14.1 C
Toronto
বুধবার, মে ২৯, ২০২৪

বঙ্গবন্ধুর দুই খুনি যুক্তরাষ্ট্র-কানাডায়, তিনজনের খোঁজ নেই

বঙ্গবন্ধুর দুই খুনি যুক্তরাষ্ট্র-কানাডায়, তিনজনের খোঁজ নেই
বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত ৫ খুনি ফাইল ছবি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনিদের মধ্যে পাঁচজনের বিচার এখনও নিশ্চিত করতে পারেনি সরকার। তারা হলেন- আব্দুর রশীদ, শরীফুল হক ডালিম, মোসলেম উদ্দিন, রাশেদ চৌধুরী ও এবিএমএইচ নূর চৌধুরী।

তবে বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি রাশেদ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে এবং নূর চৌধুরী কানাডায় অবস্থান করছেন। বাকি তিনজনের কোনো খোঁজ এখন পর্যন্ত পায়নি সরকার কিংবা গোয়েন্দারা। তবে মোসলেম উদ্দিন ভারতে আছেন বলে কয়েক আগে বছর পত্রিকায় খবর এলেও তার ‘সত্যতা নিশ্চিত’ হতে পারেনি বাংলাদেশ সরকার।

- Advertisement -

যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে থাকা রাশেদ চৌধুরীকে রাজনৈতিক আশ্রয় দেয়ার সিদ্ধান্ত সে দেশের সরকার পর্যালোচনার উদ্যোগ নেয়ার খবর গত বছর প্রকাশিত হয়েছিল৷ দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়ের এই উদ্যোগে সেখানে তার রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন বাতিলের সম্ভাবনা তৈরি হয়৷ তবে এই বিষয়ে আর কোন অগ্রগতি জানা যায়নি৷

কানাডায় অবস্থানরত নূর চৌধুরীকে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে বিভিন্ন সময় চেষ্টা করেছে সরকার৷ তবে আইনি জটিলতার কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। দেশটির আইনে মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধ৷ অন্য দেশের মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকেও তাই তারা ফেরত পাঠাতে পারে না৷

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে জাতির পিতা ও তার পরিবারের সদস্যদের স্মরণে ১৯টি বৃক্ষ রোপণকালে সাংবাদিকদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, এখনও বঙ্গবন্ধুর খুনিরা বিভিন্ন দেশে লুকিয়ে আছে এবং আমরা দুটো কেইস জানি। একজন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আছে, আরেকজন কানাডায় আছে। বাকি তিনজনের খবর আমরা ঠিক জানি না। যারা আত্মস্বীকৃত খুনী, তারা যে ওখানে আছে। আর ওই সমস্ত দেশ মানবিকতার কথা বলে, মানবাধিকারের কথা বলে, কিন্তু আত্মস্বীকৃত খুনিকে ওরা ওখানে রেখেছে। তাদের জন্য এটা লজ্জার।

এর আগে জানা গেছে, পুলিশ সদর দপ্তরের এনসিবি (ইন্টারপোল) শাখার মাধ্যমে পাঁচ খুনির বিষয়ে রেড নোটিশ জারি রয়েছে। ইতোমধ্যে রেড নোটিশের মেয়াদ আরও পাঁচ বছর বাড়ানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবার নির্মমভাবে হত্যা করে একদল বিপথগামী সেনা সদস্য। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরপরই দায়মুক্তি (ইনডেমনিটি) অধ্যাদেশ জারি করা হয়। ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর দায়মুক্তি আইন বাতিল করে আওয়ামী লীগ সরকার। ওই বছরের ২ অক্টোবর ধানমণ্ডি থানায় বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিগত সহকারী মহিতুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন। ১৯৯৮ সালের ৮ নভেম্বর তৎকালীন ঢাকার দায়রা জজ কাজী গোলাম রসুল ১৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে রায় দেন। নিম্ন আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে আসামিদের আপিল ও মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিতের শুনানি শেষে ২০০০ সালের ১৪ ডিসেম্বর হাইকোর্ট দ্বিধাবিভক্ত রায় দেন। ২০০১ সালের ৩০ এপ্রিল হাইকোর্টের তৃতীয় বেঞ্চ ১২ আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে তিনজনকে খালাস দেন। এরপর ১২ আসামির মধ্যে প্রথমে চারজন ও পরে একজন আসামি আপিল করে। ২০০৭ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. তাফাজ্জাল ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির বেঞ্চ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পাঁচ আসামির লিভ টু আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন। দুই বছর পর ২০০৯ সালের অক্টোবরে শুনানি শুরু হয়। ২০০৯ সালের ১৯ নভেম্বর সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ পাঁচ আসামির আপিল খারিজ করেন। এতে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের নৃশংসভাবে হত্যার দায়ে হাইকোর্টের দেওয়া ১২ আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল থাকে।

২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি দিবাগত রাতে সৈয়দ ফারুক রহমান, বজলুল হুদা, এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদ, সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খান ও মুহিউদ্দিন আহমেদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। রায় কার্যকরের আগেই ২০০২ সালে পলাতক অবস্থায় জিম্বাবুয়েতে মারা যায় খুনী আজিজ পাশা। আরেক পলাতক আসামি খুনি ক্যাপ্টেন (বরখাস্তকৃত) আবদুল মাজেদের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে গত বছরের ১২ এপ্রিল। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত ও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পাঁচ খুনি খন্দকার আবদুর রশীদ, শরিফুল হক ডালিম, মোসলেম উদ্দিন, এসএইচএমবি নূর চৌধুরী ও এএম রাশেদ চৌধুরী এখনও পলাতক।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles