অধিকাংশ ধর্ষণের মামলায় ‘শাস্তি হয় না’

- Advertisement -
ধর্ষণের শাস্তির দাবিতে ঢাকার রাস্তায় মাঝেমাঝেই প্রতিবাদ কর্মসূচি দেখা যায়

বাংলাদেশে ধর্ষণের ঘটনার অনুপাতে মামলার সংখ্যা কম৷ মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) গত তিনবছরের পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে এই চিত্র৷

সংস্থাটির হিসেবে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত সারাদেশে এক হাজার ১৭৮ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন৷ ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৪৩ জন নারীকে৷ আর আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন আট জন৷ কিন্তু মামলা হয়েছে মাত্র ৮১৩টি৷

- Advertisement -

২০২০ সালে এক হাজার ৬২৭ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন৷ ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৫৩ জনকে৷ আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন ১৪ জন৷ আর মামলা হয়েছে এক হাজার ১৪৪টি৷

আর ২০১৯ সালে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক হাজার ৪১৩ জন৷ ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৭৬ জনকে৷ আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন ১০ জন৷ মামলা হয়েছে ৯৯৩টি৷

- Advertisement -

আসক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতে পরিসংখ্যান তৈরি করে৷ তবে অনেক ঘটনা সংবাদমাধ্যমে আসে না৷ আর যেসব খবর সংবাদমাধ্যমে আসে সেসব ঘটনায় ২০-৩০ ভাগ মামলা হয় না৷ কারণ সেগুলো স্থানীয়ভাবে মিটমাট করে ফেলা হয় বলে জানিয়েছে আসক৷

- Advertisement -

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মানবাধিকার কর্মী নূর খান বলেন, ‘‘বাংলাদেশে ধর্ষণসহ নারীর প্রতি সহিংসতার যত মামলা হয় তার সর্বোচ্চ চার থেকে পাঁচ ভাগ মামলায় আসামিরা শাস্তি পান৷ আর শুধু ধর্ষণের হিসাব করলে এই হার আরো অনেক কম হবে৷”

মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী নারী নেত্রী অ্যাডভোকেট এলিনা খান বলেন, ‘‘ধর্ষণ মামলায় সর্বোচ্চ দুই ভাগের বেশি শাস্তি হয় না৷”

তিনি বলেন, ‘‘শাস্তির হার এত কম দেখে কেউ কেউ বলেন অধিকাংশ ধর্ষণ মামলাই মিথ্যা৷ কিন্তু তারা ঠিক বলছেন না৷ আদালতে আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ না হলে ধর্ষণের ঘটনা মিথ্যা হয়ে যায় না৷ মামলা দায়ের থেকে শুরু করে মামলার তদন্তসহ নানা কারণে আসামিরা বেনিফিট অব ডাউটের সুযোগে ছাড়া পেয়ে যান৷”

আইন বিশ্লেষকরা মনে করেন, বাংলাদেশে ধর্ষণ মামলায় মেডিকেল প্রতিবেদনকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয় আদালত৷ কিন্তু ধর্ষণের শিকার নারী ও পারিপার্শ্বিক সাক্ষ্য বা ঘটনা পরম্পরাকে গুরুত্ব দেয়া হয় না৷ ফলে অনেক আসামিই ছাড়া পেয়ে যান৷

এলিনা খান বলেন, ‘‘ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করায় বিষয়টি আরো জটিল হয়ে পড়েছে৷ বিচারকরা এখন আরো বেশি সতর্ক হয়ে গেছেন৷ যেহেতু মৃত্যুদণ্ডের বিষয় তাই তারা কোনো ধরনের বেনিফিট অব ডাউট পেলেই খালাস দিয়ে দিচ্ছেন৷”

‘‘শাস্তির চেয়ে যেটা আগে বেশি প্রয়োজন তা হলো মামলা, মামলার তদন্ত – এই বিষয়গুলো ঠিকভাবে করা৷ আমাদের এখানে সব কিছুই যেন ধর্ষকের পক্ষে,” বলেন তিনি৷

‘বিচারকের পর্যবেক্ষণ অসাংবিধানিক’

প্রসঙ্গত, বহুল আলোচিত রেইনট্রি হোটেলে ‘ধর্ষণ’ মামলার রায়ে বৃহস্পতিবার পাঁচ আসামিকেই খালাস দেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোছাম্মৎ কামরুন্নাহার৷ রায়ের পর্যক্ষেণে তিনি বলেন, ‘‘৭২ ঘণ্টা পর ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায়না৷ পুলিশ যেন ৭২ ঘণ্টা পর কোনো ধর্ষণের মামলা না নেয়৷”

বিচারকের এই পর্যবেক্ষণ নিয়ে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে৷ আইনমন্ত্রী আনিসুল হক শনিবার এই বিষয়ে বলেন, ‘‘৭২ ঘণ্টা পর ধর্ষণ মামলা নেয়া যাবে না, এমন পর্যবেক্ষণ সম্পূর্ণ অসাংবিধানিক৷ বিচারকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রধান বিচারপতিকে চিঠি দেয়া হবে৷”

তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তার রায় নিয়ে আমার কোনো কথা নেই৷ তবে তিনি যে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন তা সংবিধান বিরোধী৷”

‘‘ফৌজদারি মামলা কখনো তামাদি হয়না৷ তাই আমি আইন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধান বিচারপতিকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য চিঠি দেব৷ তিনি যা ব্যবস্থা নেয়ার নেবেন,” যোগ করেন তিনি৷

আলোচিত বিচারকের বিচারিক ক্ষমতা প্রত্যাহারের জন্য সুপারিশ করা হবে কী না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আমি ব্যবস্থা নিতে চিঠি দিচ্ছি৷ কী ব্যবস্থা নেয়া হবে সেই দায়িত্ব প্রধান বিচারপতির৷”

সূত্র : ডিডাব্লিউ

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles