7.1 C
Toronto
শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

মামা-মামী ও বোনকে একাই হত্যা করেন রাজিব

মামা-মামী ও বোনকে একাই হত্যা করেন রাজিব
একই পরিবারের তিনজনকে হত্যার অভিযোগে রাজিব কুমার ভৌমিককে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ

পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় স্ত্রী-কন্যাসহ ব্যবসায়ী বিকাশ সরকারকে ভাগনে রাজিব কুমার ভৌমিক হত্যা করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। রাজিবকে (৩৫) সিরাজগঞ্জ ডিবি পুলিশ মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) রাতে গ্রেপ্তার করেছে। তিনি উল্লাপাড়া উপজেলার উধুনিয়া ইউনিয়নের তেলিপাড়া গ্রামের মৃত বিশ্বনাথ ভৌমিকের ছেলে।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেলে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে প্রেস কনফারেন্সে এসব কথা জানান পুলিশ সুপার মো. আরিফুর রহমান মন্ডল।

- Advertisement -

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাজিব হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়ে হত্যার দায় স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ রাজিবের বাড়ি থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত সরঞ্জামাদি উদ্ধার করেছে।

এ হত্যাকাণ্ডে মঙ্গলবার রাতে নিহত বিকাশ সরকারের স্ত্রী স্বর্ণা রাণীর ভাই সুকোমল চন্দ্র সাহা বাদী হয়ে তাড়াশ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মন্ডল বলেন, ২০২১ সালে ভাগনে রাজিবের বাবা বিশ্বনাথ ভৌমিক মারা গেলে মামা বিকাশের সাথে যৌথভাবে খাদ্যশষ্য মজুদ ও বেচাকেনার ব্যবসা শুরু করেন। এ ব্যবসার পুঁজি হিসাবে বিকাশ তার ভাগনে রাজিবকে ২০ লাখ টাকা প্রদান করে। রাজিব বিভিন্ন ধাপে তার মামাকে লভ্যাংশের প্রায় ২৬ লাখ টাকা প্রদান করলেও চলতি বছরে এসে বিকাশ রাজিবের কাছে আরও ৩৫ লাখ টাকা দাবি করেন। গত ২২ জানুয়ারি বিকাশ ৭/৮ দিনের মধ্যে এ টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য চাপ দেয়। রাজিব টাকা দিতে ব্যর্থ হলে বিকাশ তার বোন প্রমিলা ও ভাগনে রাজিবকে ফোনে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। রাজিব টাকার জোগার করতে না পেরে ও মামার গালিগালাজে রাগান্বিত হয়ে মামার পুরো পরিবারকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী ২৭ জানুয়ারি শনিবার বিকেল পৌনে ৫টার দিকে রাজিব তার মামাকে ফোন দিয়ে টাকা ফেরত দেওয়ার কথা বলে। বিকাশ সে সময় তাড়াশের বাইরে অবস্থান করায় টাকা স্ত্রী স্বর্ণার কাছে দিয়ে যেতে বলেন। এদিকে মামা বাসায় না থাকার সুযোগে রাজিব মামার বাসায় আসেন। এরপর মামীর কাছে কফি খেতে চাইলে স্বর্ণা কফি কিনতে বাইরে যায়। এই সুযোগে লোহার রড দিয়ে মামাতো বোন তুষির মাথায় আঘাত করেন। তুষি জ্ঞান হারিয়ে ফেললে ধারালো হাসুয়া দিয়ে তার গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করেন রাজিব।

এরপর স্বর্ণা রাণী বাসায় প্রবেশ করলে তাকেও একই কায়দায় হত্যা করেন রাজিব। পরে মামাকে ফোন দিয়ে বাসায় আসতে বলেন তিনি। বিকাশ সরকার কিছু সময় পর বাসায় ফিরলে তাকেও একই কায়দায় হত্যা করেন। মৃতদেহগুলো একটি কক্ষে রেখে সদর দরজায় তালা দিয়ে রাজিব নির্বিঘ্নে মোটরসাইকেলে পালিয়ে যান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিরাজগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস) সামিউল আলম, উল্লাপাড়া থানা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অমৃত কুমার সূত্রধর, ডিবির ওসি জুলহাস উদ্দিন প্রমুখ।

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলা সদরের বারোয়ারী বটতলা মহল্লার নিজ বাড়ির একটি তালাবদ্ধ ফ্লাট থেকে সোমবার রাতে পুলিশ ব্যবসায়ী বিকাশ সরকার (৪৫), তার স্ত্রী স্বর্ণা রাণী সরকার (৪০) ও মেয়ে দশম শ্রেণির ছাত্রী তুষি সরকারের (১৫) গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles