7.8 C
Toronto
বুধবার, এপ্রিল ১৭, ২০২৪

৪৪ বছর পরে চুইংগাম ধরিয়ে দিল খুনি!

৪৪ বছর পরে চুইংগাম ধরিয়ে দিল খুনি!
ছবি সংগৃহীত

১৯৮০ সাল। যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগন প্রদেশে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। তবে ওই ঘটনার প্রায় অর্ধশতাব্দী পার হলেও হত্যারহস্যের কোনো কূলকিনারা হয়নি। খুনিও অধরাই ছিল।

তবে ঘটনার ৪৪ বছর পর চুইংগাম ধরিয়ে দিল খুনিকে। মাল্টনোমা কাউন্টি ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি একটি বিবৃতিতে জানান, ১৯৮০ সালের ১৫ জানুয়ারি অপহূত হন ১৯ বছর বয়সী বারবারা টাকার। তাঁকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। মাউন্ট হুড কমিউনিটি কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন বারবারা।

- Advertisement -

কলেজ চত্বরে পার্কিং লটের কাছে একটি জায়গায় বারবারাকে খুন করেছিলেন রবার্ট প্লাইমটন। ঘটনার পরের দিন সকালে ক্লাস করতে এসে অন্য শিক্ষার্থীরা বারবারার মরদেহ আবিষ্কার করে। গত সপ্তাহে রবার্টকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন আদালত। তাঁর বয়স এখন ৬০ বছর।

তিনি অবশ্য অপরাধ অস্বীকার করেছেন। তাঁর আইনজীবীরা জানিয়েছেন, এই রায়ের বিরুদ্ধে তাঁরা উচ্চ আদালতে যাবেন। প্রশ্ন হলো, এত বছর আগের এক ঘটনায় কিভাবে খুনিকে ধরা হলো? এ ব্যাপারে ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি জানান, মামলাটি পুরনো হলেও তদন্ত কখনোই বন্ধ হয়নি। বারবারার মরদেহ ময়নাতদন্তের সময়ে তাঁর যোনি থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। ২০০০ সালে সেই নমুনা ওরেগন স্টেট পুলিশের কাছে বিশ্লেষণের জন্য পাঠানো হয়।

ওই নমুনা থেকে অপরাধীর একটি ডিএনএ প্রফাইল তৈরি করেছিল পুলিশের ক্রাইম ল্যাব। এর অনেক পরে তদন্তকারী কর্মকর্তারা নজরদারি চালানোর সময়ে রবার্টকে মুখ থেকে চুইংগাম ফেলতে দেখেন। রবার্টের ওপর তাঁদের আগেই সন্দেহ ছিল। তাঁরা ওই চুইংগামটি সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ক্রাইম ল্যাবে পাঠান। চুইংগাম থেকে যে ডিএনএ প্রফাইল পাওয়া গেছে, তা বারবারার যোনি থেকে সংগ্রহ করা নমুনা থেকে তৈরি ডিএনএ প্রফাইলের সঙ্গে মিলে যায়। ২০২১ সালের ৮ জুন রবার্টকে হেফাজতে নেয় পুলিশ। সম্প্রতি মামলার শেষে তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। এ বছরের জুনে সাজা হওয়ার কথা রয়েছে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles