15.7 C
Toronto
সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

পাল্টাপাল্টি আক্রমণ : রেজা-নুরের হাড়ির খবর ফাঁস

পাল্টাপাল্টি আক্রমণ : রেজা-নুরের হাড়ির খবর ফাঁস

বহিষ্কার পাল্টা বহিষ্কারের পর এবার পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন করলেন গণঅধিকার পরিষেদের আহ্বায়ক পদ থেকে সদ্য অভিশংসন হওয়া নেতা ড. রেজা কিবরিয়া ও সদস্য সচিব নুরুল হক নুর। একে অণ্যের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগও তুলেছেন ওই সংবাদ সম্মেলনে।

- Advertisement -

রেজা কিবরিয়ার অভিযোগ, নুর বিশ্বাসঘাতক, সে দেশের জন্য ভয়ংকর লোক। ইসরাইলের পক্ষে বাংলাদেশে বসে কাজ করছে। তাকে গ্রেপ্তার করে রহস্য উদঘাটন করতে সরকারের কাছে আহ্বানও জানান তিনি।

আর নুরুল হক নুরের অভিযোগ, সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে ড. রেজা কিবরিয়া ইনসাফ কায়েমের মিটিংয়ে গিয়েছিলেন। তিনি উদ্ভট চরিত্রের লোক।

রবিবার সকালে রাজধানীর গুলশান-২-এ নিজের বাসায় সংবাদ সম্মেলন করেন রেজা কিবরিয়া। আর বিকালে রাজধানীর পল্টনে গণঅধিকার পরিষদের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন নুর।

সংবাদ সম্মেলনে রেজা কিবরিয়া বলেন, নূর বিশ্বাসঘাতক। সে সারা দেশের যুব সমাজের সঙ্গে, দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করছে। যুব সমাজের আকাঙ্ক্ষাকে মাটি করে, নিজের ব্যক্তিগত কিছু রাজনৈতিক সুবিধা নিতে চায় বলে আমার ধারণা।

নুর মোসাদের সঙ্গে আলোচনার কথা স্বীকার করেছে দাবি করে রেজা কিবরিয়া বলেন, সরকার ও গোয়েন্দা সংস্থার উচিৎ নুরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা। তার বিষয়টি রহস্যজনক। তাকে গ্রেপ্তার করা উচিৎ। নুর সরকারের ইন্ধনে অনেক কিছু করে, তাই তার প্রতি অন্যরকম আচরণ করছে সরকার। সংগঠনের টাকার হিসাবও সে দিচ্ছে না।

নূরসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করবেন উল্লেখ করে রেজা কিবরিয়া বলেন, আমাকে পদ থেকে সরানোর জন্য সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী যে ভোট দরকার তা হয়নি। যার ফলে মিথ্যা স্বাক্ষর দিয়েছে, এটা তার অপরাধ। বিএনপি ভাঙ্গার কোনো ইচ্ছা বা শক্তি তার নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি চাই বিএনপি একসঙ্গে থাকুক। এটা ভাঙলে আওয়ামী লীগের লাভ, আমি তাদের লাভ চাই না। বরং নুরই বিএনপিকে ভাঙ্গার পাঁয়তারা চালিয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, নুর সরকারি কিছু লোকের সঙ্গে বিভিন্ন আলোচনা করছে এবং নির্বাচনে যাওয়ার জন্য পায়তারা করছে। আমার জানামতে সে জাহাঙ্গীর কবির নানক, রাশেদ খান মেনন ও হাসানুল হক ইনুর সঙ্গে দেখা করেছে। সে বোধহয় ওদের মতো হতে চায়। মন্ত্রী হবে কিছু টাকা পয়সা বানাবে। আর এটাতেই সে সন্তুষ্ট।

বিকালে পাল্টা সাংবাদ সম্মেলনে নুর বলেন, মোসাদের সঙ্গে আমার কোনো বৈঠক হয়নি, আর্থিক লেনদেন হয়নি। আমাদের বিরুদ্ধে এ সব অপপ্রচার করা হচ্ছে। রেজা কিবরিয়া যা বলেছেন তা অসত্য এবং অপপ্রচার।

দল পরিচালনায় অর্থের জোগানের বিষয়ে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মতো বড় বড় রাজনৈতিক দলগুলো ডোনারদের সহায়তায় পরিচালিত হচ্ছে। আমাদের তো ব্যবসায়ীরা টাকা দেবে না, আমাদের দল পরিচালিত হচ্ছে বখশিসের টাকায়। কেউ যদি আমাদের বখশিস দিতে চায়, অবশ্যই আমরা তা নেব।

নুর জানান, গণঅধিকার পরিষদের নেতৃত্ব ঠিক করতে আগামী ১০ জুলাই ঢাকায় একটি কাউন্সিল করে নতুন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ঠিক করা হবে।

অভ্যন্তরীণ নানা বিষয় নিয়ে গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক রেজা কিবরিয়া ও সদস্য সচিব নুরুল হক নুরের মধ্যে বেশ কিছুদিন ধরেই মতানৈক্য চলছিল। গত ১৮ জুন দলটির কেন্দ্রীয় পরিষদের বৈঠকে বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। এরপর নুরের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত দলের এক বিশেষ সভায় রেজা কিবরিয়াকে বাদ দিয়ে ১ নং যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খানকে ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক ঘোষণা করা হয়। এই সিদ্ধান্ত অবৈধ জানিয়ে রেজা কিবরিয়া ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনোনয়ন এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নেতাদের বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক পোস্ট দিয়ে দলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগ এনে রাশেদ খান ও নুরকে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেন। দুজনকে কারণ দর্শানোর নোটিশও দেন তিনি। গত ২৩ জুন রেজা কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের সিদ্ধান্ত নেন নুরপন্থীরা। রেজা কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবে আনার এক সপ্তাহের মধ্যে ব্যাখ্যা চেয়ে একটি চিঠিও দেওয়া হয়। এপর গত শনিবার জরুরি সভায় দলের দুই তৃতীয়াংশের মতামতের ভিত্তিতে রেজা কিবরিয়াকে অভিশংসন করা হয়।

সূত্র : ঢাকাটাইমস

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles