-4.5 C
Toronto
বুধবার, ফেব্রুয়ারী ১, ২০২৩

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গেজেট প্রকাশের পর তা বাতিল অবৈধ

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গেজেট প্রকাশের পর তা বাতিল অবৈধ

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গেজেট প্রকাশের পর তা বাতিল করা যাবে না। এই এখতিয়ার জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) নেই উল্লেখ করে রায় ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থানায় নৌ-কমান্ডো প্রশিক্ষণ নেওয়া ২২ জন বীর মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি সংক্রান্ত গেজেট বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছেন আদালত।
এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে বৃহস্পতিবার বিচারপতি জুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি কাজী এবাদত হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

- Advertisement -

আদালতে রিটকারীদের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন ব্যারিস্টার তৌফিক ইনাম। রায়ের পর তিনি বলেন, যেসব বীর মুক্তিযোদ্ধা গেজেটভুক্ত হয়েছেন তাদের সনদ বাতিল করার এখতিয়ার জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) নেই বলে রায় দিয়েছেন আদালত। এ বিষয়ে জারি করা রুল যথাযথ ঘোষণা করে এ রায় দিয়েছেন আদালত। লিখিত রায়ে আরো বিস্তারিত থাকবে।

রিট আবেদনকারী ২২ জনসহ মুক্তিযুদ্ধকালীন ৪৭৯ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা ভারত থেকে নৌ-কমান্ডো প্রশিক্ষণ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। স্বাধীনতার পর সাত সদস্য বিশিষ্ট জাতীয় কমিটি ২০০১ সালে তাদের তালিকা চূড়ান্ত করেছিল। পরে ২০০৪ সালের ১৫ জুন এবং ২০০৫ সালের ১৭ এপ্রিল দুই দফায় ৪৭৯ জন নৌ-কমান্ডোর নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে গেজেটভুক্ত করা হয়। এরপর থেকে তারা মুক্তিযোদ্ধা সন্মানী ভাতা পাচ্ছেন। তবে ২০১৬ সালের ৭ এপ্রিল জামুকার ৩৫তম সভায় রিট আবেদনকারীসহ ২৪ জন বীর মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি সংক্রান্ত গেজেট বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ঐ বছরের ৮ মে হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু হান্নান সরকারসহ ২২ জন। পরে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থানার ২২ নৌ-কমান্ডো মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি সংক্রান্ত গেজেট বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত করে ২০১৬ সালে আদেশ দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে এই ২২ নৌ-কমান্ডো মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি সংক্রান্ত গেজেট বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে রুল জারি করেন। দীর্ঘদিন পর ঐ রুলের শুনানি শেষে রায় ঘোষণা করলেন আদালত।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles