13.5 C
Toronto
রবিবার, মে ১৯, ২০২৪

সাম্প্রদায়িক দল বিজেপির সঙ্গে হাত মিলিয়েছে সরকার : নূর

সাম্প্রদায়িক দল বিজেপির সঙ্গে হাত মিলিয়েছে সরকার : নূর

গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুল হক নুর বলেছেন, আওয়ামী লীগ মুখে অসাম্প্রদায়িকতার কথা বললেও অবৈধভাবে ক্ষমতায় থাকতে এখন ভারতের সাম্প্রদায়িক দল বিজেপির সঙ্গে হাত মিলিয়েছে।

- Advertisement -

তিনি আরও বলেন, কিছুদিন আগে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দল ভারতে গেছে, ক্ষমতায় থাকতে ভারতের সাম্প্রদায়িক দল বিজেপির সঙ্গে চুক্তি করেছে, তারা যেন আওয়ামী লীগকে আবার ক্ষমতায় আনে। তাই এদের হাতে এখন আর দেশ-জনগণ, দেশের মানুষের ধর্ম-কর্ম নিরাপদ নয়।

শুক্রবার বিকালে গণঅধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে, ডাকসুর সাবেক ভিপি, গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুরুলহক নুরকে হত্যা চেষ্টার উদ্দেশ্যে হামলাকারীদের গ্রেপ্তার, ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লাসহ আটক সব রাজবন্দীদের মুক্তি ও যুগপৎ আন্দোলনের এক দফা দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও গণমিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে নুরুল হক নুর বলেন, ‘সরকার দু’টো কারণে আমার ওপর ক্ষুব্ধ। এক, প্রতিনিয়ত এই সরকারের অন্যায়-অবিচার, দুর্নীতি-দুঃশাসন নিয়ে রাজপথে সোচ্চার থাকায়।

দুই, এই সরকারের ফাদার-মাদার, যারা এই সরকারকে ক্ষমতায় এনে টিকিয়ে রেখেছে, সেই ভারতীয় আগ্রাসন ও আদিপত্যবাদের বিরুদ্ধে কথা বলায়। এসব কারণে বার বার আমার ও আমাদের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা করে। আমাদের ছাত্র, যুব, শ্রমিকসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের প্রতি নজরদারি, হুমকি-ধামকি দিচ্ছে।

হামলা-মামলা, হুমকি-ধামকি দিয়ে অবৈধভাবে ক্ষমতায় থাকা যাবে না উল্লেখ করে নুরুল হক নুর সরকারকে নিজেদের সেইফ এক্সিটের জন্য হলেও অনতিবিলম্বে ছাত্রনেতা বিন ইয়ামিন মোল্লা, গোপালগঞ্জের ছাত্রনেতা ঈসমাইল সহ সব রাজবন্দীদের মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে অনতিবিলম্বে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে নিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রাশেদ খান বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার জন্য বিদেশিদের কাছে ধরনা ধরা শুরু করেছে। তবে এইবার আর বিদেশি হস্তক্ষেপে ক্ষমতা থাকা যাবে না। এইবার গণআন্দোলনের মাধ্যমেই আওয়ামী লীগ সরকারের পতন হবে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল না করে নতুন নাটক শুরু করেছে। কোনো নিপীড়নমূলক আইন মানা হবে না। নির্বাচন কমিশন নামসর্বস্বদের নিবন্ধন দিয়েছে, ভূঁইফোড় পর্যবেক্ষক সংস্থাকে পর্যবেক্ষক করার অনুমোদন দিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচন কমিশন অবৈধ সরকারকে আবারও ক্ষমতা আনার চেষ্টা করলে, এই নির্বাচন কমিশনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আসবে। সুতরাং ১৪ ও ১৮ মার্কা নির্বাচন করার পাঁয়তারা করবেন না। আজকে ঢাকা শহরে সরকারের পদত্যাগের দাবিতে গণমিছিল হয়েছে, এই গণমিছিল অচিরেই গণঅভ্যুত্থানে রুপ নিবে। এজন্য আমাদের সব রাজপথে থাকতে হবে। আওয়ামী লীগের পতনে রাজপথে থাকার বিকল্প নাই। কোনো বিদেশি শক্তির হস্তক্ষেপে ক্ষমতার পালাবদল হলে, আমাদের সারাজীবন মেরুদণ্ডহীন থাকতে হবে। সুতরাং স্বাবলম্বী জাতি হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে শ্রীলঙ্কার জনগণের মত রাজপথেই মুক্তির আন্দোলন গড়ে তুলে সরকারের পতন নিশ্চিত করতে হবে”।

বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে পল্টন কার্যালয়ের সামনে থেকে গণমিছিল শুরু করে, ফকিরাপুল, নয়াপল্টন, নাইটিংগেল মোড়, বিজয়নগর, গুলিস্তান জিরো পয়েন্ট ঘুরে পল্টন মোড়ে এসে শেষ হয়।

গণঅধিকার পরিষদের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সোহরাব হোসেন ও সাবেক যুগ্ম সদস্যসচিব মশিউর রহমানের সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, গণঅধিকার পরিষদের উচ্চতর পরিষদের সদস্য আবু হানিফ, শাকিল উজ্জামান, হানিফ খান সজিব, শহিদুল ইসলাম ফাহিম, ফাতেমা তাসনিম, সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক বিপ্লব কুমার পোদ্দার, মাহফুজুর রহমান, সাবেক সহকারি আহ্বায়ক বায়জিদ শাহেদ, সাবেক যুগ্ম সদস্যসচিব জিলু খান, সাবেক সহকারী সদস্যসচিব আনিসুর রহমান মুন্না, সাবেক সদস্য তোফাজ্জল হোসেন, ছাত্র অধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আদিব, যুব অধিকার পরিষদের সভাপতি মনজুর মোর্শেদ, সাধারণ সম্পাদক নাদিম হাসান, শ্রমিক অধিকার পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহমান প্রমুখ।

সূত্র : ঢাকাটাইমস

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles