9.5 C
Toronto
বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২৪

অন্টারিওর কিন্ডারগার্টেন শিক্ষাক্রমে বড় পরিবর্তন

অন্টারিওর কিন্ডারগার্টেন শিক্ষাক্রমে বড় পরিবর্তন
শিক্ষামন্ত্রী স্টিফেন লেচি ২৩ জানুয়ারি পরিবর্তনের এই ঘোষণা দেন যা ২০২৫ সাল থেকে শুরু হবে

পঠন, লিখন ও গণিত শিক্ষায় ‘মূলের কাছে ফিরে যাওয়ার’ লক্ষ্যে বিন্ডারগার্টেনে শিক্ষাক্রমে বড় পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে অন্টারিও। শিক্ষামন্ত্রী স্টিফেন লেচি ২৩ জানুয়ারি পরিবর্তনের এই ঘোষণা দেন, যা ২০২৫ সাল থেকে শুরু হবে।

লেচি বলেন, আনন্দভিত্তিক এই পঠন এলিমেন্টারি স্কুলে যাওয়ার অপেক্ষায় থাকা শিশুদের মৌলিক দক্ষতা এনে দেবে। এখানে আমরা যে সমস্যাটি সমাধানের চেষ্টা করছি তা হলো কীভাবে এই দক্ষতাকে আরও বেশি নিরবচ্ছিন্ন এবং প্রাত্যহিক জীবনে কাজে লাগানো যায়। সেই সঙ্গে শ্রেণিকক্ষে জ্ঞানার্জনের বিষয়টিও রয়েছে।

- Advertisement -

টরন্টোর একটি স্কুলে সাংবাদিকদের শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমি মনে করি শিক্ষাক্রমের এই ঢেলে সাজানো পঠন নির্দেশকায় অধিক পদ্ধতিগত ভঙ্গি এনে দেবে। সেটা হবে গাণিতিক দক্ষতা ও সংখ্যাতাত্ত্বিক দক্ষতায় খুবই মৌলিক উপায়ে।

এতে যেসব পরিবর্তন আনা হচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে ধনি-অক্ষরের সম্পর্ক অনুধাবন, ফোনিক জ্ঞান উন্নয়ন এবং সুনির্দিষ্ট শব্দের ব্যবহার। গণিতের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা ভগ্নাংশ, কোডিং ও প্যাটার্ন সম্পর্কে শিখতে পারবে।

লেচি বলেন, আরেকটি উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ভগ্নাংশ বুঝতে শিক্ষার্থীরা সহপাঠীদের সঙ্গে শেপ অথবা অবজেট বিনিময় করতে পারবে। এই বিনিময়ের সুফল হচ্ছে শিক্ষার্থীদের গ্রেড ১-এ প্রবেশকে নিষ্কন্টক করা।

গ্রেড ১ থেকে গ্রেড ৯ পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ভাষা শিক্ষাক্রম ও গণিতে এরই মধ্যে পরিবর্তন এনেছে কনজার্ভেটিভ সরকার। ভাষা শিক্ষায় পরিবর্তন আনা হয়েছে সময় উত্তীর্ণ চর্চাকে গুরুত্ব দিয়ে। ফোনিক, কার্সিভ রাইটিং, ডিজিটাল লিটারেসি, ওয়ার্ড প্রসেসিং এবং ক্রিটিকাল থিংকিং দক্ষতা এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য। এ ছাড়া দৈনিক পঠন নির্দেশিকার জন্যও সর্বনি¤œ ৩০ মিনিটচ বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

আর্থিক শিক্ষা, কোডিং, অ্যালজেব্রা এবং উপাত্ত সংগ্রহকে গুরুত্ব দিয়ে ২০২০ সালে নতুন গণিত পাঠ্যক্রম প্রকাশ করে ফোর্ড সরকার। এসব পরিবর্তন সত্ত্বেও ২০২৩ সালের অক্টোবরে প্রকাশিত এডুকেশন কোয়ালিটি অ্যান্ড অ্যাকাউন্টেবিলিটি অফিসের (ইকিউএও) প্রতিবেদনে দেখা যায়, গণিত ও লিটারেসি স্কোরে লক্ষ্যণীয় কোনো উন্নতি হয়নি। গণিতের ক্ষেত্রে গ্রেড ৩ এর ৫৯ দশিমক ৭ এবং গ্রেড ৬ এর ৪৯ দশমিক ৫ শতাংশ শিক্ষার্থী প্রাদেশিক আদর্শমাণ পূরণ করতে পেরেছে বা ছাড়িয়ে গেছে।

গ্রেড ৩ এর পঠন ও লিখনের স্কোরও প্রায় একই রকম। পঠনের ক্ষেত্রে প্রাদেশিক আদর্শমাণ পূরণ বা তা ছাড়িয়ে যেতে পেরেছে ৭২ দশমিক ৬ শতাংশ শিক্ষার্থী। ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে এ হার ছিল যেখানে ৭৩ দশমিক ২ শতাংশ।

This article was written by Sohely Ahmed Sweety as part of the LJI.

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles