রেজা কিবরিয়া-নূরের নতুন দলের আত্মপ্রকাশ কাল

- Advertisement -


রাজনীতি করতে এসে বাবার আদর্শের দল আওয়ামী লীগে স্থান না পেয়ে প্রয়াত সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়া যোগ দিয়েছিলেন ড. কামাল হোসেনের দল গণফোরামে। দলটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বও পেয়েছিলেন। কিন্তু আদর্শের মিল না হওয়ায় গণফোরাম ত্যাগ করেন। এখন ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হককে নিয়ে গঠন করছেন নতুন মধ্যপন্থী রাজনৈতিক দল। আগামীকালই ঘোষণা আসতে পারে নতুন এ দলের।

রেজা কিবরিয়ার সঙ্গে নতুন রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বে থাকছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নূর, রাশেদসহ বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের অনেক নেতাই। হল বুকিং পাওয়া সাপেক্ষে আগামীকাল বা পরদিন নতুন দলের যাত্রা শুরু হতে পারে।

- Advertisement -

এ প্রসঙ্গে ড. রেজা কিবরিয়া জানান, দেশকে কিছু দেওয়ার জন্যই বিদেশ থেকে লোভনীয় চাকরি ছেড়ে এসেছি। সেখানে ভালোই ছিলাম। কিন্তু দেশের জন্য যদি কিছু করতে পারি, তার দাম আমার কাছে অনেক বেশি। দেশবাসীর দোয়া ও তাদের পাশে চাই। হল পাওয়া সাপেক্ষে আগামী ২০ অক্টোবর (বুধবার) আমরা দলের আত্মপ্রকাশ করার চিন্তাভাবনা করছি। আমরা জাতির সামনে আমাদের ঘোষণাপত্র তুলে ধরতে চাই। ডান-বাম সবাইকে নিয়েই হবে নতুন দল।

আলাপচারিতায় নবীণ রাজনীতিবিদ রেজা কিবরিয়া বলেন, আমাদের দল হবে নির্বাচনমুখী। তবে কোনো প্রতারণামূলক নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ইচ্ছা আমাদের নেই। আমরা মনে করি, আওয়ামী লীগ ১৫ বছর আগে গ্রহণযোগ্য দল ছিল। এখন তারা জনগণের গ্রহণযোগ্য দল নয়। কারণ, আওয়ামী লীগ এখন গণরায় বা জনগণকে ভয় পায়। তারা জনগণের রাজনীতি করে না। এখানে তারা বড় ধরনের শূন্যতা তৈরি করেছে। আমরা সেই শূন্যতাই পূরণ করতে চাই। আমরা একটি মধ্যমপন্থা গণতান্ত্রিক দল হিসেবে মাঠে নামতে চাই। ডান-বাম সব পক্ষকেই সমন্বয় করে নতুন নেতৃত্বে চলবে আমাদের দল।

- Advertisement -

ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, নতুন দলের ঘোষণার একটু বিলম্বের কারণ হলো- এ নিয়ে নূর, রাশেদসহ সংশ্লিষ্ট সবাই তৃণমূল পর্যায়ে অনেকের সঙ্গেই কথা বলছেন। সবার সঙ্গে কথা বলেই নতুন দল গঠন করা হচ্ছে। আমরা কী করতে চাই, তা নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে চাই। এ সরকারের অন্যায়, জুলুম-নির্যাতন, মানবাধিকার লঙ্ঘন, গুম, খুনের বিরুদ্ধে আমরা অবস্থান নেব। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারবিরোধী দলগুলো ঐক্যবদ্ধ না থাকলে এই অপশক্তিকে হটানো যাবে না। আমাদের দল আত্মপ্রকাশ ঘটলে প্রয়োজনে আমরা বিএনপির সঙ্গেও আলোচনায় বসব। বিএনপি নেতাদের সঙ্গে আমাদের কথাবার্তা হয়। আমরা চাই, ডান-বাম সবার ঐক্য। সবাই একত্রে কাজ না করলে এই সরকারকে সরাতে পারব না। তাদের সঙ্গে জনগণের সম্পর্ক না থাকলেও কিছু অপশক্তির সঙ্গে যোগসাজশ আছে। আমরা মনে করি, জনগণের জয় হবেই। এই মুহুর্তে আওয়ামী লীগের ১৫ শতাংশ জনগণের সমর্থন আছে কি না তা নিয়েও সন্দেহ আছে। এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগ মুসলিম লীগের মতো দলে পরিণত হবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই আওয়ামী লীগ বিলুপ্ত হবে ইনশাআল্লাহ।

- Advertisement -

ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, আওয়ামী লীগ আগে বলত, তারা গণতান্ত্রিক ও মানুষের বাক স্বাধীনতার পক্ষের দল। এটা এখন মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। আমাদের কাজ হবে, দেশকে গণতান্ত্রিক ধারায় ফিরিয়ে আনা। মানুষের ব্যক্তি স্বাধীনতা ফিরিয়ে দেওয়া। দেশের সাধারণ মানুষের জন্য কিছু করা। বিগত ৫০ বছরে কোটিপতি শ্রেণি তৈরি হয়েছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের পক্ষে কথা বলার দল খুবই কম। আমরা সাধারণ মানুষের পক্ষেই থাকব। দেশকে অনেক শক্তিশালী ও সমৃদ্ধ করতে চাই। দেশ পরিচালনায় দক্ষ ও যোগ্য লোকদের দেখতে চাই। দুর্নীতিবাজ, ঘুষখোর, চুরি বা তোষামোদীদের নেতৃত্বে দেখতে চাই না। আমরা নতুন একটি দেশ গড়তে চাই। সেই আশা নিয়েই নতুন দলের যাত্রা শুরু হবে। এটা হবে জনগণের গ্রহণযোগ্য নির্বাচনমুখী দল। নতুন দলের ভিশন কী জানতে চাইলে ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, আমাদের ভিশন অন্যদের চেয়ে ব্যতিক্রম। আমাদের ভিশন পাঁচটি। এক নম্বর হলো, বাংলাদেশের জনগণ সব রাজনৈতিক ক্ষমতার উৎস। এটা নিয়ে কোনো বিতর্কের সুযোগ নেই। এটা প্রতিষ্ঠা করতে চাই। দ্বিতীয়ত, দেশ চলবে বাংলাদেশের মানুষের মতামতের ভিত্তিতে। অর্থাৎ ‘বাংলাদেশ ফাস্ট’। দেশের মানুষের সুবিধা অসুবিধাকে বিবেচনায় নিয়ে আমরা অন্য দেশের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলতে চাই। তৃতীয়ত, আমাদের ঘোষণাপত্রে মানুষের বাক স্বাধীনতা ও ভিন্নমত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকবে। ভিন্নমতের মানুষকে ‘ব্ল্যাক’ আইনে অত্যাচার নির্যাতন বন্ধ করা হবে। চতুর্থত, যে মানুষটি দরিদ্রতার কশাঘাতে জন্মগ্রহণ করে সেখান থেকে তুলে আনার ব্যবস্থা করব। এটা সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য। আমরা তাদের মৌলিক অধিকার পূরণ করতে চাই। পঞ্চমত, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য কী ধরনের বাংলাদেশ রেখে যাব তার একটি রূপরেখা দেব। আমরা চাই বৈষম্যমুক্ত বাংলাদেশ। মর্যাদাশীল দেশে পরিণত করব মাতৃভূমিকে। আমাদের চিন্তাধারা অন্য দলের থেকে আলাদা। কেউ কিন্তু ভবিষ্যৎ প্রজন্ম নিয়ে কিছু বলে না বা করে না। বাংলাদেশে যে সামাজিক বৈষম্য বেড়েছে তা কল্পনাও করা যায় না।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles