তারা উইলসন তাঁদের ১০ বছরের বিবাহিত জীবনে এই প্রথম স্বামীর সঙ্গে বড়দিন উদযাপন করছেন না।

অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও অভিনেতার বন্ধুরা তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন। তাঁরা জোর দিয়ে বলেছেন, ক্রিস ‘ফ্লার্ট’ হলেও ‘স্লিজ’ নন। তাঁরা এ-ও বলেন, আমরা তাকে বিশ্বাস করি। বিশ্বাস করি যে বিষয়টিকে যেভাবে চিত্রিত করা হয়েছে, সেটি তেমন নয়।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles