12.9 C
Toronto
রবিবার, মে ২৬, ২০২৪

কোটিপতি স্বামীর সংসার ছাড়তে গরিবের মেয়ের সংবাদ সম্মেলন

কোটিপতি স্বামীর সংসার ছাড়তে গরিবের মেয়ের সংবাদ সম্মেলন
প্রিয়ন্তী সাহা

শিল্পপতি নেশাগ্রস্ত স্বামী দীপের সংসার ছাড়তে গরিবের মেয়ে মেধাবী ছাত্রী প্রিয়ন্তী সাহা সংবাদ সম্মেলন করেছেন। বুধবার সকালে প্রিয়ন্তীর বাড়ি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলা পৌর সদরের চৌধুরীকান্দা গ্রামে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

প্রিয়ন্তী নিজেই তার স্বামীর সংসার না করতে তার পরিবার ও সাংবাদিকদের সামনে এ ঘোষণা দেন।

- Advertisement -

স্থানীয়রা জানান, প্রিয়ন্তীর বাবা কুমারেশ সাহা ভাঙ্গায় ফুটপাতের পাশে মশলা বিক্রি করে সংসার চালান। প্রিয়ন্তীর স্বামী দীপ একজন শিল্পপতির ছেলে। স্ত্রী প্রিয়ন্তীর দাবি, তার স্বামী দীপ নেশাগ্রস্ত এবং বিকৃত স্বভাবের। তাই স্বামীর অত্যাচার থেকে বাঁচতে তিনি সংসার না করার ঘোষণা দেন সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে।

প্রিয়ন্তী জানান, আমার বাবা-চাচাদের অনেক লোভ দেখিয়ে আমাকে বিয়ে করে দীপ। আমার বাবা সুখের কথা ভেবে আমাকে বিবাহ দেন ভাঙ্গা বাজারের ধনাঢ্য ব্যবসায়ী রবিন সাহার ছেলে দীপের সঙ্গে। বিবাহ হয় গত ২৬ ফেব্রুয়ারি। হিন্দু ধর্মের রীতি-নীতিতে অনেক কিছু করতে হয়, যা দীপ প্রথম রাতেই বিবাহ সম্পন্ন না করে নেশায় আসক্ত হন। সে আমাকে একা রেখে নেশা করতে বাসা থেকে বেরিয়ে যায়, ফিরে আসে ভোররাতে। তাই নেশাগ্রস্ত স্বামীর সঙ্গে কোনোভাবেই আমার সংসার করা সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দেন স্ত্রী প্রিয়ন্তী।

প্রিয়ন্তী আরও জানান, তাকে জোর করা হতো মদপান করতে। মদ না খেলে শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে টয়লেটের মধ্যে আটকে রাখত। এছাড়া আমার ফেসবুকের পাসওয়ার্ড নিয়ে সে সেটা চেঞ্জ করে বিভিন্ন অশ্লীল ছবি ফেসবুকে ছেড়ে আমাকে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করেছে। এ নিয়ে আমি ভাঙ্গা থানায় অভিযোগ করেছি।

প্রিয়ন্তীর মা শিখা সাহা জানান, নেশাগ্রস্ত ছেলে দীপ আমার মেয়ে প্রিয়ন্তীর জীবনটা বিপন্ন করে ফেলেছে। ছেলে যে এমন নেশাগ্রস্ত তা জানলে কিছুতেই তার কাছে বিয়ে দিতাম না মেয়েকে। এছাড়া দীপের পরিবার অনেক ভয়ভীতি দেখাচ্ছে। আমার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

এদিকে প্রিয়ন্তীর চাচা গোপাল সাহা জানান, নেশাগ্রস্ত ছেলের কাছে আমার ভাতিজি মেধাবী শিক্ষার্থীকে প্রিয়ন্তীকে বিয়ে দেওয়ার পর তার জীবনটা বিপন্ন করে ফেলেছে। আমরা এর বিচার চাই।

দীপের চাচা রাজকুমার সাহা জানান, আমার ভাইয়ের একমাত্র ছেলে দীপ। আমরা অনেক আনন্দ করে বিয়ে করিয়েছিলাম, কিন্তু দীপ মানসিকভাবে কিছুটা অসুস্থ। মনে করেছিলাম বিয়ের পর সব ঠিক হয়ে যাবে।

এ ঘটনায় ভাঙ্গা থানার ওসি মামুন আল রশিদ বলেন, দীপের বিরুদ্ধে আমরা একটা অভিযোগ পেয়েছি। দীপ তার স্ত্রীকে দিয়ে মদপানসহ বিভিন্ন অনৈতিক কাজ করাতে জোর করত। পরে তার স্ত্রী প্রিয়ন্তীকে আমরা উদ্ধার করে ওর বাবা-মায়ের হাতে দিয়েছি। এরপরও স্বামী দীপ কোনো অন্যায় করে তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles