19.3 C
Toronto
সোমবার, জুন ২৭, ২০২২

কুইবেক আইনসভায় নতুন ভাষা আইন পাস

- Advertisement -
কুইবেক আইনসভায় নতুন ভাষা আইন পাস
কুইবেক প্রিমিয়ার ফ্রাসোয়া ল্যাগোস

কুইবেক আইনসভায় বৃহস্পতিবার ভাষা আইনের সংশোধনী পাস হয়েছে। নতুন এই ভাষা আইন যে ইংরেজিতে স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তিতে কোনো ধরনের বাধা হয়ে দাঁড়াবে না অ্যাংলোফোনদের সেই নিশ্চয়তা দিয়েছেন কুইবেকের প্রিমিয়ার ফ্রাসোয়াঁ লেগু।

বিল ৯৬ নামে আইনটি ৭৮-২৯ ভোটে পাস হয়। লিবারেল পার্টি ও পার্টি কুইবেকোয়িসের বিরোধিতার মধ্যেই আইনটি পাস হয়েছে।

জ্টো সরকারের অংশীদার অ্যাভেনির কুইবেক পার্টি আইনটি উত্থাপন করে। আইনটির ওপর ভোটাভুটির পর ফ্রাসোয়াঁ লেগু আইনটিকে মডারেট আখ্যা দিয়ে লিবারেল ও পার্টি কুইবেকোয়িসের মধ্যে ভারসাম্য আনয়ন বলে মন্তব্য করেন।

আইনটির ফলে স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তি কঠিন হবে বলে বিরোধীদের বক্তব্যেরও সমালোচনা করেন কুইবেকের প্রিমিয়ার। আইনসভায় তিনি বলেন, ইংরেজিতে আপনাদের স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তিকে সুরক্ষা দেওয়ার ব্যাপারে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এটা একটি ঐতিহাসিক প্রতিশ্রুতি, যা আমরা রক্ষা করবো। কুইবেকে ইংরেজিভাষীদের চেয়ে ভালো সেবা পেয়ে থাকেন ভাষাভিত্তিক এমন কোনো সংখ্যালঘু কমিউনিটির কথা আমার জানা নেই। আমরা তা নিয়ে গর্বিত। একইভাবে উত্তর আমেরিকার ফ্র্যাঙ্কোফোন জাতি হিসেবেও আমরা গর্বিত। আমাদের সাধারণ ভাষা রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব।
লেগু বলেন, আমার বিশ^াস কুইবেকের অধিকাংশ মানুষের আইনটির প্রতি সমর্থন রয়েছে। খুব কম মানুষই আছে যারা প্রদেশটিকে দ্বিভাষী হিসেবে দেখতে চান। অধিকাংশ অ্যাংলোফোন ফ্রেঞ্চকে কুইবেকের সাধারণ ভাষা হিসেবে মেনে নিয়েছেন। উত্তর আমেরিকায় আমরা অনন্য। আমরা ফ্রেঞ্চ ভাষায় কথা বলি। মন্ট্রিয়লে লোকজন ফ্রেঞ্চ ভাষায় হাসিঠাট্টা করে। কিন্তু সেখানকার স্কুল ও হাসপাতালে সেবা নিতে হয় ইংরেজিতে। দুই জগতেই অ্যাংলোফোনরা সেরা।
প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো এদিন বলেন, কুইবেকের ইংরেজিভাষী সংখ্যালঘুদের ওপর বিলটির প্রভাব নিয়ে আমি চিন্তিত। বিলটির বিরুদ্ধে আদালতে চ্যালেঞ্জ করা হলে ফেডারেল সরকার তাতে সমর্থন দেবে কিনা সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে বিলের চূড়ান্ত সংস্করণ দেখা পর্যন্ত অপেক্ষা করা হবে।

ভ্যানকুভারে সাংবাদিকদের ট্রুডো বলেন, বিল ৯৬ এর সাম্প্রতিক সংস্করণ নিয়ে আমাদের উদ্বেগ আছে। শেষ পর্য়ন্ত এটি কি রূপ নেয় সেদিকে খুবই সাবধানতার সঙ্গে নজর রাখা আমরা অব্যাহত রাখবো। সারাদেশে সংখ্যালঘুদের সুরক্ষিত রাখার ওপর ভিত্তি করে আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত নেবো।
আইনটির বিরুদ্ধে আইনী চ্যালেঞ্জের পরিকল্পনা এরইমধ্যে হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন সাংবিধানিক আইনজীবী জুলিয়াস গ্রে।

প্রদেশে কমপক্ষে ছয় মাস থাকার পর অভিবাসীদের সরকারের সঙ্গে ফ্রেঞ্চ ভাষায় যোগাযোগ করতে হবে। এ নিয়ে উদ্বেগ থাকার পরও বিলটির পক্ষে ভোট দিয়েছে কুইবেকের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিরোধী দল কুইবেক সলিডেয়ার। তবে লিবারেল পার্টির বিলটির বিপক্ষে ভোট দেওয়ার একাধিক কারণ আছে বলে জানান লিবারেল নেতা ডমিনিক অ্যাঙ্গলেড।

 

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles