17 C
Toronto
সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

বাপের বাড়ি ঘন ঘন ঘুরতে যাওয়ায় বিচ্ছেদের অনুমতি আদালতের!

বাপের বাড়ি ঘন ঘন ঘুরতে যাওয়ায় বিচ্ছেদের অনুমতি আদালতের!
প্রতীকী ছবি

বিশেষ কোনও কারণ ছাড়াই স্বামীর বাড়ি ছেড়ে স্ত্রীর ঘন ঘন অন্য কোথাও চলে যাওয়া মানসিক নিষ্ঠুরতার শামিল। একটি মামলার প্রেক্ষিতে এমনই পর্যবেক্ষণ ভারতের দিল্লি হাইকোর্টের। বিচারপতি সুরেশকুমার কাইত এবং বিচারপতি নীনা বানসাল কৃষ্ণার ডিভিশন বেঞ্চ এমন পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন।

আদালত বলেন, কোনও উপযুক্ত কারণ ও শ্বশুরবাড়ির কারও বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ ছাড়াই নির্দিষ্ট সময় অন্তর বাপের বাড়ি চলে যেতেন স্ত্রী। এটা স্বামীর প্রতি মানসিক নিষ্ঠুরতা।

- Advertisement -

এমনকি, এই কারণেই স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করা ব্যক্তিকে বিবাহবিচ্ছেদের অনুমতি দিয়েছেন দিল্লির হাইকোর্ট।

উচ্চ আদালতে মামলা দায়ের করে ওই ব্যক্তি জানান, ১৯৯২ সালে তার বিয়ে হয়। স্ত্রীর বিরুদ্ধে বনিবনা হচ্ছিল না বলে ২০১৭ সালে পরিবার আদালতে বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন করেন তিনি। প্রায় পাঁচ বছর ওই মামলা চলছিল। ২০২২ সালে পরিবার আদালত তার আবেদন খারিজ করে দেন। এরপর দিল্লি হাইকোর্টে যান ওই ব্যক্তি। হলফনামায় তিনি জানান, তার স্ত্রী অস্থিরপ্রকৃতির। নিজের খুশিতে থাকেন। অন্তত ছ’বার তাকে ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। এমনকি, কাউকে কাউকে বলেছেন যে, তিনি বিধবা, তার স্বামী বেশ কিছু দিন হল মারা গেছেন।

যদিও ওই ব্যক্তির স্ত্রীর আইনজীবী বিরোধিতা করেন আদালতে। তিনি বলেন, শ্বশুরাড়িতে ওই মহিলার শাশুড়ি খারাপ ব্যবহার করতেন। আদালতের পর্যবেক্ষণ, শাশুড়ির সঙ্গে ওই নারীর সম্পর্ক ভাল ছিল না। যদিও তারপরেও ঘন ঘন স্বামীর বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যাওয়া যুক্তিযুক্ত বলে মনে করছে না আদালত। তাদের পর্যবেক্ষণ, শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে সম্পর্ক ভাল করারও কোনও চেষ্টা করেননি তিনি।

অন্যদিকে, স্বামীও এমন কোনও ব্যবহার বা আচরণ করেননি, যার মাধ্যমে মনে হয় যে তিনি কোনওভাবে স্ত্রীর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতেন। আদালত বলেন, ‘‘প্রায় ২০ বছর এক সঙ্গে থাকার পরেও স্বামীর সঙ্গে কখনও ভাল ব্যবহার করেননি স্ত্রী। স্বামীকে মানসিক অশান্তির মধ্যে রেখেছেন তিনি।’’ এরপরই বিচ্ছেদের অনুমতি দেন আদালত।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles