19.8 C
Toronto
শনিবার, মে ২৮, ২০২২

কিচেনার স্কুলের ঘটনা পর্যালোচনার নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীর

- Advertisement -
কিচেনার স্কুলের ঘটনা পর্যালোচনার নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীর - The Bengali Times
শিক্ষামন্ত্রী স্টিফেন লেচি শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেন, এই প্রদেশে কোনো পরিস্থিতিতেই চার বছর বয়সী এক শিক্ষার্থীকে স্কুল থেকে সরিয়ে নিতে পুলিশ ডাকার ঘটনা ঘটেনি। কৃষ্ণাঙ্গ ও নৃগোষ্ঠীর বাবা-মাকে অগ্রহণযোগ্য এই পরিস্থিতি মোকাবেল অব্যাহত রাখতে হচ্ছে, যা কেবল শিশু ও তার পরিবারের মনোবল দুর্বল করছে

কিচেনারের জন সুইনি ক্যাথলিক এলিমেন্টারি স্কুলে চার বছর বয়সী এক শিক্ষার্থীর আচরণ নিয়ে পুলিশ ডাকতে হয়। ওয়াটারলু রিজিয়ন ক্যাথলিক ডিস্ট্রিক্ট স্কুল বোর্ড কীভাবে বিষয়টি মোকাবেলা করেছে তা পর্যালোচনা করার নির্দেশ দিয়েছেন অন্টারিওর শিক্ষামন্ত্রী স্টিফেন লেচি।
২৯ নভেম্বর স্কুলের চার বছর বয়সী এক শিক্ষার্থীর সহিংস আচরণের খবর পেয়ে কর্মকর্তাদের ঘটনাস্থলে যাওয়ার বিষয়টি পুলিশ নিশ্চিত করেছে। শিশুটির পরিবার নাইজেরিয়ার।
পুলিশ জানিয়েছে, কর্মকর্তারা ওই শিক্ষার্থীকে শান্ত করতে কাজ করেন, পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং শিশুটিকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

শিক্ষামন্ত্রী স্টিফেন লেচি শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেন, এই প্রদেশে কোনো পরিস্থিতিতেই চার বছর বয়সী এক শিক্ষার্থীকে স্কুল থেকে সরিয়ে নিতে পুলিশ ডাকার ঘটনা ঘটেনি। কৃষ্ণাঙ্গ ও নৃগোষ্ঠীর বাবা-মাকে অগ্রহণযোগ্য এই পরিস্থিতি মোকাবেল অব্যাহত রাখতে হচ্ছে, যা কেবল শিশু ও তার পরিবারের মনোবল দুর্বল করছে।

- Advertisement -

লেচি বলেন, মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি হিসেবে তৃতীয় পক্ষ পরিস্থিতির নৈর্ব্যক্তিক বিশ্লেষণ করবে। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে স্কুল বোর্ডকে তা নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের আরও বেশি কিছু করতে হবে।

আগামী মাসের মধ্যেই এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন তৈরি হয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে এবং পরিবার ও স্কুল বোর্ডের কাছে তা পাঠিয়ে দেওয়া হবে।
চার বছর বয়সী ওই শিশুর পরিবারের মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ওয়াটারলু অঞ্চলের নাইজেরিয়ানদের প্রেসিডেন্ট ফিদেলিয়া উকুয়েজে। কারণ, শিশুটির পরিবার এ নিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে রাজি নয়। পুলিশের বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে উকুয়েজে বলেন, শিশুটি ডেস্কের ওপর লাফ দেয় ও শিক্ষকের কাছ থেকে দৌড়ে পালিয়ে যায়। কিন্তু কোনোমতেই সে সহিংস ছিল না। চার বছরের একটি শিশুর ওপর অপরাধ চাপিয়ে দিয়ে স্কুল বোর্ড ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। শিশুটির সঙ্গে স্কুল বোর্ড যা করেছে তা ন্যায়সঙ্গত নয়।

This article was written by Sohely Ahmed Sweety as part of the Local Journalism Initiative.

 

 

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles