19.2 C
Toronto
রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪

বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যাল ও হ্যাজেল এমপিপি

বাংলাদেশ ফেস্টিভ্যাল ও হ্যাজেল এমপিপি

এ্যন্দ্রেয়া হ্যাজেল কানাডার অন্টারিও প্রদেশের স্কারবরো গিল্ডউড নির্বাচনী এলাকা থেকে ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিত একটি উপ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে লিবারেল পার্টি থেকে এমপিপি নির্বাচিত হন। বছরখানেক আগে তার নেতৃত্বে স্কারবরো বিজনেস এসোসিয়েশন আয়োজিত কানাডা সরকারের বাৎসরিক বাজেট নিয়ে একটি আলোচনায় অংশ নিয়ে তাঁর সাথে পরিচিত হবার সুযোগ হয়েছিল।

- Advertisement -

এমপিপি নির্বাচিত হবার পর আর দেখা হয় নি বা বলা যায় দেখা করার ইচ্ছে হয় নি। কারণ আমরা বেশীরভাগ মানুষ ক্ষমতা ও টাকার পূজারী। ক্ষমতাবাণ ব্যক্তির সাথে দেখা করে, ছবি তুলে ধন্য হওয়া আমাদের মজ্জাগত স্বভাব। যাহোক গতকাল এ্যান্ড্রিয়ার সাথে দেখা হলো বাংলাদেশ ফেষ্টিভলের অনুষ্ঠানে। পাশাপাশি বসে প্রচন্ড আওয়াজের মধ্যেও অনেকক্ষণ গল্প করার সুযোগ হলো। কথা শুরু করলাম তার বাংলাদেশী গান ও অনুষ্ঠান উপভোগ করার প্রচন্ড উৎসাহ দেখে। তিনি উপস্হিত থাকতে মঞ্চে যতবার বাংলা গান পরিবেশিত হলো, ততবার তিনি মনযোগ দিয়ে শুনার, বুঝার ও ঘাড় নেড়ে, হাত তালি দিয়ে উপভোগ করার চেষ্টা করছিলেন। প্রশ্ন করলে তিনি বলেন তিনি বাংলা গান বেশ উপভোগ করেন এবং ভাল লাগে।

বলছিলেন, এই অনুষ্ঠান থেকে বের হয়ে আরো একটি প্রোগ্রামে যাবেন। জিজ্ঞেস করলাম, দিনে কতগুলো প্রোগ্রামে তাকে যোগ দিতে হয়? তিনি সপ্তাহের পুরো সাত দিনের তাঁর কাজের বিবরণ দিলেন যা একজন মানুষের ব্যস্ততার জন্যে যথেষ্ট। কথা প্রসঙ্গে বললেন, তিনি এতে বিরক্ত হন না বরং মানুষের সমস্যা নিয়ে ডিল করতে, মানুষের কাছাকাছি থাকতে তিনি ভীষণ পছন্দ করেন। আমি কিছুটা অভিভূত হয়ে বললাম, এটাতো খুবই ভাল কথা যে তুমি জনপ্রতিনিধি হয়েছ জনগণকে ভালবেসে। তোমার এলাকার লোকজন ভাগ্যবান। বললাম, অনেকেই জনপ্রতিনিধি হন বা হতে চান অথচ তারা মানুষকে ভালবাসেন না, মানুষ দেখলে বিরক্ত হন, দলপ্রীতি করেন বা সিলেক্টিভ লোকজনকে নিয়ে চলতে ভালবাসেন। তাদের উচিত উচ্চ বেতনে অন্য কিছু করার চেষ্টা করা, জনপ্রতিনিধি হওয়া বা হবার চেষ্টা করা উচিত না। জনপ্রতিনিধি হতে হলে সময়ে অসময়ে জনগণের ন্যায্য বা অন্যায্য চাওয়াকে সহ্য করার ক্ষমতা থাকতে হবে, জনগণের কাজ করতে হবে আনন্দের সাথে, বিরক্তির সাথে নয়।

তিনি আমার সাথে সম্পুর্ণ একমত হলেন এবং দাওয়াত দিলেন তার অফিসে একসময় গিয়ে এসব নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করতে। বাংলাদেশে এবং কানাডায় দীর্ঘদিন যাবত জনগণের কাজ নিয়ে, নিজের খেয়ে বনের মোষ তাড়াতে গিয়ে যে অভিজ্ঞতা হয়েছে তাতে আমি এ্যান্ড্রিয়ার মত পিপল ওরিয়েন্টেড জনপ্রতিনিধি কমই দেখেছি। আশা করি খুব শীঘ্রই আবারও তাঁর সাথে দেখা হবে। তাকে বলেছি যে আমি এসব কথা ফেসবুকে লিখবো, তিনি আনন্দের সাথে সম্মতি দিয়েছেন। যখন একজন সত্যিকার জনদরদী মানুষ চোখে পড়ে, সৎ ও যোগ্য লোকের সাথে আমার পরিচয় হয় তখনই আমি তার বিষয়ে কিছুটা আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ি এবং কিছু একটা লিখতে ইচ্ছে করে, মনে হয়, এসব কথা মানুষের জানা দরকার। আমি এন্ড্রিয়া হেইজেলকে শুভ কামনা জানাই এবং তাঁর আরো সফলতা কামনা করি। এরকম জনপ্রতিনিধি আমাদের সর্বত্র দরকার।

- Advertisement -
পূর্ববর্তী খবর
পরবর্তী খবর

Related Articles

Latest Articles