15.3 C
Toronto
রবিবার, মে ২২, ২০২২

পরকীয়া সন্দেহে স্বামীর বিশেষ অঙ্গ কেটে হাতে নিয়ে থানায় গেলেন স্ত্রী

- Advertisement -
পরকীয়া সন্দেহে স্বামীর বিশেষ অঙ্গ কেটে হাতে নিয়ে থানায় গেলেন স্ত্রী - The Bengali Times
প্রতীকী ছবি

গাজীপুরে পরকীয়া সন্দেহে স্বামীর (৩১) বিশেষ অঙ্গ কেটে হাতে নিয়ে থানায় গেলেন স্ত্রী। তালাবদ্ধ ঘর থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয় পুলিশ। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার দিবাগত মধ্যরাতে (চাঁদরাতে) শ্রীপুর পৌর এলাকায় কেওয়া দক্ষিণ খণ্ড গ্রামের চেয়ারম্যানবাড়ি মোড় এলাকায় আমান উল্ল্যাহ্ আমাদের মালিকানাধীন ভাড়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

- Advertisement -

ভুক্তভোগী যুবকের নাম মো. শরিফ (৩১)। তিনি গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার সোহাগপুর গ্রামের আলা উদ্দিনের ছেলে। অভিযুক্ত স্ত্রীর নাম হনুফা (৩০)। তিনি একই জেলার শ্রীপুর উপজেলার গাজিয়ারন গ্রামের আবু হানিফ বেপারীর মেয়ে। তিনি শরিফের দ্বিতীয় স্ত্রী। ৮-৯ মাস আগে প্রথম স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার পর হনুফাকে বিয়ে করেন শরিফ।
সংবাদমাধ্যমে হনুফার ভাষ্য, ৫ মাস আগে শরীফকে ভালোবেসে বিয়ে করি। আমার আগের সংসারে স্বামী ও দুই ছেলে সন্তান রেখে তাকে বিয়ে করেছি। সে এখন অন্য মেয়ের সঙ্গে পরকীয়া করে। এ নিয়ে তাদের সংসারে কয়েকদিন ধরে কলহ চলে আসছিল।

বাড়ির মালিক আমান উল্ল্যাহ আমানের স্ত্রী রহিমা খাতুন সংবাদমাধ্যমকে জানান, স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে তার বাড়িতে একটি টিনশেড ঘর ভাড়া নেন শরিফ। জানানো হয় তিনি জয়দেবপুর এলাকায় চাকরি করেন। পাশাপাশি স্ত্রী ঘরে সেলাইয়ের কাজ করেন। তাদের মধ্যে কোনো ধরনের কলহ ছিল কি না তা তাদের জানা ছিল না। সোমবার দিনগত রাত ৩টা সাড়ে ৩টার দিকে তাদের ঘুম থেকে ডেকে তোলে পুলিশ। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশের সহযোগিতায় বাড়ির মালিক আমান উল্ল্যাহ তাকে হাসপাতালে নেন।

বাড়ির মালিক আমান উল্লাহ সংবাদমাধ্যমকে জানান, সোমবার রাত আনুমানিক ৯টার দিকে শরীফ বাইরে থেকে বাসায় এলে হনুফা তাকে দুধ খেতে দেয়। এক চুমুক দুধ খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে শরীফ। পরে স্ত্রী মধ্যরাতে তার পুরুষাঙ্গ কেটে দরজা বাইরে থেকে তালা দিয়ে কাটা বিশেষ অঙ্গ হাতে নিয়ে থানায় উপস্থিত হন।

শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মিজান সংবাদমাধ্যমকে জানান, তিনি রাতে ওই এলাকায় ডিউটিতে ছিলেন। তখন থানার ডিউটি অফিসার তাকে ফোনে জানান, স্বামীর গোপনাঙ্গ কেটে নিয়ে এক নারী থানায় হাজির হয়েছেন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঘরে তালাবদ্ধ অবস্থায় রেখে এসেছেন।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোন্দকার ইমাম হোসেন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, অভিযুক্ত নারীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles