21.5 C
Toronto
শনিবার, মে ২৮, ২০২২

দেশ ও সমাজ নিয়ে কিছু কথা

- Advertisement -
দেশ ও সমাজ নিয়ে কিছু কথা - The Bengali Times
সাবেক ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী সচিব সারওয়ার আলম

সাবেক ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী সচিব সারওয়ার আলমকে ফেসবুকে মন্তব্য করার দায়ে শাস্তি দেয়া হয়েছে।

“সারওয়ার আলম গত বছরের ৮ মার্চ তাঁর ফেসবুক আইডিতে ‘চাকরিজীবনে যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী অন্যায়, অনিয়মের বিরুদ্ধে লড়েছেন তাঁদের বেশির ভাগ চাকরিজীবনে পদে পদে বঞ্চিত ও নিগৃহীত হয়েছেন এবং এ দেশে অন্যায়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়াটাই অন্যায়’ বলে মন্তব্য করেন।

- Advertisement -

একজন সরকারি কর্মচারী হয়ে সরকার ও কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে এ ধরনের ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করার মাধ্যমে তিনি অকর্মকর্তাসুলভ আচরণ করেছেন। এতে জনপ্রশাসনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হওয়ায় সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা অনুযায়ী অসদাচরণের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়। এরপর এ বিষয়ে তদন্ত হয়।”

যদিও শাস্তিটি ছিল “তিরস্কার” তবুও সেটি রেকর্ডেড শাস্তি। অর্থাৎ তার চাকুরী জীবনের আমলনামায় সেটি স্হায়ীভাবে একটি ক্ষত হিসেবে থেকে যাবে যা তার ভবিষ্যত ক্যারিয়ারের জন্য ক্ষতিকর হিসেবে বিবেচনা করা হতে পারে।

সারওয়ার আলম যখন RAB এর ম্যাজিষ্ট্রেট ছিলেন তখন বেশ আলোচিত ছিলেন। প্রশ্ন হলো সারওয়ার আলম ফেসবুকে মন্তব্যের মাধ্যমে যে অভিযোগটি করেছেন সে বিষয়ে কি কখনো তদন্ত হবে? সেটা সত্য না মিথ্যা তার কি কখনো সুরাহা হবে?

এর আগেও আমরা দেখেছি যখনই এরকম কোন গুরতর অভিযোগ কেউ করেন তখন সেই অভিযোগ বা অনিয়ম আদৌ হয়েছে কিনা বা হয়ে থাকলে তা কিভাবে থামানো যায় এবং তার প্রতিকার নিয়ে কখনো কোন দায়িত্বশীল কেউ কথা বলেন না, ব্যবস্হা নেন না। কিন্তু অভিযোগ কেন করলো সেই কারণে অভিযোগকারীর বিরুদ্ধে ক্রমাগত বিষোদগার করা হয় এবং তা মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক প্রমান করার চেষ্টা করা হয়।
ফলে এই ধরনের ঘা ধীরে ধীরে দেশ ও সমাজকে আরো পচনশীল করে তোলে যা একসময় অনিরাময়যোগ্য হয়ে উঠে। এর ফল চিন্তা করলেও গা শিউরে উঠে।

স্কারবোরো, অন্টারিও, কানাডা

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles