19.7 C
Toronto
বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০২৪

রাশিয়ায় বন্ধ করে দেওয়া হল টুইটার!

রাশিয়ায় বন্ধ করে দেওয়া হল টুইটার! - the Bengali Times

ইউক্রেন ও রাশিয়ার সৈন্যদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ চলছে। রাশিয়ার সৈন্যদের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা ইউক্রেনের সেনা সদস্য ছাড়াও বেসামরিক মানুষ মারা গেছে। সংঘর্ষ চলাকালে আক্রমণের তৃতীয় দিনে টুইটারের অ্যাক্সেস বন্ধ করে দিয়েছে রাশিয়া।

- Advertisement -

রাশিয়ার পাশ্ববর্তী দেশ ইউক্রেনে হামলা পর শনিবারে সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। রাশিয়ানরা এখনও ভিপিএন সংযোগ ব্যবহার করে টুইটারের নাগাল পেলেও সরাসরি সংযোগ মিলছে না বলে জানিয়েছে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট দ্য ভার্জ। রাশিয়ায় অবস্থানরত সাংবাদিকরা এই টুইটার অবরোধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বিবিসির একজন সাংবাদিক টুইটারের “এক্সেস গুরুতরভাবে সীমাবদ্ধ” হিসাবে বর্ণনা করে বলেছেন। “এই বার্তাটিই যে দিলাম, এটি যেতেও সময় লেগেছে।”

এই বিধিনিষেধ আরোপের পেছনে কারণ স্পষ্ট নয়, তবে দেশটি সামাজিক মাধ্যম প্ল্যাটফর্মগুলির ওপর খড়্গহস্ত হয়েছে।

রুশ সেনারা ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের ওপর আক্রমণ চালাচ্ছে। শনিবার পর্যন্ত রাজধানী ইউক্রেইনীয় সরকারের হাতে ছিল। দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, যুদ্ধে ১৯৮ জন ইউক্রেইনীয় নিহত হয়েছে এবং আহত হয়েছে এক হাজারেরও বেশি।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় প্রচার মাধ্যম এই সংঘাতের ব্যাপকভাবে সেন্সরকরা সংস্করণ প্রচার করছে। ওই সংবাদগুলোর কেন্দ্রে ছিল পূর্ব ডনবাস প্রদেশের উদ্বাস্তুদের দুর্দশার বর্ণনা।

সামাজিক মাধ্যম প্ল্যাটফর্মগুলোয় এই সংঘাতের আরও নাজুক চিত্র উঠে এসেছে। সংঘাতের ভীতিকর ছবি এবং ভিডিও ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়েছে। বহুল প্রচারিত একটি ভিডিওতে দেখা যায়, রাশিয়ার একটি ক্ষেপণাস্ত্র কিয়েভের একটি আবাসিক অ্যাপার্টমেন্ট টাওয়ারে আঘাত হেনেছে, যা আন্তর্জাতিক আইনের সরাসরি লঙ্ঘন। অন্যান্য ছবিতে ক্লাস্টার বোমাসদৃশ অস্ত্র দেখা গেছে তবে সেগুলো এখনও যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

ইউক্রেইনে ইন্টারনেট অ্যাক্সেস সক্রিয় রয়েছে এবং সেখানে টুইটার অবরুদ্ধ করা হয়নি। কিছু বিশ্লেষক উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে রাশিয়ান বাহিনী টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো দখল করতে পারে এবং সংঘাত তীব্রতর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ইন্টারনেট ব্ল্যাকআউট শুরু করতে পারে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles