23.9 C
Toronto
মঙ্গলবার, মে ২১, ২০২৪

অনেক শারীরিক সমস্যার সমাধানে শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম

অনেক শারীরিক সমস্যার সমাধানে শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম

যোগব্যায়ামের ক্ষেত্রে শ্বাস-প্রশ্বাসের নানা অনুশীলন করা হয়৷ আধুনিক চিকিৎসাবিদ্যাও নাক দিয়ে নিঃশ্বাস নেওয়ার গুরুত্ব আবিষ্কার করছে। জার্মানির এক চিকিৎসক সেই গবেষণার ফল রোগীদের উপর প্রয়োগ করে সুফল পাচ্ছেন।

- Advertisement -

ডাক্তার হিসেবে টোমাস ভাইস প্রতিদিন রোগী দেখা শুরু করার আগে সচেতনভাবে শাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করেন৷ তিনি বলেন, ‘অতীতে শ্বাস-প্রশ্বাস নিয়ে আমার অনেক সমস্যা হয়েছে৷ আমি ভাবতাম, বিষয়টি রহস্যময় ও আধ্যাত্মিক৷ কিন্তু আচমকা বিষয়টি নিয়ে গভীর চর্চা করে বুঝলাম, যে আমাদের শ্বাস-প্রশ্বাসের এই দিকটা, অর্থাৎ আমাদের কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গমন আমাদের শরীরের নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ভূমিকা পালন করে।’

স্ট্রেস মস্তিষ্কের অত্যন্ত পুরানো এমন এক কাঠামোর উপর প্রভাব ফেলে, যা আমাদের লড়াই অথবা পালানোর জন্য প্রস্তুত করে৷ ক্রমাগত চাপের মুখে পড়লে শরীর শ্বাস-প্রশ্বাসে রদবদল করে প্রতিক্রিয়া দেখায়৷ দ্রুত ও সংক্ষিপ্ত শ্বাস-প্রশ্বাস প্রায় চোখেই পড়ে না৷ সেই অবস্থাকে ক্রনিক হাইপারভেন্টিলেশন বলা হয়৷ প্রায় অবচেতনে সেই প্রক্রিয়া স্বংয়ক্রিয়ভাবে ঘটে৷

আরও পড়ুন :: দিনে ৪ হাজার কদম হাঁটা কমাবে অকাল মৃত্যুঝুঁকি

এমন সব সংযোগের বৈজ্ঞানিক প্রমাণ এখনো পাওয়া যায় নি। তা সত্ত্বেও টোমাস ভাইস নিশ্চিত, যে নির্দিষ্ট কিছু শারীরিক সমস্যা ভুল শ্বাসপ্রশ্বাসের সঙ্গে সম্পর্কিত৷ যেমন স্টেফানি কেক নামের এক রোগী মাথা ঘোরার সমস্যায় ভুগছেন৷ তিনি বলেন, ‘আমার আসলে কী হয়েছে, তা কেউ জানতে পারে নি৷ ভেবেছিল সাইকোসোমেটিক্সের সমস্যা৷ কিন্তু তাতে আমার কোনো লাভ হয় নি৷ ড. ভাইসকে খুঁজে পেয়ে আমি সত্যি খুব খুশি।’

রোগ নির্ণয়ের বিস্তারিত প্রক্রিয়ার পাশাপাশি রোগীরা শ্বাস-প্রশ্বাসের বিশেষ ট্রেনিং পান৷ তথাকথিত ক্যাপনোমিটার দিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাসে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের মাত্রা পর্যবেক্ষণ করে সচেতনভাবে তারা সেটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন৷ ড. ভাইস বলেন, ‘শরীরে ভেজিটেটিভ স্নায়ুতন্ত্রের উপর প্রভাব বিস্তার করতে হলে এমন এক ভাষার প্রয়োজন, যা শরীরের খুব নিবিড়ে থাকবে, এমনকি প্রাণীরাও তা বুঝতে পারবে৷ সে কারণে আমরা মাসাজ, উত্তাপ, খাদ্য ও পানীয় নিয়ে কাজ করি৷ এভাবে অবচেতন এই স্নায়ুতন্ত্রকে বুঝিয়ে দেই, আতঙ্কের কোনো কারণ নেই, সব ঠিক আছে।’

সিওটু মাত্রা বাড়াতে রোগীরা নাক দিয়ে নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের যাবতীয় গুরুত্ব শেখেন। ড. টোমাস ভাইস বলেন, ‘নাকের মধ্য দিয়ে অনেক কম বাতাস যায়। সে কারণে মানুষ হিসেবে আমরা নাক দিয়ে নিঃশ্বাস না নেবার চেষ্টা করি।’

আরও পড়ুন :: কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমাবে যেসব ফল

রোগীরা যাতে শারীরিক কসরতের ক্ষেত্রে মুখের বদলে শুধু নাক দিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাস নেন, সেই লক্ষ্যে বিশেষ ট্রেডমিলের উপর তাদের অনুশীলন করতে হয়। ভ্যাকুয়ামের এক বস্তা তাদের শরীরের ওজন ধরে রাখে৷ মাধ্যাকর্ষণ ও গতি ধাপে ধাপে নিয়ন্ত্রণ করা যায়৷ যতটা সম্ভব নাক দিয়ে নিঃশ্বাস নেওয়ার সীমা কিন্তু অতিক্রম করা হয় না।

টোমাস ভাইস তাঁর কাজের বৈজ্ঞানিক গুরুত্ব নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর। এখনো পর্যন্ত শ্বাস-প্রশ্বাস নিয়ে খুব কম গবেষণা হয়েছে। তিনি এখনো পর্যন্ত তাঁর ব্রিদিং ও রিল্যাক্সিং থেরাপির মাধ্যমে প্রায় ১০ হাজার রোগীকে সাহায্য করতে পেরেছেন। অবশ্যই শুধু শ্বাসপ্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে সব রোগের চিকিৎসা সম্ভব নয়৷ ড.ভাইস বলেন, ‘কোনো টিউমার, পা ভাঙা বা ফুসফুসের প্রদাহের ক্ষেত্রে সেটা কাজ করে না৷ তবে কঠিন বিঘ্নের ক্ষেত্রে অবশ্যই কার্যকর হয়৷ মাথাব্যথা, ফাইব্রোমায়ালজিয়া সিন্ড্রোম, ইরিটেবল বাওয়েল সিন্ড্রোম, মাথাঘোরা এবং দ্রুত ক্লান্ত হয়ে পড়ার মতো সমস্যার উন্নতির ক্ষেত্রে শ্বাসপ্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে স্পষ্ট উন্নতি সম্ভব৷ কখনো খুব কম সময়ের মধ্যেই উপকার পাওয়া যায়।’

সঠিকভাবে শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার বিষয়টি আধুনিক চিকিৎসাবিদ্যায় সবে আবিষ্কার করা হচ্ছে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles